1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
অস্ত্রোপচারে চিকিৎসকের সহযোগী ঝাড়ুদার! - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১০:২২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:

অস্ত্রোপচারে চিকিৎসকের সহযোগী ঝাড়ুদার!

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৫ নভেম্বর, ২০১৯
  • ৭৫ বার

মাগুরা থেকে মোঃ সাইফুল্লাহ : মাগুরার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে গত ২৪ নভেম্বর রোববার সকাল ১০ টার দিকের ঘটনা- অপারেশন থিয়েটারে আনোয়ারা নামে এক বৃদ্ধার শরীরে অস্ত্রোপচার করছিলেন সার্জন (শল্যচিকিৎসক)। তাকে সহযোগিতা করছেন এপ্রোন (সজ্জাবরণী) পরা তার দুই সহযোগী। তার পেছনে দাঁড়িয়ে রয়েছেন নার্স।

আপাততঃ দৃষ্টিতে সব ঠিকঠাক মনে হলেও দুই সহযোগীর পরিচয় যখন পাওয়া গেল, তখন চোখ তো একেবারেই ছানাবড়া। তারা যে ওই হাসপাতালের ঝাড়ুদার! ওই অস্ত্রোপচারে সময় লাগে দুই ঘণ্টারও বেশি! অস্ত্রোপচার করছিলেন ডা. শফিউর রহমান।

তার সহযোগী ছিলেন সুবাস চন্দ্র বিশ্বাস ও আবু বক্কার। হাসপাতালে তারা নিয়োগ পেয়েছেন এমএলএসএস কাম ওয়ার্ডবয় হিসেবে। তবে পরিচ্ছন্নতাকর্মীর কাজও করেন তারা মাঝে মাঝে।

বিভিন্ন সুত্রে জানা যায়, মাগুরা সদরের এ হাসপাতালে তিনজন সার্জন অস্ত্রোপচার করে থাকেন। সপ্তাহে দু’দিন করে (মোট ছয় দিন) অস্ত্রোপচার করে থাকেন তারা। এখানে দিনে চার-পাঁচটি বা তারও বেশি অস্ত্রোপচার হয়ে থাকে প্রতিনিয়তে।

এ সময়ে তাদের সহযোগী হিসেবে অন্তত দু’জন করে চিকিৎসক বা সহকারী সার্জন থাকার কথা। কিন্তু জনবল সংকটের কারণে বাধ্য হয়েই ওয়ার্ডবয়, পিয়ন, ঝাড়ু–দারকে নিয়েই অস্ত্রোপচারের মত জটিলতম কাজটি করে থাকেন সার্জন।

অস্ত্রোপচারের জন্য অপরিহার্য একজন এনেসথেসিস্ট (অজ্ঞানবিদ), সূত্রমতে, হাসপাতালটিতে ৬ মাস এ পদটি শূন্য রয়েছে। জরুরি ক্ষেত্রে তাই জরুরি বিভাগের মেডিকেল অফিসার অরুণ কান্তি ঘোষকে এনেসথেসিস্টের কাজ করতে হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডা. শফিউর রহমান আমাদের প্রতিনিধি কে জানান , অপারেশনের সময় একজন সার্জনের সহযোগিতার জন্য অন্তত দু’জন সহযোগী ডাক্তার থাকা প্রয়োজন। কিন্তু– চিকিৎসক সংকট থাকায় ডাক্তারের পরিবর্তে পিয়ন-সুইপারদের দিয়েই কাজ করতে হচ্ছে। তিনি বলেন, এ কারণে একটি সাধারণ অপারেশনেও অতিরিক্ত সময় লেগে যাচ্ছে। যথাযথ সেবাও রোগীদের দেয়া সম্ভব হচ্ছে না।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার বিকাশ কুমার সিকদার জানান হাসপাতালটির নামই শুধু ২৫০ শয্যার হাসপাতাল। পুরনো ১০০ শয্যা হাসপাতালের জন্য জনবল কাঠামো অনুযায়ী যে পরিমাণ চিকিৎসক-কর্মচারী প্রয়োজন ছিল সেটিও এখন পর্যন্ত নেই।

তিনি আরো জানান– ১০০ শয্যা হাসপাতালের জন্য চিকিৎসক-কর্মচারী মিলে এখানে মঞ্জুরি করা পদ ২০৩ জনের। এর মধ্যে চিকিৎসকের পদ ২৯টি। বর্তমানে চিকিৎসক রয়েছেন ১৯ জন। সবমিলে জনবল রয়েছে ১৬৬ জন।

আবাসিক মেডিকেল অফিসার বিকাশ কুমার আমাদের প্রতিনিধিকে আরো জানান, এ হাসপাতালে ইনডোর-আউডডোর মিলিয়ে প্রতিদিন প্রায় ১ হাজার রোগীকে সেবা দিতে হয়, এর মধ্যে গড়ে তিনশ’র বেশি রোগী ভর্তি থাকেন। সূত্রমতে, ২০১৭ সালের ২১ মার্চ হাসপাতালটিকে ২৫০ শয্যায় রূপান্তর করা হয়।

কিন্তু এখনও ২৫০ শয্যা হাসপাতালের অর্গানোগ্রাম (জনবল কাঠামো) তৈরি হয়নি। রোববার হাসপাতালের বহির্বিভাগে ১৫৬ জন রোগী সেবা নেন। এদিন নতুন রোগী ভর্তি করা হয় ৯১ জন।

হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের স্বজনেরা জানান, সরকারি হাসপাতালে সাধারণত গরিব রোগীরা সেবা নিতে আসেন। কিন্তু সেখানে সঠিক চিকিৎসা না পাওয়া বা দীর্ঘসূত্রতা দুঃখজনক। অস্ত্রোপচারের দেরি বা ঠিকভাবে অস্ত্রোপচার না হলে যে কোনো মুহূর্তে রোগীর প্রাণহানি ঘটতে পারে।

বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে খেয়াল করা উচিত। জানতে চাইলে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক স্বপন কুমার কুণ্ডু বলেন, প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ ও পদায়নের বিষয়ে একাধিকবার সংশ্লিষ্ট বিভাগে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে।

সর্বশেষ গত অক্টোবর মাসে ও এ সংক্রান্ত চিঠি পাঠানো হয়। পদায়ন হলে আশা করি বেশীর ভাগ সমস্যাই কেটে যাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম