1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
রাউজানে পরিত্যক্ত দু'টি হ্যাচারি- সুফল থেকে বঞ্চিত ডিম সংগ্রহকারীরা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ০৭:৫৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ঘূর্ণিঝড় রেমাল: ঝুঁকি এড়াতে প্রস্তুত বাঁশখালী উপজেলা প্রশাসন মাগুরায় নবনির্বাচিত শ্রীপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান হোমনায় পরিবারতন্ত্র ভাঙতে চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়ে মাঠে নেমেছি-সিদ্দিকুর রহমান আবুল হাটহাজারীতে বাসচাপায় প্রাণ গেলো দুইজনের : চালক আটক আনোয়ারায় আনারস মার্কায় নিজে এবং আত্মীয়দের ভোট দিতে ও ভোট কেন্দ্র পাহারা দিতে বললেন কাজী মোজাম্মেল চন্দনাইশে এসে পৌঁছেছে নির্বাচনী সরঞ্জাম শিক্ষকদের দাবিতে দায়সারা প্রতিবেদনের অভিযোগ; অনাস্থা কুবি শিক্ষক সমিতির চন্দনাইশে অনুমোদনহীন মাছ বাজারে প্রশাসনের অভিযান ৬ মাছ ব্যবসায়ীকে ৯০ হাজার টাকা জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের অভিযানে ৩ মাদক ব্যবসায়ি গ্রেফতার , মাদক উদ্ধার মিশ্র ফলের বাগান ও মৎস্য প্রকল্প করে সফল রাউজান পৌর কাউন্সিলর আজাদ  

রাউজানে পরিত্যক্ত দু’টি হ্যাচারি- সুফল থেকে বঞ্চিত ডিম সংগ্রহকারীরা

শাহাদাত হোসেন, রাউজান (চট্টগ্রাম)

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৩ মে, ২০২৪
  • ২৬ বার

দেশের অন্যতম মিঠাপানির প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদীতে প্রতিবছর চৈত্র থেকে আষাঢ় মাসের মধ্যে পূর্ণিমা বা অমাবস্যার তিথিতে বজ্রসহ বৃষ্টি, পাহাড়ি ঢল নামলে কার্পজাতীয় (রুই, কাতলা, মৃগেল, এবং কালিবাউশ) মা-মাছ ডিম ছাড়ে। ডিম সংগ্রহকারীরা নদী থেকে মা-মাছের ডিম সংগ্রহ করার পর মাটির তৈরি কূয়ায় বা হ্যাচারিতে রেণু ফোটায়। ডিম থেকে রেণু ফোটানোর জন্য নদীর দুই পাড়ে সরকারিভাবে ৬টি হ্যাচারি রয়েছে। একটিতেও নেই জনবল। রাউজানের অংশে তিনটি হ্যাচারি মধ্যে দুইটি হ্যাচারি অকেজো হয়ে পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে। কাগতিয়া হ্যাচারি ও পশ্চিম গহিরা হ্যাচারি পরিত্যক্ত হলেও সচল রয়েছে একমাত্র মোবারকখীল হ্যাচারি। গত পাঁচ বছর ধরে পরিত্যক্ত হ্যাচারীগুলো সচল করার কোন উদ্যোগ নেয়নি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। কাগতিয়া এলাকার ডিম সংগ্রহকারী মোহাম্মদ শফি জানান, বাপ-দাদার আমলে মাটির কুয়াতে ডিম রেণু ফোটানো হতো। নদী থেকে ডিম সংগ্রহ করে নিজেদের মাটির কুয়াতে রেণু ফোটাতেন ডিম সংগ্রহকারীরা। সেই সময় ছিল না সরকারিভাবে কোন হ্যাচারি। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কয়েক’শ কোটি টাকা ব্যয়ে মৎস্য অধিদপ্তর রাউজানের অংশে কাগতিয়া হ্যাচারি, পশ্চিম গহিরা হ্যাচারি ও মোবারকখীল হ্যাচারি নির্মাণ করেন। নির্মাণের এক বছরের মধ্যে দুইটি হ্যাচারি পরিচর্যার অভাবে অকেজো হয়ে পড়েছে। অপরিকল্পিত স্থান নির্বাচন করে হ্যাচারি নির্মাণ করায় হ্যাচারি গুলোর সুফল পাচ্ছে না ডিম সংগ্রহকারীরা। সরেজমিনে দেখা গেছে, কাগতিয়া হ্যাচারিটি এখন ভূতের বাড়ি। পশ্চিম গহিরা হ্যাচারিটি জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে হালদা গবেষক ও চট্টগ্রাম ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক কলেজের জীববিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, বর্তমানে হালদা নদীর দুপাশে মাত্র ৪ টি কার্যকর সরকারী হ্যাচারি রয়েছে। যার ৩ টি হাটহাজারী অংশে (মদুনাঘাট, শাহমাদারী ও মাছুয়াঘোনা হ্যাচারি) এবং অবশিষ্ট ১টি রাউজান অংশের মোবারকখীল হ্যাচারি। হালদা নদীর দুপাশে হ্যাচারীর সংখ্যা খুবই কম পাশাপাশি প্রতিটি হ্যাচারিতে কূয়ার সংখ্যা ও প্রয়োজনের তুলনায় অত্যন্ত কম। যার দরুন বিগত ২০২৩ সালে হালদা নদী থেকে সংগৃহীত কার্পজাতীয় মা মাছের অনেক ডিম হ্যাচারি সংকটের ফলে নষ্ট হয়ে যায়। তাই হালদা থেকে সংগৃহীত কার্পজাতীয় মা মাছের নিষিক্ত ডিমের শতভাগ হ্যাচিং (ডিম ফুঠানো) নিশ্চিতের জন্য হালদার দুপাড়ে হ্যাচারির সংখ্যা বৃদ্ধি, হ্যাচারিতে কূয়ার সংখ্যা বৃদ্ধি, এবং পরিত্যক্ত হ্যাচারিগুলোর মেরামত ও আধুনিকায়ন করা অত্যন্ত জরুরি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম