1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
বাংলাদেশের দুর্যোগ ও জলবায়ু পরিবর্তন মুজিব উল্ল্যাহ্ তুষার - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৮:১৫ অপরাহ্ন

বাংলাদেশের দুর্যোগ ও জলবায়ু পরিবর্তন মুজিব উল্ল্যাহ্ তুষার

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৫ মে, ২০২৪
  • ২৩ বার

জলবায়ু পরিবর্তন এবং দুর্যোগ মোকাবিলা বর্তমান সময়ের আলোচিত বিষয়। কিন্তু এই বিষয়ে আমরা কতটুকু জানি? প্রাকৃতিক দুর্যোগের বিরুদ্ধে টিকে থাকার লড়াই আজকের নয়, চলছে আদিকাল থেকে। দুর্যোগ মোকাবিলায় মানুষ তাই নানা রকম পূর্ব প্রস্তুতি নিয়ে থাকে। অন্যদিকে এখনকার বড়ো বাস্তবতা জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব সহনীয় করার জন্য বিশ্বব্যাপী চলছে গবেষণা, নেওয়া হচ্ছে নানা পদক্ষেপ। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়টি গত দুই দশকে মূলধারায় এসেছে। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে পরিবেশেগত বৈশিষ্টের তারতম্য ঘটছে সেই সাথে বেড়েছে প্রাকৃতিক দুর্যোগের পুনরাবৃত্তির হার। সাগরপৃষ্ঠের উচ্চতা ক্রমে বাড়ছে। এর জেরে উপকূলীয় অঞ্চলে বাড়ছে লবনাক্ততা, আকস্মিক বন্যা ও জলোচ্ছ্বাসের আঘাত। বাংলাদেশের জন্য এটা বড়ো উদ্বেগের কারণ যে সাগরপৃষ্ঠের চেয়ে পাঁচ মিটারের কম উচ্চতায় রয়েছে দেশটির দুই-তৃতীয়াংশ এলাকা।

ভৌগোলিক অবস্থান ও বৈশিষ্ট্যের কারণে বাংলাদেশ অতিমাত্রায় দুর্যোগপ্রবণ। তাছাড়া, অধিক জনঘনত্ব ও ব্যাপক দারিদ্রের কারণে জনসংখ্যার বড় অংশ প্রান্তিক এলাকায় বসবাস করে। এদের দুর্যোগ বিপদাপন্নতা অনেক বেশি। ফলে, ঝড়, বন্যা বা নদীভাঙ্গনের মতো আপদের কারণে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয় ও জনগোষ্ঠী নিদারুণ দুর্দশায় ভোগে ।
জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে একদিকে আবহাওয়া জনিত আপদের পৌনঃপুনিকতা ও প্রচন্ডতা বৃদ্ধির মাধ্যমে ক্ষয়ক্ষতি বাড়ে। অন্যদিকে জলবায়ু পরিবর্তন সরাসরি জনগোষ্ঠীর জীবিকার বিপর্যয় ঘটায় ও তাদেরকে আরো বেশি বিপদাপন্ন করে তোলে । বাংলাদেশের জলবায়ু পরিবর্তনজনিত ঝুঁকি ক্রমেই স্পষ্ট হয়ে উঠছে- ঋতুচক্র ও আবহাওয়ায় অস্বাভাবিক হেরফের দেখা দিচ্ছে। এর কারণে, জনগোষ্ঠীর জীবিকার সুযোগ সংকুচিত ও জীবনযাত্রা অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে । এভাবে একদিকে জনগোষ্ঠীর বিপদাপন্নতা বাড়ছে; অন্যদিকে ঝড়, বন্যা ও নদীভাঙ্গনের মত আপদ আরো তীব্র হয়ে উঠছে। জলবায়ু পরিবর্তন ও দুর্যোগের ক্ষয়ক্ষতির কারণে পানি সরবরাহ, স্যানিটেশন ব্যবস্থা ও স্বাস্থ্যবিধিচর্চা হুমকির সম্মুখীন হচ্ছে ।
দুর্যোগের আঘাতে জীবন, সম্পদ ও পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হয়, সেবা ব্যবস্থা, জীবিকা ও সামাজিক কাজকর্মে গুরুতর বিঘ্ন ঘটে এবং আক্রান্ত জনগোষ্ঠী শারীরিক, মানসিক ও সামাজিকভাবে দুর্দশাগ্রস্ত হয়।

জনগোষ্ঠীর দুর্দশা ঃ
শারীরিক দুর্দশা- সম্পদ উপার্জন ও সেবাসমূহ না থাকার কারণে মৌলিক ও জরুরি চাহিদাগুলো মেটাতে পারেনা । ফলে ক্ষুধা, পিপাসা, অসুস্থতা ও অপুষ্টিতে কষ্ট পায় ।
মানসিক দুর্দশা- সংকট ও জীবনযাত্রায় আকস্মিক পরিবর্তনের কারণে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে । ফলে শোক, সংশয়, উদ্বেগ, ভীতি, হতাশা, বিষাদ ও বিষণ্নতায় ভোগে ।
সামাজিক দুর্দশা- সম্পদ, জীবিকা ও আশ্রয়হীনতার ফলে দৈন্যদশা, দেনাদায়, ত্রাণ নির্ভরতা, অপরের আশ্রয়ে বসবাস, নিরাপত্তাহীনতা ও মর্যাদাহীন কাজে অংশগ্রহণ স্বীকার করে নিতে হয়
প্রতি বছরই বাংলাদেশে কোন কোন অঞ্চলে দুর্যোগ ঘটে থাকে। সাম্প্রতিককালে চট্টগ্রামের জলবদ্ধতা
এবং সিডর ও আইলায় ভয়াবহ বিপর্যয় সৃষ্টি করেছিলো। এর ফলে এমন ভয়াবহ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিলো যে ক্ষতি পুষিয়ে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসার জন্য প্রচুর মানবিক সাহায্য ও পুনর্বাসন সহায়তা দরকার হয়েছে ।

পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন ব্যবস্থায় ক্ষতি :
ঘূর্ণিঝড় বা বন্যা পানি ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করে। ঘূর্ণিঝড় আর জলোচ্ছ্বাস একযোগে আসে। প্রবল বাতাস আর পানির তোড়ে ঘর ও অন্যান্য সবকিছুর সাথে পায়খানা ও নলকুপ ভেসে যায়। বন্যার সময় নিচু জায়গার নলকূপ ও পায়খানা ডুবে যায়। নলকূপের পানি দূষিত হয়ে পড়ে। পায়খানার কাঠামো সম্পূর্ণরূপে ভেঙ্গে পড়ে। এগুলো তখন আর ব্যবহার করা যায়না।
উঁচু জায়গায় যে নলকূপ বা পায়খানা টিকে থাকে সেগুলোও সবাই সহজে ব্যবহার করতে পারেনা । কারণ রাস্তাঘাট ডুবে যাওয়ায় চলাচল খুব কঠিন হয়ে পড়ে; অনেকক্ষেত্রেই প্রয়োজনের সময় তারা সেখানে যেতে পারেনা। এছাড়া, ঘূর্ণিঝড় বা বন্যার কারণে অনেকেই নিজের বাড়িতে থাকতে পারেনা । এরা বাঁধের উপর বা রাস্তার পাশে অথবা উঁচু কোন খাসজমিতে ছাপড়া বেঁধে বাস করে। এসব জায়গায় নলকূপ বা পায়খানা বসানোর সুযোগ থাকেনা। অনেকেরই তখন নলকূপ বা পায়খানা বসানোর টাকা থাকেনা ।
দুর্যোগ, পরিবেশের যে ক্ষতি করে তার ফলে পানির মূল উৎস স্থায়ীভাবে নষ্ট বা দূষিত হয়ে যেতে পারে। ২০০৯ সালে আইলার জলোচ্ছ্বাসে বাঁধ ভেঙ্গে সমুদ্রের যে পানি ঢুকেছিলো তাতে বিরাট এলাকায় ভূ-গর্ভস্থ পানিসহ সব পানি লবণাক্ত হয়ে গেছে। এই পানি এখন মানুষের ব্যবহারোপযোগী নয়। ঐ এলাকার জনগোষ্ঠীকে এখন দূরবর্তী এলাকা থেকে পানি আনতে হচ্ছে।
বায়ুমন্ডলের উপাদানগুলো সূর্যের তাপ ধরে রেখে পৃথিবীকে মানুষের বাসযোগ্য করে রাখে। পানিচক্র ও কার্বনচক্র পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে। বাষ্পীভবন, মেঘ ও বৃষ্টিপাতের মাধ্যমে পানিচক্র সম্পন্ন হয়। পরিবেশের সাথে প্রাণীজগৎ অক্সিজেন ও কার্বন বিনিময়ের মাধ্যমে পরিবেশ ভারসাম্য বজায় রাখে। কিন্তু মানুষ তার কার্যকলাপের মাধ্যমে বায়ুমন্ডলে কার্বন-ডাই-অক্সাইডের পরিমাণ বৃদ্ধি করছে । ফলে বায়ুমন্ডলের যে উপাদানগুলোর তাপ ধারণ করার ক্ষমতা বেশি (যেমন, কার্বন), সেগুলোর পরিমাণ দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে। এভাবে বায়ুমন্ডলের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে ও পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে ।

জলবায়ু পরিবর্তন
জলবায়ু হলো কোন এলাকা বা অঞ্চলের ২৫-৩০ বছরের আবহাওয়ার গড় অবস্থা। একটি নির্দিষ্ট স্থানের বায়ুমণ্ডলের উপাদানসমূহের স্বল্প কয়েকদিনের গড় বা ১ থেকে ৭ দিনের গড় ফলকে আবহাওয়া বলা হয় । বায়ুমন্ডলের উপাদান বলতে বায়ুর তাপ, বায়ুর চাপ, বায়ু প্রবাহের দিক ও গতিবেগ, বায়ুর আর্দ্রতা, মেঘের পরিমাণ ও মেঘের প্রকারভেদ ও বৃষ্টিপাত ইত্যাদিকে বোঝায়। আর কোন স্থানের বা অঞ্চলের দীর্ঘকালের (৩০ বছর বা তারও বেশি সময়ের) দৈনন্দিন আবহাওয়া পর্যালোচনা করে বায়ুমন্ডলের ভৌত উপাদানগুলোর যে সাধারণ অবস্থা দেখা যায়, তাকে ওই স

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম