1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
বারকা এগ্রো ফার্মে ১০ লাখ টাকা হাঁকানো হচ্ছে কালো বাদশার দাম - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৪:২১ পূর্বাহ্ন

বারকা এগ্রো ফার্মে ১০ লাখ টাকা হাঁকানো হচ্ছে কালো বাদশার দাম

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১০ জুন, ২০২৪
  • ৪০ বার

বারকা এগ্রো ফার্মে ১০ লাখ টাকা হাঁকানো হচ্ছে কালো বাদশার দাম

শাহাদাত হোসেন, রাউজান (চট্টগ্রাম)  প্রতিনিধি:

কোরবানী ঈদকে সামনে রেখে রাউজানে প্রতিবছরের মত  বড় বড় খামারগুলো তৈরি করে আসছে ছোট-বড় আকারের নানান জাতের গরু। ধূম পড়েছে  পশু বেচা-কেনার। এবার রাউজানের নামকরা বারকা এগ্রো ফার্মে দেশিপদ্ধতিতে লালন পালন করা পশু ১০ লাখ টাকা হাঁকানো হচ্ছে কালো বাদশার দাম।তার ওজন ১হাজার ২০০ কেজি। অত্যন্ত আদর যত্নে করে লালন-পালন করা বাদশাকে এবারের পশুর হাটে চড়া দামে বিক্রির স্বপ্ন দেখছেন খামারের মালিক সুমন দে। এই উপজেলার ডাবুয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ হিংগলা শান্তি নগর গ্রামে খামারটির অবস্থান। চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়কের অপরাজিতা সেবাশ্রম সংলগ্ন দক্ষিণ হিংগলা সড়ক দিয়ে এক কিলেমিটার পথ পাড়ি দিলে মিলবে বারাকা এগ্রো ফার্মটি। যাতায়ত সুবিধা ভালো হওয়ায় ক্রেতাদের জন্য এটি পছন্দনীয় খামা হয়ে উঠেছে। এ ফার্মে সম্পূর্ণ প্রকৃতিক উপায়ে পশুদের লালন পালন করা হয়েছে। তাই কোরবানীর পশুর জন্য খামারটির প্রতি মানুষের আকর্যন সর্বাধিক। ‘বারাকা এগ্রো ফার্মের মালিক ক্রীড়া সংগঠক সৌখিন খামার উদ্যেক্তা সুমন দে বলেন, রাউজানের সংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীর অনুপ্রেরণায় এগ্রো ফার্মটি গড়ে তুলি। গত দুই বছর কোরবানী ঈদে দুই শাতাধিক গরু বিক্রি করা হয়েছে। এই বছর উন্নত জাতের বাচুর সংগ্রহ করে সম্পূর্ণ দেশীয় পদ্ধতিতে প্রাকৃতিক খাবার দিয়ে নিজের গরুগুলোকে লালন পালন করা হয়েছে। তিনি বলেন, ফিজিয়ান, শাহিওয়াল, সিদ্ধি, হারিয়ানা, ব্রাহম্যান, হলস্টিন ও দেশিয় জাতের উন্নত গরু খামারে প্রস্তুত করা হয়েছে। এই দেড় লাখ টাকা থেকে ১০ লাখ টাকা দামের গরু রয়েছে প্রায় দেড় শতাধিক। ছোট ও মাঝারি সাইজের গরুর পাশাপাশি রয়েছে বড় জাতের গরুর বিশাল সমাহার। খামারে সবচেয়ে বড় একটি ষাঁড় গরু রয়েছে। তার নাম রাখা হয়েছে ‘বাদশা’। প্রায় ১৮/২০ মন ওজনের গরুটি বিক্রি করা হবে একদামে ১০ লাখা টাকায়। মাঝারি সাইজের আরো ষাঁড় রয়েছে ৮/৫ লাখ টাকা দামের ১৫/ ২০টি। ৩ থেকে দেড় লাখ টাকা দামের ষাঁড় রয়েছে প্রায় ৩০টি। খামারের দায়িত্বে থাকা মোহাম্মদ জুয়েল নামে এক ব্যক্তি জানান, ন্যাচারের খাওয়া ও প্রকৃতিক পরিবেশে কোরবানীর জন্য গরু গুলো প্রস্তুত করা হয়েছে। গো-খাদ্যে কোন প্রকার মেডিসিন ব্যবহার করা হয়নি। পুষ্টিকর খাদ্য ও ন্যাচারেল ঘাঁস খাওয়ানো হয়েছে পশু গুলোকে। এলাকার লোকজনের কাছে আমাদের ফার্মটি জনপ্রিয় ও আস্থার ঠিকানা। তাই আমাদের গরুর চাহিদা সবচেয়ে বেশি। ইতিমধ্যে অর্ধশত গরু বিক্রি হয়ে গেছে।রাউজান উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিসার ডা: জয়িতা বসু জানান, এবছর রাউজান উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন ও পৌর এলাকায় ৪শ ৩৩টি ডেইরী ফার্মে কোরবানীতে বিক্রি জন্য ৪১ হাজার ২৯ টি পশু প্রস্তুত করেছেন । তার মধ্যে ২৮ হাজার ৪শত ৬০টি গরু, ১হাজার ৫৭টি মহিষ, ছাগল ও ভেড়া রয়েছে ১১ হাজার ৫শত ১০টি। ডেইরি ফার্ম ছাড়াও রাউজানের প্রতিটি এলাকায় লোকজন কোরবানীর মৌসুমে বিক্রি করতে গরু মহিষ লালন পালন করে মজুদ করে রেখেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম