1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
কৃষক লীগের ৩ মাসের কমিটির দীর্ঘ ৩বছর ধরে পদ বানিজ্যের অভিযোগ থাকলেও দেখার কেউ নেই! - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১১:৫৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
এডিস মশা নিরোধক বিটিআই পণ্যের উদ্বোধন অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের অনুদান প্রদান – সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী বিনামূল্যের সরকারি বই কেজি দরে বিক্রি। কোটি টাকার বিনিময়ে নাঙ্গলকোট উপজেলা সমিতির কমিটি শ্রীপুর পৌরসভার পৌর নির্বাহী কর্মকর্তার অর্থ-আত্মসাৎ,দুর্নীতি ও স্বেচ্ছারিতার অভিযোগ উঠেছে শ্রীপুরে ৩দিনব্যাপী জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবসে উন্নয়ন মেলা’র উদ্বোধন দিনাজপুরে দিনব্যাপী উৎসবমুখর পরিবেশে পুষ্টি উৎসব অনুষ্ঠিত তিতাসে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস উপলক্ষে উন্নয়ন মেলা উদ্বোধন ঠাকুরগাঁওয়ে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস উদযাপন উপলক্ষে আলোচনা সভা কৃষক লীগের ৩ মাসের কমিটির দীর্ঘ ৩বছর ধরে পদ বানিজ্যের অভিযোগ থাকলেও দেখার কেউ নেই!

কৃষক লীগের ৩ মাসের কমিটির দীর্ঘ ৩বছর ধরে পদ বানিজ্যের অভিযোগ থাকলেও দেখার কেউ নেই!

স্টাফ রিপোর্টার :
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ২১ বার

ঢাকা জেলা উত্তর কৃষকলীগের আহবায়ক মহসিন করিম ও সদস্য সচিব আহসান হাবিবসহ ২৫ সদস্যের একটি সম্মেলন প্রস্থুতি কমিটি গত
১২/০৫/২০২১ ইং তারিখে ৩ মাসের জন্য অনুমোদন দেওয়া হলেও কৃষকলীগের গঠনতন্ত্র বহির্ভূতভাবে গত তিন বছরেও সম্মেলন প্রস্থুত কমিটি সম্মেলন সম্পন্ন করতে পারেনি, ৩মাসের কমিটি দিয়ে গতি ৩বছর ধরে চলছে পদ বানিজ্যসহ নানা দুর্নীতি।
আহবায়ক ও সদস্য সচিব দুই জনই থানার সাবেক সাধারন সম্পাদক থাকাকালীন
সংগঠনে নানা অনিয়ম দুর্নীতি করেছেন। তাদেরকে নিয়ে জেলার দ্বায়িত্ব দেওয়ায় অনেক নেতা-কর্মী কৃষকলীগ থেকে সরে গেছে। বর্তমানে কেউ তাদের নেতৃত্বে
রাজনীতি করতে চায় না। উক্ত সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটিকে সাভার আশুলিয়া ও ধামরাই উপজেলায় থানা ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটি সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠন
করে ঢাকা জেলা সম্মেলন সফল করার দ্বায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল । কিন্তু অত্যন্ত
দুঃখের বিষয় গত আড়াই বছরেও তারা সাভার আশুলিয়া ও ধামরাই ৩টি থানা ২৮টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভার কোনটিতেই সম্মেলন করে অথবা সম্মেলন প্রস্তুতির
আহবায়ক কমিটির মিটিং করে কোন কমিটি দিতে পারেনি। অভিযোগ রয়েছে গত আড়াই
বছরের মধ্যে ২৫ সদস্যের ১৫ জনকে একত্রিত করে কোন মিটিং করতে পারেনি।
একাধিক সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্যরা বলেন,সংগঠনের কোন প্রোগ্রামে
তাদেরকে ডাকা হয়না। আহবায়ক ও সদস্য সচিবকে সম্মেলনের প্রস্তুতি কমিটির
আহবায়ক করা হলেও তারা নিজেদের মুল কমিটির আহবায়ক সদস্য সচিব পরিচয় দিয়ে
থাকেন। ঢাকা জেলার
ঐতিহ্যবাহী কৃষকলীগ চলে ফেইসবুকে। মেয়াদ উর্ত্তীর্ন সম্মেলন প্রস্তুত কমিটির আহবায়ক সদস্য সচিব দুইজনে কেন্দ্রীয় কমিটিকে তোয়াক্কা না করে তাদের দু’জনের মনগড়া সিদ্ধান্তই চুড়ান্ত বলে চালিয়ে দিচ্ছে। কারন কেন্দ্রীয় কমিটিকে তারা মিথ্যাকে সত্য বানিয়ে বুজ
দিয়ে রাখে। ঢাকা জেলা উত্তরের কৃষকলীগ এর ত্যাগী নেতা সহির উদ্দিন বলেন, বাংলাদেশ
কৃষক লীগের সভাপতি কৃষিবিদ সমির চন্দ একাধিকবার জেলার মিটিংয়ে বলেছেন
ঢাকা জেলা উত্তরের কমিটি এখনও বহাল আছে। পুর্বের কমিটি বিলুপ্ত করা হয়নি।
কিন্তু বর্তমান কমিটির কোন মিটিংয়ে পুর্বের কমিটির কাউকে ডাকা হয়না। তারা
এখন কৃষকলীগে আছে না নেই এই প্রশ্ন কৃষকলীগের কয়েক শতাধিক নেতা কর্মীর।
অন্যদিকে সম্মেলন প্রস্তুত কমিটির আহবায়ক ও সদস্য সচিব কমিটি গঠনের
ক্ষমতা পেয়ে থানা ও ইউনিয়নে পদ বানিজ্য করে কয়েক লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে আহবায়ক ও সদস্য সচিবের বিরুদ্ধে।
কৃষকলীগের থানা পর্যায়ের একাধিক নেতা নাম না প্রকাশের শর্তে বলেন, তাদেরকে ভালো পদ দিবে বলে সদস্য সচিব আহসান হাবিব টাকা নিয়ে কক্সবাজার ফুর্তি করতে বেড়াতে যান অন্যদিকে আহবায়ক মহসিন করিম থানার সেক্রেটারী এক পদ ৪ জনের কাছে বিক্রি করে কয়েক লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিভিন্ন মহলে। তিন মাসের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি আড়াই বছর ধরে পদ বানিজ্য করলেও কেন্দ্রীয় কমিটি তাদের দ্বায়িত্ব অবহেলার জন্য কোন ব্যবস্থা নেয়নি। ঢাকা জেলা আহবায়ক কমিটির এক যুগ্ন-আহবায়ক এই প্রতিবেদককে বলেন, বছরে দুই দিন ২৬ মার্চ ও ১৬ ডিসেম্বর কেন্দ্রীয় কমিটির সামনে ভাড়া করা কিছু মাদক আসক্ত লোক নিয়ে মহড়া দিয়ে তাদের খুশী করা হয়। এছাড়া দলের পদ পদবী ব্যবহার করে ঢাকা জেলার কৃষকলীগের আহবায়ক মহসিনের বিরুদ্ধে মাদক
ব্যবসা,ডিস ব্যবসা, জমি দখল জুট বানিজ্য অন্য লোকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে নেতার ক্ষমতা দেখিয়ে না দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। ২০২২ সালের দিকে তার ডেন্ডাবর নতুন পাড়ার বাসা থেকে র‌্যাব-৪ এর একটি চৌকস দল অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ী বিউটি, রানা ও মহসিনকে মাদকসহ আটক করে র‌্যাব ক্যাম্পে তুলে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে কৃষক লীগের পরিচয় দিয়ে সে ছাড়া পেলেও বাকী দুইজনের বিরুদ্ধে মাদক বিক্রির
অভিযোগে মামলা দিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করেন। খোজ নিয়ে জানা যায়.বিউটি ও রানা দীর্ঘ দিন থেকে তার আশ্রয়ে মাদক ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে বলে
এলাকাবাসী জানায় । মামলার তদন্ত কর্মকর্ত আশুলিয়া থানার উপ- পরিদর্শক মফিজুর রহমান বলেন, বিউটি ও রানার বিরুদ্ধে খুন ও মাদকের একাধিক মামলা
রয়েছে। তারা এলাকার চিহিৃত মাদক ব্যবসায়ী বলে জানান ঐ পুলিশ কর্মকর্তা।
তাদের ধরে জেলে দিলে ঢাকা জেলা উত্তর কৃষকলীগের আহবায়ক মহসিন তদবীর করে জেল হাজত থেকে বিউটিকে ছাড়িয়ে এনে আশ্রয় দিয়ে রাখে। রানাকে জেল থেকে ছাড়িয়ে না আনার কারনে রানা মহসিনকে জেল থেকে এসে নানা ভাবে হুমকি দেয়। এদিকে বিউটি জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার এক সাপ্তাহ পর গত ২০২২ সালের
আগষ্ট মাসে ঢাকা জেলা কৃষকলীগের জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বাষির্কীর অনুষ্ঠানে বিউটি ধামসোনা ইউনিয়ন মহিলা সম্পাদিকা হিসাবে মাইকে বক্তব্য
রাখেন। এসময় ঢাকা জেলার যুগ্ন-আহবায়ক মুক্তা আরেক সহকর্মির কাছে হলরুমে
প্রতিবাদ করেন। মুক্তা বলেন কয়েক দিন আগে যাকে মাদকসহ র‌্যাবে জেল হাজতে
পাঠিয়েছে। সে এখন কৃষকলীগের নেত্রী হলো কিভাবে?।এসময় উপস্থিত অনেক নেতা কর্মী ক্ষোভ ও নিন্দা জানান। বর্তমানে বিউটি ও তার একটি গ্রুপ মহসিনের
বাড়িতে থেকে মাদক বানিজ্য করে যাচ্ছে।
আশুলিয়ার জামগড়া ইয়াপুর ইউপির ১নং ওয়ার্ডের দুইবারের সাবেক মেম্বার সাইফুল ইসলাম বলেন, তার ছোট ভাই দেলোয়ার হোসেনকে আশুলিয়া থানার সাধারন
সম্পাদক পদ দিবে বলে মহসিন দুই লক্ষ টাকা নিয়েছে। সে মারা যাওয়ার পর কৃষক লীগের পক্ষ থেকে কেউ দেখতেও যায়নি। আমাকে থানার সহ-সভাপতি পদ দিয়ে
চিঠি দিয়ে আমার কাছে টাকা দাবী করেন। আমি টাকা দেই নাই বলে পুর্নাঙ্গ কমিটিতে আমাকে ৫২ নং সদস্য করা হয়। এতে আমি সামাজিক ভাবে অসন্মানীত হই।
আশুলিয়া থানা কৃষক লীগের সাবেক সহ- সভাপতি হযরত আলী বলেন, তাকে থানা কমিটিতে সাধারন সম্পাদক পদ দেওয়ার কথা বলে জেলার আহবায়ক মহসিন তিন লক্ষ টাকা নিয়েছে। গত দুই বছরে মহসিন আমাকে দিয়ে ফেষ্টুন ব্যানার ও কর্মীদের
ঢাকায় যাওয়ার খরচ বাবদ গাড়ী ভাড়াসহ আরো ৭/৮ লক্ষ টাকা ব্যায় করিয়েছে।
আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের অনেক সিনিয়র নেতা কর্মীকে আমি বিষয়টি জানাই ।
পরবর্তীতে আরো বেশী টাকা পেয়ে ডেন্ডাবরের রতনের মার্কেটের কেয়ারটেকার যে কোন দিন কৃষকলীগ করেনি রেজাউল নামে অযোগ্য এক ব্যাক্তিকে টাকার বিনিময়ে
থানার সাধারন সম্পাদক ফেইসবুকে ঘোষনা করেন। প্রস্তুতি কমিটির মহসিন তার গাড়ীর ড্রাইভার রুবেল হোসেনকে থানা কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক পদ
দিয়েছেন,তার শালক দপ্তর সম্পাদক করা হয়।
গত ০৯-০৯-২৩ইং তারিখে মহসিন ও আহসান হাবিব সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির কোন মিটিং না ডেকে একটি পোশাক কারখানার ভিতরে দুইজনে যুক্তি করে তাদের মনগড়া পকেট কমিটি করে ফেইসবুকে প্রচার করে। এভাবে সে পকেট কমিটি করে এলাকায়
বির্তক সৃষ্টি করেছেন। এতে জাতির জনক এর হাতে গড়া ঐতিহাব্যাহী বাংলাদেশ কৃষকলীগের সভাপতি ও সেক্রেটারীর সন্মানহানী হয়েছে। তিন মাসের কমিটি আড়াই বছরেও তারা একটি ইউনিয়নে সম্মেলন করে কোন কমিটি দিতে পারেনি। কি কারনে
কোন স্বার্থে তাদেরকে পুর্নাঙ্গ কমিটি দেওয়া হবে ঢাকা জেলা উত্তর কৃষকলীগের নেতা কর্মিরা জানতে চায়। তারা বলেন কৃষকলীগের ত্যাগী ও সন্মানীত নেতাদের
বাদ দিয়ে অযোগ্য বিতর্কিত লোকদের দিয়ে কমিটি চালালে কৃষক লীগের দূর্নাম সৃষ্টি হবে।
জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া বাংলাদেশ কৃষকলীগের সাংগঠনিক ব্যাপক সুনাম
রয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কৃষকরত্ন শেখ হাসিনার আবিস্কার কৃষিবিদ সমির চন্দকে সভাপতি ও এ্যাডভোকেট উম্মে কুলসুম স্মৃতিকে সাধারন সম্পাদক করে বাংলাদেশ কৃষকলীগের সাংগঠনিক অবকাঠামো উন্নয়ন করে অদৃশ্যমান সংগঠনকে
ব্যাপক সুসংগঠিত করা হয়েছে। এছাড়া প্রতিটি জেলা উপজেলা ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠন করা হয়েছে। আজ বাংলাদেশ কৃষকলীগ
মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রাণের সংগঠনে পরিনত হয়েছে। অন্যদিকে কেন্দ্রীয় কমিটির প্রধান প্রাণ শক্তি হিসাবে যে সংগঠনটি কাজ করবে সেটি হলো কৃষকলীগ
ঢাকা জেলা উত্তর শাখা সেটি যদি সঠিক ভাবে গড়ে না উঠে তাহলে কেন্দ্রীয় কমিটি তার লক্ষে সফলতা পেতে কষ্ট হবে। এক সময় বৃহত্তম ঢাকা জেলার
দ্বায়িত্বরত সভাপতি মিয়া আব্দুর রহিম সংগঠনকে সুসংগঠিত করার জন্য মাননীয় প্রধান মন্ত্রী কৃষকরত্ন শেখ হাসিনার হাত থেকে শ্রেষ্ট সংগঠক হিসাবে
পুরস্কার পেয়েছেন। আর বর্তমানে যারা এই দ্বায়িতে আছে তাদের বিরুদ্ধে নানা অপকর্ম অনিয়ম দুনীতি করার অভিযোগ পাওয়া যায়। ঢাকা জেলা উত্তর ও থানার কৃষক লীগের নেতা কর্মীরা জানায়,মহসিন ও আহসান হাবিব কে দিয়ে ঢাকা জেলার মতো একটি জেলার সংগঠন সঠিক ভাবে পরিচালিত হবেনা তা তিন মাসের কমিটি দিয়ে তিনবছরে বুঝা গেছে। তাদের নেতৃত্বে অনেক
দুর্নাম আছে। এরা সংগঠন কে বিক্রি করে অর্থ উপার্জনে নেমেছে তাদের কাছে কৃষকলীগ নিরাপদ নয়। প্রয়োজনে কেন্দ্রিীয় কমিটি তদন্ত কমিটি গঠন করে সকল
নেতা-কর্মীর বক্তব্য নিয়ে সঠিক টা জেনে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিবেন এই দাবী ঢাকা জেলার কৃষকলীগের নেতা কর্মীদের।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম