1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
চিকিৎসা বঞ্চিত হচ্ছে সাধারন মানুষ শরণখোলায় ওষুধ বিক্রয় প্রতিনিধি ও দালালদের দাপটে অসহায় রোগিরা! - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৮:৫৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
Tips for choosing the best sugar daddy for you Fun88 Sổ Xô Miên Nam Hôm Nay: Hướng Dẫn Chơi Online Với Trang Đánh Bài Uy Tín Thabet88 আ’লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বাঁশখালী আ’লীগে ঐক্যের সুর 1win – лучшая букмекерская контора с высокими коэффициентами и широкой линией ставок для азартных игроков ১০৫ জন অধ্যাপক ও সহযোগী অধ্যাপক থাকা স্বত্বেও ডিন হওয়ার অভিযোগ কুবি উপাচার্যের বিরুদ্ধে নকলায় ইউএনওর সাজানো মামলা থেকে সাংবাদিক রানা বেকসুর খালাস ঠাকুরগাঁয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে আওয়ামী লীগের পৃথক পৃথক ভাবে ৭৫ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন। বাস্তব জীবনেও সামাজিক মাধ্যমের প্রভাব স্বাধীন গণমাধ্যমে হুমকি, কণ্ঠ রোধে চেষ্টার প্রতিবাদে রাজশাহীতে মানববন্ধন তিতাসে বিএনপি থেকে পদত্যাগ করলেন সাংবাদিক কবির হোসেন

চিকিৎসা বঞ্চিত হচ্ছে সাধারন মানুষ শরণখোলায় ওষুধ বিক্রয় প্রতিনিধি ও দালালদের দাপটে অসহায় রোগিরা!

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
  • ১২১ বার

নইন আবু নাঈম বাগেরহাট ঃদুই লাখ মানুষের জন্য চিকিৎসক মাত্র পাঁচ জন । এঙ্-রে মেশিন, ইসিজি, অপারেশন থিয়েটার বন্ধ। টেকনিশিয়ানের অভাবে প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষা হচ্ছে না। শিশু ওয়ার্ড তালাদ্ধ। গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোতে পর্যাপ্ত জনবল নেই । টয়লেট গুলো অধিকাংশ ব্যবহারের অনুপযোগী। দুর্গন্ধময় পরিবেশে । এমন সংকট আর অব্যাবস্থাপনায় কোন রকম জোড়া তালি দিয়ে চলছে বাগেরহাটের শরণখোলার ৫০ শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্টি। নানা শুন্যতার মাঝেও কিছুটা সেবা মিললেও বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধি এবং স্থানীয় কতিপয় দালালদের দাপটে অনেকটা অসহায় হয়ে উঠেছেন রোগীরা ।
যার ফলে, উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে চিকিৎসা নিতে এসে প্রতিনিয়ত চরম বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন নানা বয়সী শত শত মানুষ। বহু অপেক্ষা করেও কাঙ্খিত সেবা পাচ্ছেনা তঁারা।
বছরের পর বছর হাসপাতালটি হাজারো সমস্যা-সংকটে জর্জরিত থাকলেও তা নিরসনে সংশ্লিষ্ট কতর্ৃপক্ষের কোনো মাথা ব্যাথা নেই। তাই সেবা বঞ্চিত হয়ে ক্লিনিক ও এলাকার বাইরে গিয়ে অতিরিক্ত টাকা খরচ করে চিকিৎসা নিতে বাধ্য হচ্ছেন সাধারন মানুষ।
খেঁাজ নিয়ে জানাগেছে, ৫০ সয্যা বিশিষ্ট এ হাসপাতালটিতে কনসালটেন গাইনি ও শিশু বিশেষজ্ঞ সহ ১৩ জন চিকিৎসক থাকার কথা। কিন্তু সেখানে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সহ মাএ ৫ জন চিকিৎসক রয়েছেন। বাকি ৮ জন চিকিৎসকের পদ শূন্য । এছাড়া ওয়ার্ড বয় তিনজনে আছে দুই জন। পরিচ্ছন্নতা কর্মী পঁাচ জনের স্থানে আছে মাত্র এক জন। আয়া নেই ও প্যাথলজিষ্ট নেই। এঙ্-রে ১২বছর এবং ইসিজি মেশিন ছয় বছর ধরে নষ্ট। এই দুই পদে টেকনিশিয়ানও নেই। অপারেশন থিয়েটারের (ওটি) যন্ত্রপাতি থাকলেও সেখানে কোনো অপারেশন হয় না। থিয়েটারটি ব্যবহার না হওয়ায় মূল্যবান যন্ত্রপাতি নষ্ট হতে বসেছে।এছাড়া অনিয়ম এবং অব্যাবস্থাপনাও রয়েছে অধিকাংশ বিভাগে। ২২ (ফেব্রুয়ারি শনিবার) সকাল ৯ টার পর থেকে বেলা ১১টা পযুন্ত হাসপাতালটিতে অবস্থান করে বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধি ও কতিপয় দালালদের চরম ব্যাস্ত দেখা যায় । ঘড়ির কাটায় যখন বেলা ১০টা তখন বহিরা গতদের চিকিৎসার উদ্দেশ্যে রুমে প্রবেশ করেন দু জন মেড়িকেল অফিসার । তখনই ডাক্তার ভিজিট প্রতিযোগিতা শুরু হয় ওষুধ বিক্রয় প্রতিনিধিদের মধ্যে । সকাল থেকে দরজার নিকট দাড়িয়ে থাকা অনেক অসুস্থ ও বৃদ্বা রোগীদের এক প্রকার ধাক্কা দিয়ে ডাক্তারের রুমে ঢুকে পড়ে কোম্পানির লোক । তার পর থেকে ডাক্তারদের মুখের দিকে নির্বাক তাকিয়ে থাকতে দেখা যায় অসুস্থ নানা বয়সী উপজেলার বিভিন্ন এলাকার অসহায় মানুষদের । ২/১ জন রোগী ডাক্তারের নিকট পৌছাতে পারলেও বিক্রয় প্রতিনিধিদের চাপে রোগী এবং ডাক্তার উভয়ই বে-সামাল হয়ে পড়ে । বহিরাগত রোগীদের কয়েক জন বলেন , ডক্তার আসার পর কোম্পানির লোক গুলো যে ভাবে হুমড়ি খেয়ে পড়েছে তাতে আমরা অনেকেই আতংকিত হয়ে উঠেছি । এতো চাপের মধ্যে ডাক্তারের কাছে কি বলমু তা ভুলেগেছি । ডাক্তারি সেবা নেয়ার সময় বাহিরের লোক পাশে থাকলে লজ্জায় গোপন রোগের কথা বলা যায় না । সে ক্ষেত্রে কষ্ট করে সেবা নিতে এসে কোন লাভ হয় না । তবে ,পরিচয় গোপন রাখার শর্তে, কয়েক জন ষ্টাফ বলেন , ওষুধ কোম্পানির অনেক প্রতিনিধি স্থানীয় বাসিন্দা হওয়ায় তারা প্রভাব খাটিয়ে হর হামেশা ডাক্তারদের রুমে প্রবেশ করেন কিন্তু চক্ষু লজ্জার কারনে এদের কিছু বলা হয় না । তবে , নিদিষ্ট সময়ের আগে হাসপাতালে ঢুকে অযথা রোগীদের হয়রানি করা তাদের পেসক্রিপশনের ছবি তুলে রাখাটা নিয়ম বর্হিভুত । তবে, কর্তৃপক্ষ কঠোর হলে এমন চর্চা বন্ধ করা কোন ব্যাপার নয় । অন্যদিকে,পরিচয় গোপন রাখার শর্তে একটি খ্যাতনামা কোম্পানির এক বিক্রয় প্রতিনিধি বলেন , আমরা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সহ ডাক্তারদের অনুমতি নিয়েই তাদের ভিজিট করি কোন রোগীর ক্ষতি করি না । দুপুর ছাড়াও সকালে ১১টা পর্যুন্ত ভিজিট করলে তাতে রোগীদের কোন ক্ষতি হয় না ।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা.ফরিদা ইয়াসমিন জানান, ডাক্তারদের সাথে সাক্ষাৎ করার জন্য ওষুধ কোম্পানীর প্রতিনিধিদের দুপুরের পরে আসতে বলা হয়েছে । তার পরেও যদি কেউ রোগী দেখার টাইমের মধ্যে সাক্ষাৎ করতে আসেন। সে ব্যাপারে ব্যাবস্থা নেয়া হবে । তবে, দালালের বিষয়টি আমার জানা নেই । পাশাপাশি রোগীদের সকল অভিযোগ সঠিক নয়। এছাড়া মাত্র ৩/৪ জন চিকিৎসক দিয়ে একটা উপজেলার হাজার হাজার মানুষের কাঙ্খিত সেবা দেয়া সম্ভব নয় । তবে, ডাক্তার সহ জনবল সংকট থাকায় চিকিৎসা সেবা কিছুটা ব্যাহত হচ্ছে। ##

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম