1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
খালেদার মুক্তিতে জামিন ছাড়া দুই পথ - দুই বছর আগেই বলেছিলাম । তখন আমাদের নেতারা আমার কথা শোনেনি : খন্দকার মাহবুব হোসেন - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:২৭ অপরাহ্ন

খালেদার মুক্তিতে জামিন ছাড়া দুই পথ — দুই বছর আগেই বলেছিলাম । তখন আমাদের নেতারা আমার কথা শোনেনি : খন্দকার মাহবুব হোসেন

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
  • ৯৬ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার :
আবেদনের পর বিবেচনা : আইনমন্ত্রী । প্যারোল ও রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার সুযোগ আছে : অ্যাটর্নি জেনারেল ।

চলতি সপ্তাহেই জামিন আবেদন : জয়নুল আবেদীন

দুর্নীতির দুই মামলায় দন্ডিত হয়ে কারাগারে থাকা সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি প্রশ্নে নতুন করে আবার শুরু হয়েছে নানা আলোচনা-সমালোচনা। খালেদার মুক্তির বিষয়ে শাসক দল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ফোনের পরই এ আলোচনা শুরু হয়। আপিল বিভাগে জামিন আবেদন খারিজ হওয়ার পর এখন বিএনপি চেয়ারপারসনের মুক্তি কীভাবে- এমন প্রশ্নই সবখানে। খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা বলছেন, সরকার চাইলে জামিন ছাড়াও মুক্তি দিতে পারে।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরাও খালেদার মুক্তিতে জামিন ছাড়া দুই পথ দেখছেন। একটি অসুস্থতার কারণে প্যারোলে মুক্তি, অন্যটি রাষ্ট্রপতির কাছে সাজা মওকুফের আবেদন।
এদিকে, প্যারোলে মুক্তির বিষয়ে আরও আগেই সিদ্ধান্ত নেওয়া প্রয়োজন ছিল উল্লেখ করে নিজ দলের নেতাদের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন খালেদা জিয়ার অন্যতম এক আইনজীবী।

ওই আইনজীবী বলেন, দুই বছর আগেই এ প্রস্তাব দিয়েছিলাম, তখন আমাদের নেতারা শোনেননি। অন্যদিকে, চলতি সপ্তাহে আবারও হাই কোর্টে খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন করা হবে বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবীরা। খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, বিএনপি চেয়ারপারসনের বিরুদ্ধে থাকা মোট ৩৬ মামলার মধ্যে সাজা হয়েছে দুটিতে। এর মধ্যে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিচারিক আদালত পাঁচ বছর কারাদন্ড দেওয়ার পর হাই কোর্টে সাজা বেড়ে হয় ১০ বছর। মামলাটি বর্তমানে আপিল বিভাগে বিচারাধীন। আর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাবেক এ প্রধানমন্ত্রীকে ৭ বছর কারাদন্ড দিয়েছে নিম্ন আদালত। এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা হয়েছে। এই দুই মামলায় উচ্চ আদালতে জামিন চেয়ে ব্যর্থ হয়েছেন তার আইনজীবীরা। বাকি ৩৪ মামলার মধ্যে গ্যাটকো, নাইকো ও বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলাসহ ১৩টি মামলা বিচারাধীন। আর হাই কোর্টের আদেশে স্থগিত রয়েছে ২১ মামলা
২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে তিনি সাজা ভোগ করছেন। বর্তমানে কারা কর্তৃপক্ষের অধীনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। জামিন ছাড়া কোনো আসামির মুক্তি পাওয়ার সুযোগ রয়েছে কিনা, এমন প্রশ্নে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, কারাগারে থাকা অবস্থায় কারও অসুখ হলে প্যারোলের আবেদন করতে পারেন। তবে তার (খালেদা জিয়া) বিষয়ে আবেদন পাওয়ার পরই এ আলোচনা করা সম্ভব হবে।
অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম খালেদার মুক্তিতে জামিন ছাড়াও দুই পথ দেখছেন। প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন, তার (খালেদা জিয়া) মুক্তিতে এখন দুটি পথ খোলা আছে। একটি হচ্ছে, অসুস্থতার বিষয়টি তুলে ধরে সরকারের কাছে আবেদন করতে পারেন। যেটা প্যারোল হিসেবে পরিচিত। অন্যটি হচ্ছে- সাজা মওকুফ চেয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা প্রার্থনা। তিনি বলেন, প্রথমটায় দোষ স্বীকার না করেও আবেদন করা যাবে। তবে রাষ্ট্রপতির কাছে আবেদন করতে হলে অবশ্যই দোষ স্বীকার করতে হবে। সাজাটাকে চ্যালেঞ্জ করা যাবে না।

নিজ দলীয় নেতাদের প্রতি কিছুটা ক্ষোভ প্রকাশ করে খালেদা জিয়ার অন্যতম আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন শ্যামল বাংলা, প্রতিবেদককে বলেন, আমি দুই বছর আগেই প্যারোলের বিষয়ে মতামত দিয়েছিলাম । তখন আমাদের নেতারা আমার কথা শোনেনি । তিনি বলেন যে দুটি মামলায় এখন তিনি জামিনের অপেক্ষায় আছেন, সেই দুটি মামলায়,বহু আগেই জামিন হওয়া উচিত ছিল । অথচ আমরা আপিল বিভাগে গিয়ে ব্যর্থ হয়েছি। এখন ম্যাডাম যে অবস্থায় আছেন যদি দ্রুত উন্নত চিকিৎসা করা না হয় তাহলে ম্যাডামের জীবন বিপন্ন হওয়ার আশঙ্কা থাকবে বলে মন্তব্য করেন মাহবুব হোসেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম