1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
রেলপথ মন্ত্রী আসছেন তাই সৈয়দপুরে রাস্তা সংষ্কার নিম্নমানের উপকরণে লোক দেখানো কাজ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ১২:২৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
বাঁশখালীতে মধ্যরাতে অগ্নিকান্ডে পুড়েছে চার দোকান ফাঁসিয়াখালী-মেদাকচ্ছপিয়া পিপলস ফোরাম (পিএফ) সাধারণ কমিটির সভা সম্পন্ন চৌদ্দগ্রামে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উদযাপন চৌদ্দগ্রামে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা ফের ৩দিন ক্লাস বর্জনের ঘোষণা কুবি শিক্ষক সমিতির নবীনগরে পৃথক মোবাইল কোর্ট অভিযানে সাড়ে ৪ লাখ টাকা জরিমানা দৈনিক আমাদের চট্টগ্রামের সম্পাদক মিজানুর রহমান চৌধুরী উপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মাঠে নেমেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা তিতাসে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা শেরপুরে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত

রেলপথ মন্ত্রী আসছেন তাই সৈয়দপুরে রাস্তা সংষ্কার নিম্নমানের উপকরণে লোক দেখানো কাজ

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪
  • ২৪ বার

মো:জাকির হোসেন

নীলফামারী প্রতিনিধি:

বছরের পর বছর ধরে খানাখন্দে ভরা যে চলাচল অযোগ্য রাস্তায় চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরবাসী। হাজার হাজার মানুষ যে রাস্তা মেরামতের দাবীতে বার বার আন্দোলন করে আসছে। একের পর এক মানববন্ধন করার পরও যে রাস্তা সংষ্কারে পৌর কর্তৃপক্ষের কোন ভ্রুক্ষেপ বা উদ্যোগ নাই।

অথচ রেলপথ মন্ত্রীর ক্ষণিকের আগমন উপলক্ষে সেই রাস্তাই তরিঘরি করে থুক পালিশ করা হচ্ছে দিন রাত লেগে থেকে। যদিও অত্যন্ত নিম্নমানের ও পরিত্যক্ত ইটের খোয়া আর বালু দিয়ে কোন রকমে ঢাকা হচ্ছে বড় বড় গর্তগুলো। লোক দেখানো এমন কাজ দেখে জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

তারা মন্তব্য করছেন, নাগরিকরা নয়- নেতা, এমপি, মন্ত্রীরাই সৈয়দপুর পৌর মেয়রের কাছে অগ্রগণ্য। তাইতো রাতারাতি সংস্কার হচ্ছে। তবে নামকাওয়াস্তে এই কাজ দিয়ে মন্ত্রীর কাছ থেকে ব্যক্তিগত সুবিধা নেয়াই মেয়রের লক্ষ্য। সেই সাথে খরচ দেখিয়ে পূর্বের মতই পৌরসভার তহবিল থেকে হাতিয়ে নেয়া হবে মোটা অংকের টাকা।

বুধবার (১৪ ফেব্রুয়ারী) বেলা আড়াইটায় সৈয়দপুর শহরের রেলওয়ে হাসপাতালের গার্ডপাড়া মোড়ে দেখা যায় পৌরসভার ট্রাকে করে মানহীন (গুড়িয়া ও সাল্টি) ইটের খোয়া ঢালা হচ্ছে রাস্তায়। পরে সেগুলোর উপর বালি দিয়ে রোলার চালিয়ে সমান করা হয়। এতে সব ধুলো ধুসর হওয়ায় পানি দিয়ে ভিজিয়ে দেয়া হয়। এভাবেই চলছে রাস্তার খানাখন্দ ভরাটের কাজ।

এসময় ওই পথে চলাচলকারী ইজিবাইক চালক শহরের কাজীপাড়া মহল্লার রিয়াজ উদ্দিনের ছেলে মেরাজ (৩২) বলেন, আমরা ভাঙা চোরা রাস্তায় কঠিন কষ্ট করে যানবাহন চালাচ্ছি। বছরের পর বছর এই দুর্ভোগ পোহালেও কেউ ফিরে তাকায়নি। কিন্তু ২ হাজার টাকা দিয়ে গাড়ীর লাইসেন্স নিতে হয়েছে। না নিলে আটক করে জরিমানা আদায় করেছে। বিনিময়ে সড়কে সামান্য সুবিধা পাইনি। অথচ আজ মন্ত্রী আসবে দেখে মেয়রের মহাব্বত উছলে পড়ছে। তাইতো নামকাওয়াস্তে গর্ত পূরণ করতেছে।

মিস্ত্রিপাড়ার রফিকুল ইসলামের ছেলে তারেক নামে এক পথচারী বলেন, যে নিম্নমানের ইটের খোয়া দেয়া হচ্ছে। তা সম্পূর্ণভাবে ব্যবহার অযোগ্য। রোলার দিয়ে চাপ দিতেই গুঁড়ো হয়ে ধুলায় পরিণত হচ্ছে। তার উপর বালি দিয়ে ঢেকে থুক পালিশ করা হচ্ছে। মন্ত্রী যেতে না যেতেই এগুলো উঠে চারপাশে ছড়িয়ে পড়বে। আর যদি বৃষ্টি হয়, তাহলে কাঁদা হয়ে যাবে। ফলে দুই দিন তকতকে ঝকঝকে দেখালেও কয়েকদিন পরই আরও বেশি ভোগান্তির কারণ হবে।

সাহেবপাড়ার আবিদ হোসেন সরকার নামে এক যুবক বলেন, এই মেয়র দিয়ে চলবেনা। কারণ ইনি জনগণের মেয়র নন। তাই মানুষের চরম দূর্ভোগে তার বিন্দু মাত্র ভ্রুক্ষেপ নাই। বরং নেতা আর মন্ত্রীদের তোষামোদি করে নিজের আখের গোছাতেই ব্যস্ত। এই যে লোক দেখানো কাজ করা হচ্ছে এটা শুধু মন্ত্রীর জন্য। আর এই কাজ দেখিয়ে খরচ বাবদ আমাদের ট্যাক্সের টাকা হাতিয়ে নিতে।

ঢেলাপীর এলাকার মৃত ইসরাইলের ছেলে রিকশা চালক মুরাদ বলেন, আমরা যেতে আসতে খানাখন্দে পড়ে আহত হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও মেয়র ৩ বছরে কিছুই করেননি। অসহনীয় অসুবিধা নিয়ে চলাচলে বাধ্য হচ্ছি। কিন্তু মন্ত্রী আসার খবরে রেল কারখানার ডিএসের এক ঠেলায় চলছে গর্ত ভরাটের কাজ। মেয়রের এধরনের খামখেয়ালি কাজের দরকার নাই। স্থায়ী মেরামত চাই।

সৈয়দপুর পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম বলেন, রেলপথ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী আগামী ১৭ ফেব্রুয়ারী রেলওয়ে কারখানা পরিদর্শনে আসছেন। তাই আমরা শহরের স্মৃতি অম্লান চত্বর থেকে কারখানা গেট হয়ে মিস্ত্রিপাড়া মোড় পর্যন্ত রাস্তার গর্তগুলো ভরাট করে উঁচুনিচু অবস্থা কিছুটা সহনীয় পর্যায়ে আনার জন্য কাজ করছি। এটা অস্থায়ী ভিত্তিতে মেরামত মাত্র। এতে কত টাকা বাজেট করা হয়েছে জানতে চাইলে তিনি নিরবতা পালন করে উত্তর প্রদানে বিরত থাকেন।

পৌর মেয়র রাফিকা আকতার জাহান বেবী মুঠোফোনে বলেন, মূলত: মন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে ডিএস’র অনুরোধে চলাচল যোগ্য করতে সামান্য মেরামত করা হচ্ছে। এতে কোন বরাদ্দ নেই। পৌর সভার বিশেষ ব্যবস্থাপনায় এটা করা হচ্ছে।

তবে একটি সূত্র মতে, সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্বাবধায়ক (ডিএসডাব্লিউ) সাদেকুর রহমান পৌর মেয়র কে স্পষ্ট ভাবে জানিয়েছেন যে, মন্ত্রী আসার আগে যদি রাস্তার এবড়োখেবড়ো অবস্থা ঠিক করা না হয়, তাহলে পৌর কর দেয়া বন্ধ করে দেয়া হবে। একারণে বাধ্য হয়ে তড়িঘড়ি করে এই কাজ করছে পৌর কর্তৃপক্ষ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম