1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
যুদ্ধজয়ের আনন্দ থেকে প্রথম দিনই বঞ্চিত ছিল কিশোরগঞ্জ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ০৮:৪২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
Mengenal Lebih Dekat Slot Fortune Dragon তীব্র গরম উপেক্ষা করে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন প্রার্থীরা “যোগ্য ব্যক্তিদের বেছে নিন”পছন্দমত প্রতিকে ভোট দিন! ঠাকুরগাঁওয়ের গড়েয়ায় জিংক সমৃদ্ধ চালের উপকারিতা বিষয়ে সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান । ঠাকুরগাঁওয়ে টেকসই নদী ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত মতবিনিময় সভা । সাংবাদিকদের সাথে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী কাজী মোজাম্মেল হক এর মতবিনিময় চন্দনাইশে তুচ্ছ ঘটনায় সংঘর্ষে মহিলা ও শিশুসহ আহত-৫ চন্দনাইশ হাশিমপুরে চেয়ারম্যান প্রার্থী আবু আহমেদ জুনুর গণ-সংযোগ ৭২ লক্ষ টাকা ব্যয়ে সেতু নির্মাণ কার স্বার্থে চন্দনাইশ বরুমতি খালের উপর ৩ সেতু আছে সংযোগ সড়ক নেই ৬৫ জন নারী কর্মী পেল ৬৭ লক্ষ ২০ হাজার টাকা  চন্দনাইশে এলজিইডি’র নারী কর্মীদের সঞ্চয় ও সনদ বিতরণ  পশ্চিম সুলতানপুর স্কুলে সর্বজনীন পেনশন স্কিম উদ্বুদ্ধকরণ সভা অনুষ্ঠিত

যুদ্ধজয়ের আনন্দ থেকে প্রথম দিনই বঞ্চিত ছিল কিশোরগঞ্জ

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ১৫৪ বার

তন্ময় আলমগীর, কিশোরগঞ্জ:
১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর সারাদেশ বিজয়ের আনন্দে মুখরিত হলেও অবরুদ্ধ ছিল কিশোরগঞ্জ। বিজয়ের দিনেও কিশোরগঞ্জ শহরে উড়েছে পাকিস্তানি পতাকা। ৪ঠা ডিসেম্বর পাক হানাদার বাহিনী কিশোরগঞ্জ ছেড়ে যাওয়ার পরও কিশোরগঞ্জে সুদৃঢ় অবস্থান ধরে রাখে তাদের দোসর আলবদর, আল শামস, আল মুজাহিদ ও রাজাকার বাহিনী। ফলে বিজয় দিবসের দিনও কিশোরগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে পাকবাহিনীর দোসরদের লড়াই হয়েছে, রক্ত ঝরেছে।

সারা দেশ মুক্ত হওয়ার সংবাদে উজ্জীবিত মুক্তিযোদ্ধারা কিশোরগঞ্জকে শত্রুমুক্ত করতে ১৬ ডিসেম্বর বিকেল থেকেই শহরের চারদিকে সশস্ত্র অবস্থান নেন। রাতে রাজাকার বাহিনীকে হটাতে মুক্তিবাহিনী একযোগে অভিযান চালানোর সিদ্ধান্ত নিলে ব্যাপক প্রাণনাশের আশঙ্কায় এ সিদ্ধান্ত পাল্টানো হয়। পরদিন ১৭ ডিসেম্বর সকালে ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’ শ্লোগান দিতে দিতে প্রথমে কোম্পানী কমান্ডার কবীর উদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে মুক্তিবাহিনী পূর্ব দিক দিয়ে শহরে প্রবেশ করে। পাশাপাশি অন্যান্য দিক থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের বেশ কয়েকটি দল এবং পরে ক্যাপ্টেন চৌহানের নেতৃত্বে মিত্রবাহিনী শহরে প্রবেশ করে।

মুক্তিবাহিনী, মিত্রবাহিনী আর জনতার উল্লাসের প্রতিধ্বনি ছড়িয়ে পড়ে কিশোরগঞ্জের মুক্ত আকাশে। তারা ডাকবাংলোয় (রেলস্টেশন সংলগ্ন) পাকিস্তানি পতাকা পুড়িয়ে মুক্ত কিশোরগঞ্জে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উড়ান। হানাদার বাহিনীর দোসররা আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয়। ১৯৭১ সালের ১৯ এপ্রিল পাকবাহিনী কিশোরগঞ্জে আগমন করে। অক্টোবর মাস থেকে মুক্তিযোদ্ধারা প্রচন্ড গেরিলা আক্রমণ শুরু করেন। ৪ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ টেলিযোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

১৩ অক্টোবর কিশোরগঞ্জ শহরের অদূরে যশোদলের বড়ইতলায় পাক বাহিনী স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় নৃশংসতম গণহত্যা চালায়। পাকবাহিনী উন্মত্ত পশুর হিংস্রতা নিয়ে জড়ো করা চিকনিরচর, দামপাড়া, শেওড়া, কালিকাবাড়ী, কড়িয়াল, তিলকনাথপুর, গোবিন্দপুর ও ভুবিরচর গ্রামের ৩৬৫ জন নিরস্ত্র ও নিরপরাধ গ্রামবাসীকে হত্যা করে। এ ঘটনায় আহত হন আরো অন্তত দেড় শতাধিক গ্রামবাসী। এসময় পুড়িয়ে দেওয়া হয় আশপাশের শত শত বাড়িঘর, নিগৃহীত হয় নারীরা।

২১ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা রাজাকারদের হটিয়ে বাজিতপুর থানা দখল করে ১৭ জন রাজাকারকে বন্দি করেন। ১ নভেম্বর পাকবাহিনী গচিহাটায় আক্রমণ করে। মুক্তিবাহিনীর পাল্টা হামলায় ১৫ জন পাকিস্তানি সৈন্য নিহত হয়। ৫ নভেম্বর কিশোরগঞ্জের ১০টি থানা মুক্তাঞ্চলে পরিণত হয়। এ অবস্থায় কিশোরগঞ্জ সদরে পাকবাহিনী প্রায় অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে। ২২ থেকে ২৫ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা চারদিক থেকে একযোগে তুমুল যুদ্ধ শুরু করে কিশোরগঞ্জ মহকুমার (বর্তমানে জেলা) বিস্তীর্ণ অঞ্চল মুক্ত করে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উড়ান।

২৫ ও ২৬ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা কিশোরগঞ্জ শহরে আক্রমণ চালান। ২৬ নভেম্বর সদরের প্যারাভাঙ্গায় এক সম্মুখ যুদ্ধে খায়রুল জাহান বীর প্রতীক শহীদ হন। ওইদিনই মুক্তিযোদ্ধারা চারদিক থেকে কিশোরগঞ্জকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে ফেলেন। মুক্তিযোদ্ধাদের প্রচণ্ড আক্রমণে ভীত সন্ত্রস্ত পাক বাহিনী ৪ ডিসেম্বর কিশোরগঞ্জ শহর ছেড়ে পালিয়ে যায়। কিন্তু তাদের দোসর রাজাকার-আলবদররা শহরে পাকিস্তানি পতাকা উড়িয়ে কিশোরগঞ্জকে পাকিস্তান বানিয়ে রাখে। মাওলানা আতহার আলী, মাওলানা মুসলেহ উদ্দিন, অধ্যাপক মাহতাব উদ্দীন প্রমুখের নেতৃত্বে কিশোরগঞ্জে ছিল রাজাকার-আলবদর-আলশামসদের শক্ত ঘাঁটি। ১৪ ডিসেম্বর থেকে মুক্তিযোদ্ধারা কিশোরগঞ্জ সদর থানাকে চারদিক থেকে ঘিরে রাখেন।

নয় মাসের যুদ্ধে কিশোরগঞ্জের বড়ইতলা, মনিপুরঘাট, শোলমারা, ইটনার ভয়রা, নিকলীর গুরুইসহ জেলার বিভিন্ন স্থানে গণহত্যার মাধ্যমে তাদের নৃশংসতার স্বাক্ষর রেখে যায়। এসব স্থানে সংঘটিত ঘটনাবলী যেমনি মর্মান্তিক, তেমনি ত্যাগের মহান মহিমায় সমুজ্জ্বল। মুক্তিপাগল মানুষ মৃত্যুর মধ্য দিয়ে প্রমাণ করে গেছেন মৃত্যুর চেয়েও মানুষ অনেক শক্তিমান।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম