1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
ইউপি সদস্য কাশেম হত্যার ১৬২ দিন, এখনো অধরা মামলার ছয় আসামি * ন্যায়বিচার পাওয়া নিয়ে শঙ্কিত নিহতের পরিবার - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৮:০৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
Tips for choosing the best sugar daddy for you আ’লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বাঁশখালী আ’লীগে ঐক্যের সুর 1win – лучшая букмекерская контора с высокими коэффициентами и широкой линией ставок для азартных игроков ১০৫ জন অধ্যাপক ও সহযোগী অধ্যাপক থাকা স্বত্বেও ডিন হওয়ার অভিযোগ কুবি উপাচার্যের বিরুদ্ধে নকলায় ইউএনওর সাজানো মামলা থেকে সাংবাদিক রানা বেকসুর খালাস ঠাকুরগাঁয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে আওয়ামী লীগের পৃথক পৃথক ভাবে ৭৫ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন। বাস্তব জীবনেও সামাজিক মাধ্যমের প্রভাব স্বাধীন গণমাধ্যমে হুমকি, কণ্ঠ রোধে চেষ্টার প্রতিবাদে রাজশাহীতে মানববন্ধন তিতাসে বিএনপি থেকে পদত্যাগ করলেন সাংবাদিক কবির হোসেন শ্রীপুরে কৃষি মেলার উদ্ধোধন” বয়স্ক জনগোষ্ঠীর আর্থিক সুরক্ষা নিশ্চিত করা একটি কল্যাণমূলক রাষ্ট্রের অন্যতম দায়িত্ব–প্রতিমন্ত্রী টুসি এমপি

ইউপি সদস্য কাশেম হত্যার ১৬২ দিন, এখনো অধরা মামলার ছয় আসামি * ন্যায়বিচার পাওয়া নিয়ে শঙ্কিত নিহতের পরিবার

এম.এ মান্নান লাকসাম-মনোহরগঞ্জ কুমিল্লা।
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪
  • ৪৩ বার

 

এম.এ মান্নান

লাকসাম-মনোহরগঞ্জ কুমিল্লা প্রতিনিধি

লাকসামে ইউপির সদস্য আবুল কাশেম হত্যার প্রায় ১৬২ দিন হতে চলল। কিন্তু এখনো অধরা
মামলার মূল আসামি রাজিব হোসেনসহ এজাহারভুক্ত ছয়জন আসামি। তারা পুলিশের থেকে ধরাছোঁয়ার বাইরে। কিন্তু এজাহারভুক্ত প্রধান আসামি দেখা না গেলেও অপর আসামিরা পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে
এলাকায় চায়ের স্টোরে ও স্থানীয় বাজারে প্রক্যাশে দেখা যাচ্ছে বলে নিহত পরিবারের অভিযোগ। আসামিরা গ্রেফতার না হওয়ায় ন্যায়বিচার পাওয়া নিয়ে শঙ্কিত নিহতের পরিবার ও এলাকাবাসী।
অবিলম্বে মামলার প্রধান আসামিসহ অন্য আসামিদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগী পরিবার।
এছাড়াও ইউপির সদস্য আবুল কাশেমে’র হত্যার ঘটনায় জড়িত খুনিদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের ফেস্টুন ব্যানার ও ইউনিয়ন ওয়ার্ডগুলোতে বিভিন্নসময় প্রতিবাদ সভাও করে যাচ্ছেন। এ দিকে হত্যার ঘটনায় জড়িতদের ধরিয়ে দিতে ফেসবুকে
পুরস্কার ঘোষণা করেছে নিহতের ছোট ভাই আবুল হাশেম মোহাম্মদ।
কাশেম হত্যাকাণ্ডের ১৬২ দিন পার হয়েছে। তাঁর স্বজনদের এখনো আহাজারি থামেনি। গণমাধ্যমের কর্মী বা শহর থেকে কেউ বাড়িতে ঢুকতে দেখলেই তাঁরা আসামিদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছেন সোমবার সকালে লাকসাম মুদাফরগঞ্জ শ্রীয়াং গ্রামে এমন দৃশ্য চোখে পড়ে। এসময় নিহত কাশেমে’র স্ত্রী আমেনা বেগম এক সাক্ষাৎকারে যুগান্তরকে বলেন,‘আমার স্বামী হত্যাকাণ্ডের স্থানীয় মাদক বিক্রেতা রাজিব হোসেন ও স্থানীয় সাবেক ওয়ার্ড মেম্বার এবং ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল্লাহ চৌধুরী সরাসরি জড়িত।
তারা আমার স্বামীকে প্রক্যাশে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে। সেই খুনি রাজিবকে এখনো খুঁজে পাচ্ছে না আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এতে আমরা হতাশ। আমার স্বামীর খুনি রাজিব গেল কোথায়। রাজিব বাহিনী কি দেশ ছেড়ে পালিয়েছে? এছাড়াও এজাহারভুক্ত বাকী পাঁচ আসামি প্রক্যাশে এলাকায় দেখা যাচ্ছে,পুলিশকে জানালেও তাদের কোন আইনের ভুমিকা নেওয়া হয় না। তাই আমার স্বামীর হত্যার বিচার কি পাবো না। খুনি রাজিব বাহিনীসহ আমার স্বামীর হত্যার পেছনে যাদের হাত রয়েছে তাদের সবাইকে আইনের আওতায় আনার দাবি করছি।’
নিহতের ছোট ভাই আবুল হাশেম মোহাম্মদ
বলেন, দেশব্যাপী আলোচিত ইউপি সদস্য আবুল কাশেম হত্যাকাণ্ডের ৫ মাস ১৩ দিন অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত ৬ জন অভিযুক্তদের গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।তাই আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সহযোগিতার জন্য আমার ফেসবুক আইডি থেকে স্ট্যাটাসে’র মাধ্যমে কাশেম হত্যাকারীদের ধরিয়ে দিতে ১ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করি।তিনি আরো বলেন, যদি কেউ আবুল কাশেম মেম্বারে’র হত্যাকাণ্ডে জড়িত প্রধান অভিযুক্তদের ধরিয়ে দিতে পুলিশকে সহযোগিতা করেন, তাহলে আমি ও আমার পরিবার পরিজন তার নাম-পরিচয় গোপন রেখে উপযুক্ত পুরস্কার দেওয়া হবে।
উল্লেখ্য, ২০২৩ সালে ৩১ আগস্ট রোজ বৃহস্পতিবার দুপুরে লাকসাম উপজেলার শ্রীয়াং বাজারে মাদক সেবনে বাধা দেওয়ায় স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার আবুল কাশেম (৫২) কে প্রক্যাশে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যাকরে সেবনকারী রাজীব হোসেন। নিহত আবুল কাশেম উপজেলার দক্ষিণ মুদাফরগঞ্জ ইউপির শ্রীয়াং ৮ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার এবং শ্রীয়াং ওয়ার্ড আ.লীগের সভাপতি ছিলেন।
হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিহতের স্ত্রী আমেনা খাতুন বাদী হয়ে ৬ জনের নাম উল্লেখ করে ২০২৩ সালের ১ সেপ্টেম্বর লাকসাম থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
মামলার অভিযুক্ত আসামিরা হলেন- একই গ্রামের মৃত শহিদের ছেলে মো: রাজিব হোসেন (২৮), আবদুল মান্নানের ছেলে শহীদুল্লাহ চৌধুরী (৪৫),মৃত আবদুল গনির ছেলে মো: জুলহাস (৪৮), মোস্তফার ছেলে সোহেল (৩৫),মৃত সিরাজ মিয়ার ছেলে মো: সেলিম (৫৫) ও গোলাফ হোসেন ছেলে সাজ্জাদ হোসেন ভুঁইয়া (৩৫)।
বাদীপক্ষ হত্যার মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা লাকসাম থানার এসআই মো: আশরাফুল আলম বলেন, কাশেম হত্যার
প্রধান আসামি রাজিব হোসেন পলাতক রয়েছে তাকে আমরা খুঁজছি।এজাহারভুক্ত ৩ নাম্বার আসামি জুলহাস’কে গ্রেফতার করা হয়েছে।
এজাহারভুক্ত অন্য আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান চলছে।
থানার ওসি শাহাবুদ্দিন খাঁন যুগান্তরকে বলেন, ‘প্রধান আসামি রাজিব হোসেনসহ এজাহারভুক্ত
অন্য আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান
অবহৃত রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম