1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
একই ব্যক্তি সরকারী দুই প্রতিষ্ঠানে চাকুরী, সুপারের সহযোগিতায় বেতন ভাতা উত্তোলন - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৬:১৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
আজ রোববার লালমনিরহাট ও কালীগঞ্জ উপজেলার ১৭টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন নবীগঞ্জ উপজেলায় ১৩ টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন।। আজ নির্বাচন ৪৮ টি ঝুকিপূর্ন আশুলিয়ায় শাহাবুদ্দিন মাদবরের নির্বাচনী আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম জেলা প‌রিষ‌দ টাওয়ারের মূল ভবন নির্মাণ কা‌জের উদ্বোধন রাউজানের সীমান্তবর্তী রাঙ্গামাটি জেলার কাউখালী উপজেলার ডাক্তার ছোলা এলাকায় পাহাড় কাটা হচ্ছে হাটহাজারীর ১৩ ইউনিয়ন পরিষদে ভোট কাল ধর্মপাশায় ৫ম ধাপে ১০টি ইউপিতে হবে নির্বাচন শ্রীনগরে জমি লিখে নিতে সাবেক ইউপি সদস্যের হুমকি” দেশের কোন আইন এই এলাকায় কিছু করতে পারবে না নাছির উদ্দীন এর জনমতে ঈর্ষান্বিত হয়ে তার পরিবারের উপর প্রতিপক্ষের হামলা মোবাইল চুরির অপবাদে বিবস্ত্র করে যুবককে নির্যাতন

একই ব্যক্তি সরকারী দুই প্রতিষ্ঠানে চাকুরী, সুপারের সহযোগিতায় বেতন ভাতা উত্তোলন

শ্রীপুর (গাজীপুর) থেকে ফজলে মমিনঃ
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৯ নভেম্বর, ২০২১
  • ১০০ বার

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার বরমী ইউনিয়নের কাশিজুলি গ্রামের জাকির হোসেন নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের দুই প্রতিষ্ঠানের বেতন ভাতা ভোগ করার অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন স্থানীয় জাকারিয়া ও নাঈম নামের দুই ব্যক্তি। অভিযুক্ত জাকির হোসেন ওই গ্রামের আবুল হাশেমের ছেলে। তিনি উপজেলার বরমী ইউনিয়নের লাকচতল দাখিল মাদরাসার অফিস সহকারী এবং বরমী ইউনিয়ন পরিষদের ১ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ।

তথ্যানুসন্ধানে উঠে আসে , ১৯৯১ সালের জানুয়ারি মাসে লাকচতল ইসলামীয়া দাখিল মাদ্রাসায় অফিস সহকারী হিসাবে যোগদান করেন জাকির হোসেন। প্রতিষ্ঠানের কাগজ কলমে সেখানেই নিয়মিত অফিস ও করছেন তিনি।২০১৬ সালে নির্বাচনে অংশ গ্রহনের জন্য প্রতিষ্ঠান থেকে অনুমতি পত্র নেওয়ার নিয়ম থাকলেও সেটি তিনি করেননি।তবে সুপার বলছে ভিন্ন কথা অনুমতিপত্র নিয়েছেন নির্বাচনে অংশ নিতে।কিন্তু কোন অনুমতির কাগজ দেখাতে পারেননি সুপার।

২০১৬ সালের স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে ইউপি মেম্বার পদে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করে ভোটে জয়লাভ করেন জাকির হোসেন। পরবর্তীতে যথারীতি জাকির উভয় প্রতিষ্ঠানের হাজিরা খাতা উপস্থিত দেখিয়ে সরকারী বেতনভাতা উত্তোলন করে আসছেন। এসব অপকর্মে অনৈতিক সুবিধার বিনিময়ে সুযোগ করে দিয়েছেন মাদ্রাসার সুপার মফিজুল ইসলাম।
অভিযুক্ত জাকির হোসাইনের সরকারী ইনডেক্স ৩৪২৪৯৭ এর অধীনে অগ্রণী ব্যাংক হিসাব নং ৩৩/৮৯৯০ হিসাব থেকে প্রতিমাসেই নিয়মতি ভাবে
সরকারী কোষাগার থেকে বেতন তুলে নিয়েছেন তিনি।
প্রতিষ্ঠানের প্রধান মাদ্রাসার সুপার স্বাক্ষরিত বেতন তালিকায় তিনি উল্লেখ করেছেন অফিস সহকারী জাকির হোসেন নিয়মিতই প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত রয়েছেন । আবার একই ব্যক্তি বরমী ইউনিয়ন পরিষদে শতভাগ উপস্থিত থেকে বেতন ভাতা ভোগ করেছেন মর্মে সেখানের রেজিস্ট্রার নথিতে স্ট্যাম্প রেভিনিউ সম্বলিত তার স্বাক্ষর রয়েছে।
তবে সরকারী ছুটির দিন এবং শূক্রবারে মাদ্রাসার হাজিরা রেজিষ্টারে দেখা যায় জাকির স্বাক্ষর করে শতভাগ উপস্থিতি নিশ্চিত করেছেন।সরকারী ছুটিদিনেও হাজিরা খাতায় রয়েছে অভিযুক্ত জাকির হোসাইনের স্বাক্ষর। এ বিষয়ে মাদ্রাসার সুপার বলেন, হয়তো ভুলে তিনি করেছেন।হাজিরা খাতায় এতো ঘষাঘষি কেন জানতে চাইলে কোন সদুত্তর দিতে পারেনি সুপার।বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা ও করে সংবাদ প্রকাশ না করতে অনুরোধ ও করেন তিনি।

অভিযুক্ত জাকির হোসাইন বলেন,
সরকারীভাবে যদি কোন সমস্যা সৃষ্টি হয়। আমি রাষ্ট্রের কোষাগার থেকে উত্তোলনের বেতনের টাকা ফেরত দিবো। আমি পরিষদে ৫ বছর ধরে দায়িত্ব পালন করছি। একই সাথে বিদ্যালয়েও নিয়মিত উপস্থিত ছিলাম। প্রতিষ্ঠান অনুমোদন দিয়েছেন বলেই আমি আছি। এ বিষয়ে তাদের সঙ্গে কথা বলার পরামর্শ দেন তিনি।
তবে, নাম প্রকাশে স্থানীয়রা ও অনিচ্ছুক ওই বিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক দাবি করেছেন, স্থানীয়ভাবে প্রভাব বিস্তার করে জাকির হোসেন তার ইচ্ছেমতো প্রতিষ্ঠানে আসা যাওয়া করে। সারাবছরই তিনি তারিখবিহীন ছুটির আবেদন সুপারের কাছে জমা দিয়ে রাখেন।সরকারী কোন কর্মকর্তা পরিদর্শনে গেলে জাকিরকে মাদ্রাসা পাওয়া যায় না। তার বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই তবে সুপার মফিজুল ইসলামের অদৃশ্য কারনে জাকিরের অভিযোগের কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়না। সুপারই মফিজুল ইসলামই সব ম্যানেজ করতেন বলে জানা গেছেন ।
এ বিষয়ে লাকচতল ইসলামীয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মফিজুল আলম বলেন, জাকির হোসেন আমার প্রতিষ্ঠানের অফিস সহকারীর দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তাই বেতনও তার নামে পৌঁছেছে। তবে জাকিরের মাদ্রাসায় উপস্থিতি ওএকই সাথে অন্য প্রতিষ্ঠানে চাকুরী প্রসঙ্গে তিনি বলেন,এটা ত ওই শিক্ষক নির্বাচনের সময় আবেদন করে ছুটি নিয়েছিলেন। নির্বাচনে জয়লাভ করার পরে মাদ্রাসা ও ইউনিয়ন পরিষদ উভয় প্রতিষ্ঠান থেকে বেতনভাতা উত্তোলন করেছেন। তবে দু প্রতিষ্ঠান থেকে বেতন নেওয়া অপরাধ এটা আমি জানিনা।
খোজঁ নিয়ে দেখবো।একই ব্যক্তি সরকারী দুই প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করে বেতন নেওয়া যায় কিনা এমন প্রশ্নে মাদ্রাসার সুপার বলেন, সরকারী আইন অমান্য করে একই ব্যক্তি দুই প্রতিষ্ঠান থেকে অর্থ উত্তোলন করা ধর্তব্য অপরাধের শামিল এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ ও চাকুরীর প্রবিধি লংগন।আমি বিষয়টি ওপর মহলকে লিখিতভাবে অবগত করবো।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নুরুল আমিন বলেন, একই ব্যক্তি দুই পদে পৃথক বেতন ভাতা গ্রহণের সুযোগ নেই এবং তা বিধি বহির্ভূত। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে বিধি মোতাবেক যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম