1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
শরণখোলা সদ্যবিদায়ী পিআইও নাসির আহম্মেদের বিরুদ্ধে সাইক্লোন সেল্টার নির্মাণ প্রকল্পে অনিয়মের অভিযোগ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৫৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে ভাতিজিকে ধর্ষণের অভিযোগে ফুপার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা । রাজশাহীতে র‍্যাবের হাতে দুই ভুয়া সাংবাদিক গ্রেফতার ইরানি স্কলার ড. সাইয়েদ আলী রেযা মাহদী মুসাভী জিরি মাদরাসা পরিদর্শন করেছেন ঠাকুরগাঁওয়ে দলিত আদিবাসীদের অনূকুলে সংবাদ প্রকশের লক্ষ্যে মতবিনিময় সভা । ঠাকুরগাঁওয়ে আমনের ভরা মৌসুমেও পানি নেই : ধানক্ষেত ফেটে চৌচির । চকোরিয়া প্রেসক্লাবে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন ঠাকুরগাঁওয়ে মন্দিরে আবারও ১৪৪ ধারা জারি । অভিবাসনে পোকা আশুলিয়ায় যুবলীগের শোক দিবস পালিত খাদ্যর দিক দিয়া আমরা স্বয়ংসম্পূর্ণ : এমপি মিলাদ গাজী

শরণখোলা সদ্যবিদায়ী পিআইও নাসির আহম্মেদের বিরুদ্ধে সাইক্লোন সেল্টার নির্মাণ প্রকল্পে অনিয়মের অভিযোগ

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৫ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৭২ বার

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি :
বাগেরহাটেরশরণখোলা থেকে সদ্য বিদায়ী প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) নাসির আহম্মেদের বিরুদ্ধে সাইক্লোন সেল্টার নির্মান প্রকল্পে ব্যাপক অর্থ বানিজ্যের প্রমান পাওয়া গেছে। নতুন সাইক্লোন সেল্টার পাইয়ে দেওয়ার আশ^াস দিয়ে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে মোটা অংকের ঘুষ গ্রহন, তার অধীনে উন্নয়নমুখী সরকারের ত্রান ও দূর্যোগ মন্ত্রনালয়ের বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নে নানাবিধ অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানরা ঘুষ দিয়ে সাইক্লোন সেল্টার না পাওয়ায় ওই কর্মকর্তার কাছে টাকা ফেরত চাইলে তিনি টাকা অথবা সাইক্লোন সেল্টার কোনটাই দিচ্ছেননা। ফলে প্রাতিষ্ঠানিক কর্মকান্ডে সমন্বয় হীনতা বাড়তেছে। দূর্নীতি বিরোধী অভিযানে সরকারের জিরো ট্রলারেন্সের মধ্যেও ওই কর্মকর্তা দাম্ভিকতার সাথে নিজেকে বিভিন্ন কু-কর্মে জড়িয়েছেন বলে সূত্র জানায়। খোঁজ নিয়ে জানাযায়, ধাপে ধাপে এই উপজেলায় মোট ৬টি সাইক্লোন সেল্টার নির্মান প্রকল্পের অনুমোদন দেয় দূর্যোগ ব্যাবস্থাপনা অধিদপ্তর। পর্যায়ক্রমে এই কাজ এখনও চলমান রয়েছে। প্রকল্প কাজের চাহিদা পত্র ও সার্বিক তদারকির দায়িত্বে রয়েছে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা। সরেজমিন তথ্যানুসন্ধানে জানাযায়, তৎকালিন পিআইও নাসির আহম্মেদ সেই সূযোগ কাজে লাগিয়ে উপজেলা পরিষদের সামনে অবস্থিত শরণখোলা মহিলা দাখিল মাদ্রাসার সাইক্লোন সেল্টার নির্মানে ৩০/৪০ হাজার টাকা ঘূষের বিনিময়ে তাদেরকে এই প্রকল্প অনুমোদন পাইয়ে দিয়েছেন। এদিকে জনতা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সাইক্লোন সেল্টার স্থাপনে বিদ্যালয় কতর্িৃপক্ষের কাছে মোটা অংকের টাকা দাবি করলে তারা ওই কর্মকর্তাকে কোন টাকা দেননি। এতে তিনি ক্ষুব্দ হয়ে তার নগ্ন কল-কাঠি নাড়তে শুরু করেন। যাতে সেখানে কোন ভাবেই এই ভবন নির্মান করা না হয়। নিরুপায় হয়ে অবশেষে ওই সময় স্কুল কতর্িৃপক্ষ সরাসরি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ের অধিদপ্তরে যোগাযোগ করে অনুমোদন নিয়ে সেখানে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করেন। এতে ওই দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তার কালো থাবার পরিসমাপ্তি ঘটিয়ে সত্য ও ন্যায়ের সৈনিক দেশ গড়ার কারিগর শিক্ষকদের বিজয় অর্জিত হয়েছে বলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক শিক্ষক এ সকল তথ্য জানিয়েছেন। অন্যদিকে খোন্তাকাটা মদিনাতুল উলুম লতিফিয়া মাদ্রাসা সূত্রে জানাযায়, যুগ যুগ ধরে অবকাঠামো সহ বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত এই প্রতিষ্ঠানটি। শিক্ষার্থীদের পাঠদান প্রায় বন্ধ হওয়ার মত অবস্থা। তাই বছরের পর বছর ধরে মাদ্রাসা কতর্িৃপক্ষ অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন মহলে বার বার ধর্না দিলেও কোন ফল আসেনি। ধারাবাহিকতায় ২০১৬/২০১৭ সালের দিকে তৎকালীন সেই পিআইও নাসির আহম্মেদ ও মাদ্রাসা কতর্িৃপক্ষের সাথে একটি সাইক্লোন সেল্টার অনুমোদন পাওয়া সংক্রান্ত বিষয়ে কথা হলে ওই কর্মকর্তা তাদেরকে আশ^াস দিয়ে ২৫/৩০ হাজার টাকা ঘুষ গ্রহন করেন। এছাড়াও ২০১৭ সাল নাগাদ আকন্দ পাড়া দাখিল মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে মিথ্য আশ^াস দিয়ে একই ভাবে সাইক্লোন সেল্টার দেওয়ার কথা বলে ৫০ হাজার টাকা ঘুষ গ্রহন করেছেন বলে মাদ্রাসা সূত্র জানায়। দীর্ঘ সময় পার হলেও তারা টাকা অথবা সাইক্লোন সেল্টার কোনটাই পাচ্ছেননা। ধার করে টাকা এনে ঘুষ দিয়ে তাদের অবস্থা এখন মরার উপরে খাঁড়ার ঘাঁ। দীর্ঘ অনুসন্ধানে আরো জানাযায়, এই দপ্তরে ওই কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন কালে সরকারের উপজেলা পর্যায়ে গ্রামীন জনপদ উন্নয়ন, টি আর, কাবিখা, দরিদ্রদের ছোলার বিতরন, টিন বিতরন, প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিলের ঘর বিতরন, ভিজিএফ এর চাল বিতরন, কালভার্ড ও সাইক্লোন সেল্টার নির্মান সহ বিভিন্ন প্রকল্প গুলো তার উদাসীনতা ও রহস্যজনক কারনে সঠিক ভাবে বাস্তবায়ন না হওয়ায় জনসাধারনের চাহিদা গুলো অপুরনীয়ই রয়ে গেল। লোক চক্ষুর আড়ালে ওই কর্মকর্তা এই সকল কান্ড ঘটিয়ে ঘুষের বিনিময়ে প্রকল্প গুলো অননুমোদিত রেখেই সম্প্রতি পাশ^বর্তী উপজেলা মোড়েলগঞ্জে বদলি হয়ে চলে যান। সেখানে বসেও শরণখোলার বিভিন্ন কর্মকান্ড ও অনেক কর্মকর্তাদের কটুক্তি করে তার এই অনিয়ম দূর্নীতি আড়াল করার পায়তারা চালাচ্ছেন বলে জানাগেছে। বাগেরহাট সরকারি পিসি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আব্দুস সাত্তার শরণখোলা উপজেলা দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি হয়েও রাখেননা কোন দূর্নীতির খবর। তবে তিনি জানিয়েছেন, ওই কর্মকর্তা একজন দূর্নীতিবাজ পিআইও। তার নিজের মাদ্রাসার সাইক্লোন সেল্টার সংক্রান্ত বিষয়ে ওই কর্মকর্তা ৫০ হাজার টাকা ঘুষ নিয়েছেন বলে জানান তিনি। তবে এ সকল অভিযোগের বিষয়ে নিজেকে সম্পূর্ন নির্দোশ বলে দাবি করেছেন শরনখোলার তৎকালীন প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) নাসির আহম্মেদ। অন্যদিকে, ওই পিআইওর অতীত কর্মকান্ডের ব্যাপারে শরণখোলার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার দপ্তর থেকে কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি। কথা হলে শরনখোলা উপজেলা চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) রাহিমা আক্তার হাসি এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি। জানতে চাইলে শরণখোলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরদার মোস্তফা শাহীন জানান, সরকারের দূর্নীতি বিরোধী কার্যক্রমের সুনাম ক্ষুন্ন করে একজন কর্মকর্তার এই সকল অনৈতিক কর্মকান্ড শোভা পায়না। খোঁজ খবর নিয়ে বিষয়টি উপর মহলে জানানো হবে। বাগেরহাট জেলা ত্রান ও পূনর্বাসন কর্মকর্তা মোঃ আবুল আসাদ মিয়ার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করে তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। দৃষ্টি আকর্ষন করা হলে বাগেরহাট জেলার জেলা প্রসাশক মোঃ মুামুনুর রশীদ জানান, কেউ অভিযোগ দিলে বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম