1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনে যাত্রী ভোগান্তির শিকার দেখার কেউ নেই। - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০১:১০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ফাঁসিয়াখালী-মেদাকচ্ছপিয়া পিপলস ফোরাম (পিএফ) সাধারণ কমিটির সভা সম্পন্ন চৌদ্দগ্রামে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উদযাপন চৌদ্দগ্রামে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা ফের ৩দিন ক্লাস বর্জনের ঘোষণা কুবি শিক্ষক সমিতির নবীনগরে পৃথক মোবাইল কোর্ট অভিযানে সাড়ে ৪ লাখ টাকা জরিমানা দৈনিক আমাদের চট্টগ্রামের সম্পাদক মিজানুর রহমান চৌধুরী উপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মাঠে নেমেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা তিতাসে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা শেরপুরে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত ঘুমন্ত স্বামীর পুরুষাঙ্গ কেটে নিয়ে স্ত্রীর পলায়ন

লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনে যাত্রী ভোগান্তির শিকার দেখার কেউ নেই।

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪
  • ৩৩ বার

মোঃ আব্দুস সালাম খাঁন।।

Réplica AAA 1:1 de relojes Rolex, Audemars Piguet, Omega, Hublot, Patek Philippe, Richard Mille. reloj réplica suizos de alta calidad.

Best replica watches for you that have all features identical to genuine. Explore Audemars Piguet & More 1:1 Replica Watches.

Browse through our selection of discount rolex replica watches, all waterproof. Buy perfect discount Rolex replica watches on our site now.

লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনে যাএী ভোগান্তির শিকার দেখার কেউ নেই।
জানা গেছে,
লালমনি এক্সপ্রেস ঢাকা-টু -লালমনিরহাট আন্তঃনগর যাত্রীবাহী ট্রেন পরিষেবা চালু হয় ২০০৪ সালের ৭ই মার্চ । যাহার ট্রেন নম্বর ৭৫১/ ৭৫২।
বাংলাদেশের রেলপথের সর্বাধিক দূরত্বে ৪৪৫ কিলোমিটার চলাচলকারী এ ট্রেনটি যাত্রীতে সর্বসময় পরিপূর্ণ থাকার পরেও শুরু থেকেই অবহেলিত।

শুধুমাত্র শুক্রবার বন্ধ থাকলেও সপ্তাহে ৬ দিন চলাচলকারী ওই ট্রেনটিতে যেন অবহেলা আর অযত্নে ঘিরে রাখে ট্রেনের চারিপাশ নজর দিলেই দেখতে পাওয়া যাবে কিছু বগিতে জ্বলেছে না বাতি। ভেতরে বিদঘুঁটে অন্ধকার। পাঁখা ঘুরছে না, দুর্গন্ধে গুমোট ভাব, অপরিচ্ছন্ন-নোংরা পরিবেশ, আসনগুলোর অবস্থাও বেহাল। কোন কোন আসন ছিঁড়ে বেরিয়ে গেছে নারিকেলের ছোবড়া।
ট্রেনটির দৈন্যদশার এচিত্র লালমনিরহাট-টু-ঢাকা রুটে যেন প্রতিদিনের।

ট্রেনের সেবার মান এতো খারাপ যে, স্থানীয়দের কাছে ‘যাত্রী ভোগান্তি অপর নাম লালমনি এক্সপ্রেস’ নামের আন্তঃনগর পরিচিতি ওই ট্রেনটি।

ট্রেনের খাবারের মান নিয়ে যদি বলা যায় তাহলে তো ফুটপাতের রান্নাও অনেক প্রশংসনীয়, বয়ের সাথে যুদ্ধ লেগেই যায় খাবারের মান নিয়ে। সেখানে গরম টাটকা খাবারের বালাই নেই বাশি সময় উত্তির্ন বলতে কিছু নেই,ভিতরে যা পাওয়া যায় তা অতি নিন্মমানের। ট্রেনের ভিতর কোন রান্না করা হয় না। বাহিরের রান্না করা খাবার এক্সপ্রেসে চালানো হয়। বেশিভাগ সময় বেকারীর খাদ্যদ্রব্য যাত্রীদের কাধে চাপানো হয়। পুষ্ঠিকর এবং মানসম্মত খাবার মেডিকেল টেস্ট করতে হবে গুণ নিন্ময়ের জন্য, খাদ্য ২৪টি আইটেমের তালিকাভুক্ত করা হলেও তা শুধু মাত্র কাগজ কলমে সীমাবদ্ধ। যাত্রীদের খাবার চাহিদা ষ্টেশনে ষ্টেশনে নেমে মেটাতে হচ্ছে।

মালগাড়ী ট্রেনের মতো দরজা জানালার ও যাত্রী পথে জিনিস পত্র যত্রতত্র পড়ে থাকে হকার ও হিজরাদের আতুড় ঘরে পরিনত প্রতিটি কামরা।
সঠিক সময়ে পৌঁছতে পারে না বলে নিয়মিত
যাত্রীরা জানান, এ ট্রেন কখনও সময় মেনে চলে না। প্রয়োজনীয় নিরাপত্তারক্ষী না থাকায় ছিনতাইকারী, মলম পার্টি ও অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা সহজেই অপরাধ করে নিরাপদে চলে যায়- এমনটাই অভিযোগ যাত্রীদের। যাত্রীদের ভাষ্য, বিকল্প কোন ট্রেন না থাকায় নিরুপায় হয়েই তারা এই ট্রেনে ভ্রমণ করেন। ট্রেন কত ঘণ্টা বিলম্বে কয়টায় ছাড়বে, তা জানা যায় না। ফলে আগে গিয়ে স্টেশনে বসে থাকতে হয়।

শফিক নামে একজন যাত্রী জানান, আমাদের ক্ষেত্রে ভাড়া বেড়েছে সেবার মান ততোটাই কমেছে। শুধু তাই নয়, আমরাও তো টিকিট কেটেই ট্রেনে উঠি। কোনো কোন বগিতেই জ্বলেছে না বাতি। ভেতরে অপরিচ্ছন্ন-নোংরা পরিবেশ তো আছেই। আসনগুলোর অবস্থাও বেহাল। বেশির ভাগ আসনের কাপড় ময়লা, অবস্থাও খারাপ, আবার কোন কোন আসনে বসার উপযোগী নয়। ২টি ট্রেনই অপরিষ্কার, অপরিচ্ছন্ন। দুর্গন্ধও আছে। এছাড়াও কোন কোন বগির জানালা সহজে বন্ধ করা যায় না। ট্রেনের চেয়ারগুলোর অবস্থা অত্যন্ত নাজুক। এট্রেনের চেয়ার সহজে যাত্রীরা হেলানো যায় না। আবার যেটা হেলে আছে, সেটা সোজা হয় না। অর্ধেক রাস্তা যেতে না যেতেই পানি শেষ হয়। মলমূত্র ত্যাগ করতে হয় লাইনের ওপরই। দীর্ঘ এই বিশাল দূরত্বের পথ পাড়ি দিতে লালমনি এক্সপ্রেসের ভিতরে চাহিদা মত যাত্রীরা পাচ্ছেন না কোন খাবার। জানতে চাইলে মহব্বত নামে এক যাত্রী আক্ষেপ করে জানান, “হামার (আমরা) কতা (কথা) কাই শোনে বাহে। হামরা তো মফিজ। হামার টেরেনও (ট্রেন) মফিজ। একান নেট করলো, কি করলো না- তাতে কারও কিছ্ছু যাই-আইসে না।

লালমনিরহাট বিভাগীয় বাণিজ্যিক কর্মকর্তা (ডিটিও) আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, বর্তমান প্রেক্ষাপটে ট্রেনে যাত্রীসেবার মান বাড়াতে ডিভিশনাল ট্রাফিক বিভাগ কাজ করছে। তাছাড়াও প্রতিনিয়ত ট্রেনে যাত্রী সেবা, নিরাপত্তা জোরদার নানান পদক্ষেপ গ্রহনসহ বেশ তৎপর রয়েছে ডিভিশনাল ট্রাফিক বিভাগ এর পক্ষ থেকে। শীঘ্রই সমাধান হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম