1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ওসির শয়ন কক্ষে ইয়াবা পেলেন বাবুর্চি, ওসি বদলী - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১০:০১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:

ওসির শয়ন কক্ষে ইয়াবা পেলেন বাবুর্চি, ওসি বদলী

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৮ নভেম্বর, ২০১৯
  • ১৭৮ বার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি |

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সীমান্তবর্তী উপজেলা বিজয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ ফয়জুল আজিম নোমানকে বদলী করা হয়েছে। বুধবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এই বদলির আদেশ এসে পৌঁছায়।

ওই আদেশে তাকে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নে (এপিবিএন) বদলি করা হয়েছে।

একটি সূত্র জানায়, গত ২৬ নভেম্বর এই বদলির আদেশে স্বাক্ষর করেন হেডকোয়ার্টারে অতিরিক্ত মহাপুলিশ পরিদর্শক ড. মো. মঈনুর রহমান চৌধুরী। এ আদেশে বলা হয়েছে, আগামী ৫ ডিসেম্বরে মধ্যে ছাড়পত্র গ্রহণ করে নতুন কর্মস্থলে যোগদান করতে হবে ওসি ফয়জুল আজিম নোমানকে। নতুবা ৬ ডিসেম্বর থেকে তার তাৎক্ষণিক বদলি বলে গণ্য হবে।

কয়েকদিন আগে বিজয়নগর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফয়জুল আজিম নোমানের থাকার কক্ষ থেকে বিপুল পরিমান ইয়াবা টেবলেট পাওয়া যায়। নোমানের শয়ন কক্ষে সেগুলো পেয়ে থানার বাবুর্চি জাহিদ ভূইঁয়া (৩০) নিজের বাসায় নিয়ে যায়। এরপর ওসি নোমানের নির্দেশে গত ২২ নভেম্বর বাবুর্চি জাহিদকে আটক করে নিয়ে আসে বিজয়নগর থানা পুলিশ।

আটকের পর প্রায় ৫ দিন থানা হাজতে আটক রাখা বাবুর্চি জাহিদকে। পরে মঙ্গলবার তাকে একটি মাদক মামলায় জেল হাজতে পাঠানো হয়। এর আগে বাবুর্চি জাহিদ জানায় ইয়াবাগুলো ওসি মোহাম্মদ ফয়জুল আজিম নোমানের শয়ন কক্ষের বিছানার নিচে পেয়ে তিনি নিয়ে যান।

বিজয়নগর থানা উপ-পরির্দশক (এসআই) হাসান খলিল উল্লাহ বাদী হয়ে বাবুর্চি জাহিদ ভূইঁয়া বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দেন। এই মামলার এজাহারে ৩১০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করার কথা উল্লেখ করা হয়। ঘটনাস্থল দেখানো হয় জাহিদের শ্বশুর খাদুরাইল গ্রামের মর্তুজ আলীর বাড়িতে।

বুধবার আটক বাবুর্চি জাহিদ ভূইঁয়ার স্ত্রী আবেদা বেগম সাংবাদিকদের জানান, আমি ও আমার স্বামী দু’জন মিলে থানায় এক সাথে কাজ করতাম। ওসি স্যারের রুম পরিস্কার করার সময় বিছানার নিচে থেকে ঔষধ মনে করে এই গুলো বাড়িতে নিয়ে গিয়েছিলাম। পরে জানতে পারি এগুলো ইয়াবা ট্যাবলেট। জানতে পেরে ওসি সাহেব রেগে আমার স্বামীকে এখন ফাঁসিয়ে দিয়েছেন।

তবে এই ব্যাপারে বিজয়নগর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফয়জুল আজিম নোমান সাংবাদিকদের জানান, তার কক্ষটি পরিস্কারের পর ময়লাস্তুপ করে রাখার স্থানে ইয়াবা ট্যাবলেটগুলো পেয়ে বাবুর্চি জাহিদ তার বাড়িতে নিয়ে যায়। এরপর পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে।

এসময় ওসি নোমান বলেন, মূলত জাহিদ বিক্রি করার জন্য ট্যাবলেটগুলো সেখানে রেখে ছিল। এর আগে থানা থেকে তিনি মোবাইলও চুরি করে নিয়ে গেছে। ইয়াবা ট্যাবলেট ও মোবাইলসহ তাকে আটক করা হয়। তবে তার কক্ষে কেন ইয়াবা, এই বিষয়ে কোনো সঠিক উত্তর দিতে পারেননি ওসি।

বিষয়টি জানতে পেরে জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ২৩ নভেম্বর রাতে থানায় গিয়ে এই ঘটনার তদন্ত করেন। বিষয়টি নিয়ে তারাও বিব্রত অবস্থায় পড়েন।

তবে একাধিক পুলিশ কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করা হলেও তারা এই বিষয়ে বক্তব্য প্রদান করতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, ফয়জুল আজিম নোমান বিজয়নগর থানায় পরির্দশক (তদন্ত) হিসেবে যোগ দেন ২০১৮ সালের ৬ জুন। এরপর একই বছরের ২০ ডিসেম্বর অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হিসাবে দায়িত্ব প্রাপ্ত হন।

ঘটনাটি টক অব দ্য টাউনে পরিণত হয়েছে। সবার মুখে মুখে এখন ওসির কক্ষে ইয়াবা পাওয়ার ঘটনা।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম