1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
অধিকার বঞ্চিত মানুষের একমাত্র আশার আলো শরণখোলার ইউএনও - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:৩৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
গুইমারাতে এক যুবকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার ২ টি হেলমেটসহ মোটরসাইকেল পুলিশ হেফাজতে চৌদ্দগ্রামে দারুল উলুম ক্যাডেট মাদরাসায় বার্ষিক ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত আশুলিয়ার ইয়ারপুরে নৌকার গনজোয়ারে ভাসছে মুসা ঠাকুরগাঁওয়ে একতা প্রতিবন্ধী উন্নয়ন স্কুল ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের বার্ষিক পরীক্ষা চলছে । তিতাসে ৩২’শ কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে ধানের বীজ ও সার বিতরণ লক্ষ্মীছড়ির অবৈধ করাতকলে কাটছে সরকারি বনাঞ্চলের কাঠ! পথশিশুদের নিয়ে বিশ্বকাপ ফুটবল উৎসবে ঢাকা ইয়ুথ ক্লাব ইন্টারন্যাশনাল রাউজানে ধর্মীয় অনুষ্ঠানে কিলোমিটার জুড়ে আলোকসজ্জা ও মাইকের শব্দ দুষণ জনজীবন অতিষ্ট এক ঘন্টা পর ঢাকা-ময়মনসিংহ সড়কে ট্রেন চলাচল শুরু মীরসরাইয়ে বন বিভাগের উচ্ছেদ অভিযানে ১ একর জায়গা উদ্ধার

অধিকার বঞ্চিত মানুষের একমাত্র আশার আলো শরণখোলার ইউএনও

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৩ জানুয়ারী, ২০২০
  • ১০৩ বার

মেহেদী হাসান, শরনখোলা ( বাগেরহাট ) থেকে ঃ
অতি দরিদ্রদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ন প্রকল্পের গৃহ নির্মান বাস্তবায়নে বাগেরহাটের শরণখোলায় এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন নবাগত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। সেখানে বিগত ৩ বছর ধরে প্রায় ৭শ ঘর নির্মানে ব্যাপক অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ ওঠে। অধিকার বঞ্চিত দরিদ্র মানুষের অসন্তোষ বাড়তে থাকে। দিনে দিনে তারা অত্যান্ত আশাহত হয়ে পড়েন এবং তাদের মধ্যে এক প্রকার চাপা ক্ষোভ বিরাজ করতে থাকে। এরই মধ্যে সদ্য যোগদানকারী এই কর্মকর্তার ঘর বিতরন নিয়ে বিভিন্ন মহতি উদ্ধোগের কারনে এই অঞ্চলের অধিকার বঞ্চিত মানুষের মাঝে ব্যাপক আশার সঞ্চার হয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানাযায়, এই উপজেলায় (জমি আছে ঘর নাই, তার নিজ জমিতে গৃহ নির্মান) এই স্লোগানে দরিদ্রদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর আওতায় শুরু হয়ে, প্রথমে ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরে ১ লাখ টাকা বজেটের ৯১ টি পরে একই অর্থ বছরে আরও ৫৮৫ টি ঘর এবং তারই ধারাবাহিকতায় ত্রান ও দূর্যোগ মন্ত্রনালয়, দূর্যোগ সহনীয় বাস গৃহ নির্মান প্রকল্প থেকে ধাপে ধাপে ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে ২৫৮৫৩১ টাকা বাজেটের ২৪ টি ঘর নির্মান শেষ করে। চলতি ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে ২৯৯৮৬০ টাকা বাজেটের ২৯ টি ঘরের নির্মান প্রকল্পটি এখনও চলমান রয়েছে। অতীতের এই প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট প্রায় সকলের বিরুদ্ধে সাধারন দরিদ্র জনগনের অভিযোগের অন্ত ছিলনা। প্রকল্পে প্রকৃত দরিদ্রদের বঞ্চিত করা হয়েছিল। যার বাড়িতে দালান-কোঠা তাকেও একটি ঘর দেয়া হয়েছিল। সরকার নির্ধারিত বাজেট অনুযায়ী ঘরের টিন সহ অবকাঠামোগত যাবতীয় মালামাল বিতরনের ক্ষেত্রে পুকুর চুরি করার মত অভিযোগও ওঠে। বিধিমালা উপেক্ষা করেই তৎকালীন প্রসাশনিক কর্মকর্তা সহ সংশ্লিষ্টরা এই প্রকল্প কাজ শেষ করেন বলে জানাগেছে। ওই সময় উপকুলীয় এই দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মাঝে ব্যাপক হতাশা ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছিল এবং সমালোচনার ঝড় উঠেছিল সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে। এভাবে দীর্ঘ প্রায় ৪ বছর অতিবাহিত হওয়ার পর সম্প্রতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন সরদার মোস্তফা শাহীন। যোগদান করেই সকল দপ্তর ও বিভিন্ন প্রকল্প দেখভাল শুরু করেন। পরে তার নজরে আসে, ঘর নির্মান প্রকল্পটির অনিয়ম দূর্নীতির বিষয়টি। জানাযায়, নবাগত এই কর্মকর্তা দাপ্তরিক সংশ্লিষ্ট কাগজ পত্র ঘেটে এবং ঘর বরাদ্ধ প্রকল্পে সরেজমিন ঘুরে অনিয়ম ও দূর্নীতির গন্ধ পান। তিনি মনে করেন এতে প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য চরম ভাবে ব্যাহত হয়েছে। চারদিকে গরীবের নুন ভাত কেড়ে নেওয়ার এমন কান্ড রীতি মত তাকে হতবাগ করে তোলে। অধিকার বঞ্চিত অসহায় দরিদ্র মানুষের ক্ষোভ ও অসন্তোষে তার কান ভারি হয়ে ওঠে। শোনেন দীর্ঘ দিনের জমানো কষ্টের কথা। সমোবেদনা গ্যাপন করে তাদের ন্যাজ্য অধিকার পাইয়ে দেওয়ার আস্বাশ দেন। ধারাবাহিকতায় তিনি প্রধানমন্ত্রীর সুনাম অক্ষুন্ন ও প্রকল্পের উদ্দেশ্য সমুন্নত রাখতে চলতি অর্থ বছরের ২৯ টি ঘর নির্মানে ব্যাপক স্বচ্ছতা আনতে সরেজমিন ঘুরে চুলচেরা যাচাই বাছাই করে প্রকৃত দরিদ্রদের এই ঘরের তালিকার আওতায় এনেছেন বলে জানাগেছে। অতীতে প্রশাসন ও জন-প্রতিনিধিদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে আশাহত দরিদ্র বঞ্চিত মানুষরা ঘর পেয়ে তাদের মাঝে উৎসাহ উদ্দীপনা বেড়ে যায়। গরীবের বন্ধু এই মানব দরদী মানুষটির মনে স্থান পায় সমাজের বঞ্চিত, অবহেলিত, নির্যাতিত জনগোষ্ঠীর। জনদরদী উপজেলার এই শীর্ষ কর্মকর্তা নিজের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি অফিস চলাকালীন সময়ের বাইরেও ঘুরে বেড়ান প্রত্যান্ত এলাকায়। খোঁজ নেন অসহায় মানুষদের ভাল মন্দের। সুবিধা বঞ্চিত মানুষের অভিযোগ শুনছেন অত্যন্ত ধৈর্য্যরে সাথে। ব্যাবস্থাও নিচ্ছেন তড়িৎ গতিতে। মানুষের অধিকার ও আইনি সেবা দিতে তিনি সব সময় চৌকশ ভূমিকা পালন করতেছেন। যা শরণখোলার ইতিহাসে বিরল। ইতোমধ্যে সরকারী এই কর্মকর্তার এমন দুঃসাহসিক ও অকল্পনীয় কর্মকান্ডে এলাকার মানুষ তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ। এনিয়ে কথা হচ্ছিল সোনাতলা মডেল বাজার এলাকার সখিনা বেগম ও শরণখোলা এলাকার হাছেন বানুর সাথে। তারা কান্ন বিজড়িত কন্ঠে বলেন, এই ঘর গরীবের জন্য আসেনায়। আসছে ধনীদের জন্য টাকার বিনিময়ে পাইছেও তারা। বস-বাসের লোক না থাকায় এখন সেই ঘরে কেই গরু ও মুরগী পালন করতেছেন। আমরা সেই সময় অনেক চেষ্টা করে টাকা পয়সা খরচ করে ঘর ও টাকা কোনটাই পাইনি। এখন খুবই দূর্বিসহ জীবন যাপন করতেছি। শুনছি উপজেলায় নতুন একজন অফিসার আসছে সে মানুষের বাড়িতে বাড়িতে যেয়ে নিজে দেখে যার ঘর নেই তাদের অনেককে ঘরের ব্যাবস্থা করে দিয়েছেন। এবার হয়তোবা আমরা একটা ঘর পাবো। নতুন ঘর পাওয়া, উত্তর সাউথখালী এলাকার রাহেলা বেগম ও দক্ষিন খোন্তাকাটা এলাকার বাসিন্দা জলিল ব্যাপারী তাদের প্রতিক্রিয়ায় বলেন, আমরা ঘর পাবো বলে কোনদিন আশা ছিলনা। উপজেলায় নতুন বড় স্যার এসে যেভাবে বুঝে শুনে ঘর দিচ্ছেন, তাতে মনে হয় উপযুক্তরাই এখন থেকে ঘর পাচ্ছে। তাছাড়া ঘর নির্মান সামগ্রীর মানও আগের তুলনায় শত গুন ভাল বলে অভিমত ব্যাক্ত করেন তারা। তার সততা ও বিচক্ষনতায় দূর্নীতি বাজরা এখন আর পকেট ভারী করতে পারেনা। সকল প্রকল্পের সরেজমিন তদন্ত না করে ফাইলে সই করেননা। কমিশন বানিজ্য করেননা। খুশি হয়ে কিছু দিলে গ্রহন করেননা। তার যোগদানে মনে হয় সর্গীয় কোন দুত এলাকাবাসীর কল্যানে প্রেরিত হয়েছে এমন কথাগুলোই এখন মানুষের মুখে মুখে। শরণখোলা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার এম এ আব্দুল খালেক খান জানান, নবাগত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরণখোলায় যোগদানের পর প্রশাসনিক কাজে অমুল পরিবর্তন এসেছে। যা অত্র এলাকার মানুষের জন্য আর্শীবা। ধন্য শরণখোলা বাসী, ধন্য আমার জীবন। মৃত্যুর আগে উপজেলার শীর্ষ পদে এমন একজন অফিসারের সান্নিধ্য লাভ করতে পারব যা কখনোই ভাবিনি। উপজেলা দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ও বাগেরহাট জেলা সরকারী পি,সি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আব্দুস সাত্তার আকন জানান, অনিয়ম দুর্নীতির কথা বলতে গেলে এখন নেই বললেই চলে। নতুন নির্বাহী কর্মকর্তার জোড়ালো হস্তোক্ষেপে সব কিছু সোজা সাপ্টা হয়ে গেছে। বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন শরণখোলা উপজেলা শাখার সভাপতি মুতাচ্ছিম বিল্লাহ মাশুক জানান, যদি কারো মানুষ, মানবতা, ন্যায় নিষ্ঠা ও বন্ঠন নীতি দেখার ইচ্ছা থাকে তবে সে যেন এই অফিসারকে একবার দেখে যায়। এমন বিচক্ষন ও নির্লোভ অফিসার শরণখোলায় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। উপজেলার ধানসাগর ইউপি চেয়ারম্যান মাইনুল হোসেন টিপু, খোন্তাকাট ইউপি চেয়ারম্যান জাকির হোসেন খান মহিউদ্দিন, রায়েন্দা ইউপি চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান মিলন, সাউথখালী ইউপি চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হোসেন Ñ সকলেই প্রায় একই সুরে নবাগত এই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বিভিন্ন কর্মকান্ডের ভূয়সী প্রসংসা করেন। তারা মনে বরেন, এখন সব কাজ শতভাগ বাস্তবায়িত হচ্ছে। এমন অফিসার আরও আগে শরনখোলায় দরকার ছিল। তাহলে বারবার প্রাকৃতিক দূর্যোগে বিদ্ধস্ত এই অঞ্চলের অতি দরিদ্র মানুষদের সৌভাগ্যের চাকা অনেক আগে থেকেই ঘুরতে শুরু করত। তারা আরো জানান চৌকশ গুনের অধিকারী এই সরকারী কর্মকর্তার সব ভাল কাজের সাথে আমরা সহযোদ্ধা হিসেবে সব সময় পাসে থাকব। গ্রামের কাগজের এই প্রত্রিবেদকের সাথে শরণখোলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরদার মোস্তফা শাহীন এর কথা হলে তিনি বলেন, একদিকে সরকারের একজন দায়িত্ববান কর্মকর্তা, পাসাপাসি মানুষ মানুষের জন্যÑ এই দুটি বিষয় মাথায় রেখে যা যা করার তাই করব। জীবনে অন্যায় ও দূর্নিতীর সাথে আপোস করিনি। কারো রক্ত চক্ষুকে ভয় করিনি। আমি অনিয়ম, দূর্নীতি পছন্দ করিনা, কাউকে করতেও দেবনা। সকল বাধা উপেক্ষা করে জনগনের মৌলিক অধিকার পাইয়ে দেওয়ার দৃড় প্রত্যায় ব্যাক্ত করেন। প্রধানমন্ত্রীর গৃহ নির্মান প্রকল্পের ব্যাপারে তিনি বলেন, বাসস্থান হল মানুষের মৌলিক অধিকার এই অধিকার নিয়ে যারা অতীতে ছিনিমিনি করেছে তাদের মানুষত্ব্য ও বিবেক বলতে কিছু আছে তা আমার মনে হয়না। পাশাপাশি সরকারের উন্নয়ন মুখী কর্মকান্ড আরো বেগবান করার জন্য সকলের সহোযোগীতা কামনা করেন তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম