1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ উপহার মা; সকল মায়েরা ভালো থাকুক - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৫:২৪ অপরাহ্ন

সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ উপহার মা; সকল মায়েরা ভালো থাকুক

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৪ মে, ২০২৪
  • ৮৮ বার

সৈয়দা তানজিনা আজিজ এশা
লেখক ও ব্যাংকার

কোথাও একটা দেখেছিলাম সৃষ্টির সব থেকে শ্রেষ্ঠ উপহার নাকি মা। পরবর্তীতে জীবন চলার পথে এর থেকে বড় সত্যি কোথাও আমি পাইনি। অন্তত আমার কাছে এটাই জগতের সব থেকে বড় একটি সত্যি। আমার শব্দ ভান্ডারে আসলে মা’কে সংজ্ঞায়িত করার মত কোন শব্দ আমার জানা নেই। মায়ের বিশালতা অনেক।

একবার এক বন্ধু জানালো, সে সিদ্ধান্ত নিয়েছে সে তার বাসা থেকে বেড়িয়ে যাবে। কারণ তার মা নাকি অন্য মায়েদের মত কেয়ারিং না।আমি শুধু একটা কথাই বললাম, বাসা থেকে বের হয়ে তুই হয়তো জগতের শ্রেষ্ঠ মানবী টিকেও পেয়ে যেতে পরিস। কিন্তু তার পক্ষেও সম্ভব হবে না মায়ের মত আপন হবার। এটাই মায়ের শক্তি।

কয়েক বছর আগের কথা। আমি আর আমার মা বাইরে বের হচ্ছিলাম। যেই কিনা তিনতলা থেকে নিচের তলা অবধি আসলাম। আমাদের বাড়ির নিচ তলায় সেই সময় একটি পরিবার থাকতো। সেই পরিবারে বছর পনেরোর সুন্দর একটি মেয়ে ছিল। যে কিনা বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী। মেয়েটিকে বাইরে থেকে দেখলে বোঝার উপায় নেই কিন্তু আমরা তাকে ছোটবেলা থেকে দেখছি। আমাদের বাসায় অনেক বছর বসবাসের কারণে আমরা জানি তার ব্যাপারে।

যা হোক, মেয়েটি প্রায় ই শুনতাম খুব চিৎকার চেচামেচি করতো। অসংলগ্ন আচরণ করতো আর আমরা এটাও জানি সেটা তার দোষ নয়। এটা তার সেই জন্মগত সমস্যার কারণেই হয়। সেদিনও যথারীতি মেয়েটি এই ধরনের আচরণ করছিল। ঘরের ভেতর থেকে ভাংচুরের শব্দ আসছিল একটু এগুতেই বাড়ির সিকিউরিটি গার্ড জানালো মেয়েটি কিছুক্ষণ আগে হারিয়ে গিয়েছিল। তার মা তাকে অনেক কষ্ট করে খুঁজে বের করে এনেছে। স্কুল এ পড়ে না, জীবনে দু একদিন স্কুলে গিয়েছিল। লোকের হাসাহাসির কারণে সেখান থেকেও ছিটকে পড়ে মেয়েটি বাসাতেই থাকে। আর বিশেষ স্কুলে তাকে পাঠানোর মত কেউ নেই পরিবারে।

ঘরের ভেতর থেকে অনেক শব্দ আসছিল। আর সেই সাথে আমাদের কানে আসলো মেয়েটির মা প্রার্থনা করছে এই বলে যেন, মেয়েটি তার মায়ের আগে যেন পৃথিবী থেকে বিদায় নেয়। তা না হলে এর দায়ভার কেউ নেবে না। তার মায়ের পরে কেউ তো এই মেয়েকে গ্রহণ করবে না অর্থাৎ সমাজে তার কোন জায়গা ই হবে না। কারণ সে অন্য মেয়েদের থেকে আলাদা।

এসব শুনে আমি আর আমার মা একে অপরের দিকে শুধু তাকিয়ে ছিলাম। আমরা আমাদের মত বেরিয়ে পড়লাম। পুরো রাস্তা একজন আরেকজনের দিকে তাকিয়ে রইলাম। কোন কথা বলতে পারিনি, আসলে কথা আসছিল না।কথা না বললেও নিজেদের স্ট্রাগলকে রিলেট করে নিয়ে যে আমরা দুজনই যে সেই সময় কথাগুলোর গভীরতা নিয়ে ভাবছিলাম। সেটা খুব বুঝতে পারছিলাম।

মনে পড়ে গেল এলাকার এক দৃষ্টিশক্তিহীন ভিক্ষুকের কথা। ছেলেটিকে যারা ভিক্ষে দিতে আসে তাদেরকে নাকি তার মা দোয়া করতে বলে। যেন ছেলেটি তার মায়ের আগে পৃথিবী থেকে চলে যায়।

পুরো রাস্তা জুড়ে আমি আর আমার মা ভাবতে ভাবতে গেলাম। জগতে যেইসব মানুষ সবার মত করে আসে না বা জন্মগত ত্রুটি নিয়ে জন্মায়। তাদের মায়েরা নিশ্চই জীবনে একবার হলেও এই কথাটি ভাবে, যেন তার আগে তার সন্তানটি যেন চলে যায়। যাতে করে তার এই অসহায় সন্তানকে এই বিশাল জগতে শূন্য হয়ে বেঁচে থাকতে না হয়। কারণ মায়ের মত করে তো তাদের কেউ মেনে নিতে পারে না। মুখে না বললেও আমি আর আমার মা একজন আরেকজনের চোখের দিকে তাকিয়েই বুঝে গিয়েছিলাম যে, আমরা এই মুহূর্তে জাস্ট এই কথাটাই ভাবছি।

আমি সবার মত করে পৃথিবীতে আসিনি। আমার আশেপাশের মানুষদের থেকে অনেক বেশি সীমাবদ্ধতা নিয়ে জন্মেছি। তারপরও আজকে মেইনস্ট্রিম এ দাঁড়িয়ে আছি শুধু আমার মায়ের জন্য। আমার খুব মনে পড়ে সেই দিনগুলোর কথা। যখন আমি স্কুল থেকে কান্না করতে করতে বাসায় ফেরত আসতাম, আর বলতাম আমি আর যাব না স্কুলে। কেউ আমাকে স্বাভাবিকভাবে নেয় না।তখন আমার মা বলতো অন্য বাচ্চাদের জন্ম দিতে অন্য মায়েদের যেমন কষ্ট হয়। আমারও তো তেমন ই হয়েছে। তুমি জীবনে না এগিয়ে গেলে আমি তো হেরে যাব। তার চোখে মুখে দেখতে পেতাম আমাকে প্রশ্ন ছুঁড়ছে যে তাহলে কি আমি হেরে যাব?

তখন থেকে আমার মনে হতো লোকে যাই বলুক, আমাকে আমার দায়িত্ব পালন করতে হবে। আমি যে মানুষ সেটা তখন উপলব্ধি করতাম। নিজের অস্তিত্ব টের পেতে শুরু করলাম একটু একটু করে। শুরু করলাম অন্যদের সাথে পথচলা। না পারলেও পারার ভান করে এগিয়ে যেতে চেষ্টা করতাম সবার সাথে। এমনকি এখনো করি।খেলতে যেতে পারতাম না অন্যদের সাথে, সমবয়সীরা কেউ আমাকে খেলতে নিতে চাইতো না তেমন একটা। তখন বারান্দায় দাঁড়িয়ে সেই সাত আট বছর বয়েসে জীবনমুখী গান শুনতাম। আর সেই সাথে নিজেও গাইতাম। আমার মা সিদ্ধান্ত নিল আমাকে গান শেখাবে, রক্ষনশীল পরিবার যেখানে গান বাজনাকে ব্যাপক ভাবে না বলা হয়। সেখান থেকে এই সিদ্ধান্ত নেয়াতে আমি আর একটু নড়ে চড়ে বসলাম। আমাকে আমার মা সেই বয়েসে একটি হারমোনিয়াম কিনে দিয়ে গানের একাডেমিতে ভর্তি করে দিল। শুরু হলো নতুন এক পথচলার।

একটু একটু করে বুঝতে পারলাম নিজের গুরুত্ব। সময়ের সাথে সাথে আরও বুঝলাম মানুষ যেভাবেই পৃথিবীতে আসুক না কেন। আপন জীবন পূর্ণ করার দায়িত্ব হয়তো তার নিজের ই। আর এই ব্যাপারটা আমার ভেতর আনতে সারাজীবন শ্রম দিয়ে গেছে আমার মা। এমন কি এখনো দিয়ে যাচ্ছে।

দেশের অন্যতম সেরা একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়শোনা করে বর্তমানে আমি দেশের শীর্ষস্থানীয় একটি বহুজাতিক ব্যাংক এ কাজও করছি। আর এইসব হয়তো অন্য সবার জন্য খুব স্বাভাবিক কিংবা আমার মত হাজার হাজার ব্যাংকার দেশের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। কিন্তু এতো সীমাবদ্ধতার ভেতর থেকে এই সমাজে এই সাধারণ একটি জায়গা করে নিতেই আমার আর আমার মা’কে পাড়ি দিতে হয়েছে বিশাল এক সমুদ্র। পরিবারের বা সমাজের বোঝা হবে না আমার সন্তান এটাই যেন ছিল আমার মায়ের মূলনীতি। এই স্বপ্ন ই সবসময় আমি দেখি আমার মায়ের চোখে।

আমি যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হব ততোদিনে আমার আব্বু বেঁচে নেই।আমার মা সিদ্ধান্ত নিল আমাকে ভালো বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াতেই হবে। যাতে করে আমার কঠিন জগৎটা একটু সহজ হয়। কোথাও গিয়ে যেন দাঁড়াতে পারি। তখন বিভিন্ন আত্মীয় পরিজনেরা ফ্রি তে এডভাইস দিয়ে গেছে। আর তাদের মূল কথাটি ই ছিল এমন সন্তানকে নিয়ে এতো ভেবে, এতো টাকা পয়সা খরচ করার কি আছে। এ আর কি করতে পারবে। সরাসরি না বললেও তাদের বডি ল্যাংগুয়েজ টা এমনি ছিল। কিন্তু আমার মা বিশ্বাস করেছিল যে, আমি পারব আর তাই আমার স্কুল টিচার মা তার একার দায়িত্বে আমাকে দেশের অন্যতম একটি ব্যায়বহুল বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করতে পাঠিয়েছে। নিজেদের ভবিষ্যত ভেবে যা কিনা বাংলাদেশের পরিবারগুলোতে বাবা মা দুজন মিলেও করতে পারে না। তাদের একটি তথাকথিত সুস্থ সন্তানের জন্যও।

আমার মা অত্যন্ত সহজ সরল একজন মানুষ। জগতের জটিল ব্যাপার গুলো ঠিক বুঝে উঠতে পারে না। আর পরিচিতজনেরা মোটামুটি জানে তার এই সরলতার কথা। আমি খুব অবাক হই। একদিকে আব্বুকে হারানোর শোক অন্যদিকে আমার এই সীমাবদ্ধতার বোঝা। আর সেই সাথে আত্মীয়স্বজনদের আমাকে নিয়ে নেতিবাচক পরামর্শ। সব মিলিয়ে কিভাবে চ্যালেঞ্জ নিল আমার এই সহজ সরল মা। আর এতটা পথ কীভাবে পাড়ি দিল, আমি জানি না।

ছোট এই জীবনে বড়, ছোট যত সমস্যায় পড়ি। তখন ই মায়ের মুখটি সামনে চলে আসে। আর চিন্তা করি উপরওয়ালা যেন জগতের সবশক্তি এই একটি মানুষের ভেতর দিয়ে দিয়েছে অন্তত আমার জন্য।

ক’দিন আগে চলে গেল বিশ্ব মা দিবস। এই দিবসে সেইসব বিশেষ সন্তানদের মায়েদের আহবান করি। আপনার বিশেষ সন্তানটিকে বিশ্বাস করতে শিখুন। তাকে অন্যরকম থেকে অনন্য করে তুলতে আপনিই পারেন। আপনি ই পারেন তাকে বিশেষ থেকে বিশেষভাবে সক্ষম করে গড়ে তুলতে। কারণ আপনি মা। যার গভীরতা মাপা যায় না। মা চ্যালেঞ্জ নিলে সমাজের সাধ্য নেই, যে তার চ্যালেঞ্জিং বাচ্চাটিকে হারিয়ে দেয়ার। অবজ্ঞা থাকতে পারে, অবহেলা থাকতে পারে। কিন্তু তাতে তো কিছু যায় আসে না। দিনশেষে মানুষের মত মানুষ হয়ে, অন্যের বোঝা না হয়ে, বেঁচে থাকাটাই বড় কথা। জগতের সকল মা সহ আমার মা’কে জানাই মা দিবসের শুভেচ্ছা। পৃথিবীর সকল মায়েরা ভালো থাকুক।

 

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম