1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
সুবিধা বঞ্চিত জনগণের পাশে থেকেই ইসমত আরার মানবিক নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৬:৫১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের অভিযানে ৬ জন গ্রেফতার – মাদক উদ্ধার ! ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে প্রচার যুদ্ধ, চেয়ার দখলে দ্বিমুখী লড়াই ! Situs Slot Gacor Pragmatic Bet 200 Resmi mudah Menang dan Terpercaya ঈদগাঁওতে ৬ দিন পর নির্বাচনী সহিংসতায় কর্মী খুনের মামলা কয়েক শত মাছের ঘের প্লাবিত হয়ে একাকার রাঙ্গাবালীতে ঘূর্ণিঝড় রিমালের তান্ডবে ক্ষয়ক্ষতি ২০ গ্রাম প্লাবিত আইপিএল এ সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে ফাইনালে রীতিমতো বিধ্বস্ত করে শিরোপা জিতে নিল কলকাতা নাইট রাইডার্স তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে এনে সাজা দেওয়া হবে -প্রধানমন্ত্রী ইনাতগঞ্জ ডিগ্রী কলেজে অধ্যক্ষ ও শিক্ষকের অপসারণের দাবিতে শিক্ষার্থীদের অবস্থান কর্মসূচি পালন।। ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম ঠাকুরগাঁওয়ে শিশুর পুরুষাঙ্গে ইট বেঁধে ভিডিও, ৩ কিশোর আটক

সুবিধা বঞ্চিত জনগণের পাশে থেকেই ইসমত আরার মানবিক নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৬ মে, ২০২৪
  • ২৯ বার

বিশেষ প্রতিবেদক :

সমাজের দরিদ্র ও সুবিধা বঞ্চিতদের অধিকার আদায়ে সহায়তা করার মাধ্যমে তাদের পাশে থেকেই মানবতার কর্মী হিসেবে মানবিক নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হয়েছেন একজন ইসমত আরা। তিনি তার সংসার গোচানোর পাশাপাশি কেবল নারী ক্ষমতায়নকে উজ্জীবিত করতে জীবনের সর্বোচ্চ সময়টুকুও ব্যয় করে চলেছেন বিভিন্ন উন্নয়নমূলক মানবিক কার্যক্রমে।
জন্ম ও পরিচয় :
কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার অন্তর্গত দক্ষিণ মিঠাছড়ী ইউনিয়েনের কালা খোন্দকারপাড়া গ্রামে ১৯৮৭ সালে ১৫মে অত্যন্ত দরিদ্র পরিবারে জন্মগ্রহণ করা এক নারীর নাম ইসমত আরা। ২০০৩ সালে এক প্রবাসীর সাথে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পরে ২০০৩ সালে তিনি দক্ষিণ মিঠাছড়ী ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে এসএসসি সমমান দাখিল পাস করেন।
অপরাজিতার সাথে যুক্ত ও প্রশিক্ষণ : ২০১৬ সালের তিনি অপরাজিতা প্রকল্পে যুক্ত হন। অপরাজিতার সাথে যুক্ত হওয়ার ফলে তিনি প্রকল্প হতে মেন্টর কোচিং, নারীর ক্ষমতায়ন, নেতৃত্বে বিকাশ, যোগাযোগ ও দক্ষতা বিষয়ক, নেটওয়ার্কিং, এডভোকেসি, লিডারশিপ, ইউনিয়ন পরিষদের বিভিন্ন সরকারী বেসরকারি কমিটি বিষয়ক প্রশিক্ষণ, রাজনৈতিক দলের নেতা ও সরকারি সেবাপ্রদানকারীদের সাথে মতবিনিময় সভা, পরিকল্পনা ও বাজেট সংক্রান্ত, জেন্ডার সমতা বিষয়ক, সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় সভাসহ প্রকল্প থেকে বাস্তবায়িত সকল সভা ও প্রশিক্ষণে নিয়মিত অংশগ্রহণ করেন।
কার্যক্রম বাস্তবায়ন: তিনি অপরাজিতা প্রকল্প থেকে প্রশিক্ষণ নেওয়ার পর দরিদ্র ও সুবিধা বঞ্চিতদের কোথায় সেবা দেওয়া হয় তা ভালোভাবে জানতে পারেন। এবং কিভাবে তাদের অধিকার আদায় করা যায় সে ব্যাপারে স্পষ্ট ধারণা লাভ করেন। তাই তিনি প্রথমেই তার এলাকার দরিদ্র ও সুবিধা বঞ্চিতদের খুঁজে বের করেন। তারপর তারা কোন কোন সুবিধা থেকে বঞ্চিত তাদের সাথে সে ব্যাপারে কথা বলেন। তিনি দেখলেন যে তার এলাকায় ১৫ জন বিধবা নারী বিধবা ভাতা পাওয়ার যোগ্য অথচ তারা ভাতা থেকে বঞ্চিত। সাতজন প্রতিবন্ধী, ১৭ জন বয়স্ক ভাতা পাওয়ার যোগ্য, ৯জন মাতৃত্বকালীন ভাতা পাওয়ার যোগ্য, ৬ জন মেধাবী শিক্ষার্থী সরকারি উপবৃত্তি পাওয়ার যোগ্য। এইসব ব্যক্তিদের তাদের প্রাপ্ত ভাতা পাওয়ার জন্য স্থানীয় নির্বাচিত প্রতিনিধি পুরুষ মেম্বারের কাছে অনেকবার যান। অনেকবার যাওয়ার পরেও তারা এসব সুবিধাসমূহ থেকে বঞ্চিত হয়েছে। ইসমত আরা এইসব সুবিধা বঞ্চিতদের কথা প্রথমে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে অবগত করেন, পরে পর্যায়ক্রমে তিনিও উপজেলার সমাজসেবা কর্মকর্তার সাথে কথা বলেন। যার ফলে তার মাধ্যমে ৭জন নারীর বিধবা ভাতা, ৩জন প্রতিবন্ধী, ৯জন বয়স্ক ভাতা, পাঁচজন মাতৃত্বকালীন ভাতা, ৩জন মেধাবী শিক্ষা উপবৃত্তি পেতে সক্ষম হয়েছে। পাশাপাশি তিনি এলাকার নারীরা যাতে নিজেদের খরচ নিজেরা আয় করতে পারে, এবং আর্থিকভাবে সচ্ছল হয়; তার জন্য পর্যাক্রমে দুইশত পাঁচজন নারীকে সেলাই প্রশিক্ষণ প্রদান করেন। ইসমত আরার এসব আত্মনির্ভরশীল কার্যক্রম গ্রহণ করার ফলে এলাকার নারীরা অনেকেই আর্থিকভাবে স্বাবলম্ভী হয়েছে। অনেক নারী প্রতি মাসে বিভিন্ন প্রকারের জামা সেলাই কর্ম থেকে দুই থেকে তিন হাজার টাকা করে আয় করতে পারে। নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতার কারণে পরিবারে নারীর গ্রহণ যোগ্যতা বেড়েছে। এছাড়াও তিনি মুক্তি কক্সবাজার এনজিও এর ম্যালেরিয়া প্রোগ্রামের মাধ্যমে সঠিকভাবে কীটনাশকযুক্ত ২০ হাজার মশারি বিতরণ করেন। যার ফলে অনেকের ম্যালেরিয়া রোগ থেকে মুক্তি পেয়েছে। তিনি উঠান বৈঠকের মাধ্যমে জনগণকে ৯৯৯ ও ১০৯ কল করে সেবা নেওয়ার জন্য উৎসাহিত করে। বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে সচেতন করেন। তার সচেতনতার মাধ্যমে এলাকা থেকে দশটি বাল্যবিবাহ বন্ধ হয়। এদিকে এসব কার্যক্রমের ফলে জনগণের নিকট একজন দায়বদ্ধ সমাজ নেত্রী হিসেবে জনপ্রিয়তা লাভ করেন এবং জনগণের সম্মতিতে ২০২১ সালে দক্ষিণ মিঠাছড়ী ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত আসনে নির্বাচনও করেন। তার জনপ্রিয়তা থাকা স্বত্তেও কালো টাকার নিকট তিনি হেরে যান। তিনি হেরে গেলেও নারী হিসেবে দমে যাননি। এই হারকে তিনি জয়ী হিসেবে মনে করে সামনের দিকে আগাতে থাকেন। যার ফলশ্রুতিতে তিনি বর্তমানে দক্ষিণ মিঠাছড়ী যুব ফোরামের সভাপতি, গ্রাম সংরক্ষণ কমিটির সভাপতি, হিমছড়ী জাতীয় উদ্যানের কাউন্সিল সদস্য, হিমছড়ি সীফলস ফোরামের সদস্য, নিজের পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এসএমসি সদস্য, কমিউনিটি ক্লিনিক পারিচালনা কমিটির সদস্য, হিউম্যান রাইট সোসাইটির সদস্য, ধর্মীয় কমিটির উপদেষ্টা, ইউনিয়ন পরিষদের পরিবেশ সংরক্ষণ ও বৃক্ষরোপণ বিষয়ক স্থায়ী কমিটির সদস্য, রামু উপজেলা অপরাজিতা নেটওয়ার্কের নির্বাহী সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এরই ধারাবাহিকতায় আগামীতে ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত আসনে নির্বাচন করার মাধ্যমে একজন নারী হিসেবে সমাজে মানবিক নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠার প্রয়াস অব্যাহত থাকবে বলে তিনি দৃড় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম