1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
বাগেরহাটে ১৯৭৫ সালে জন্ম নিয়েও মুক্তিযোদ্ধা স্কুলের দপ্তরি - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০৮:৫০ পূর্বাহ্ন

বাগেরহাটে ১৯৭৫ সালে জন্ম নিয়েও মুক্তিযোদ্ধা স্কুলের দপ্তরি

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
  • ১৬১ বার

নইন আবু নাঈম বাগেরহাট ঃ
শিরোনাম দেখে হয়ত অবাক হচ্ছেন!অবাক হওয়ারই কথা,কারণ দেশকে হানাদার মুক্ত করার জন্য ১৯৭১ সালে যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিল দেশ প্রেমিক সন্তানরা।১৯৭৫ সালে জন্মনিয়েও মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সকল সুযোগ সুবিধা নিচ্ছেন চিতলমারী উপজেলার সন্তোষপুর ইউনিয়নের কচুরিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি আব্দুল জলিল গাজী।তিনি ১৯৯৫ সাল থেকে কচুরিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরি পদে কর্মরত আছেন।আব্দুল জলিল গাজী সন্তোষপুর ইউনিয়নের কচুরিয়া গ্রামের মৃত ছহির উদ্দিন গাজীর ছেলে।
স্থানীয়দের অভিযোগ প্রধান শিক্ষককের যোগসাজগে অষ্টম শ্রেণি পাশের সনদে মিথ্যা জন্ম তারিখ দিয়ে স্কুলে চাকুরি নিয়েছেন তিনি।এলাকায় জানাজানি হওয়ার পরেও তিনি স্কুলে দপ্তরীর চাকুরী ছেড়ে দেওয়ার কথা বললেও কোন কর্নপাত না করে চাকরি করে যাচ্ছেন এবং মুক্তিযোদ্ধার ভাতাও নিচ্ছেন।বিদ্যালয়ে দেওয়া অষ্টম শ্রেণির সনদ দেখার পরে সবার চোখ ছানাবড়া দিচ্ছে।কারণ ১৯৭৫ সালে জন্মগ্রহন করে কিভাবে মুক্তিযোদ্ধা হয়।আসলে তিনি মুক্তিযোদ্ধা কিনা এ নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।
স্থানীয় একাধিক মুক্তিযোদ্ধার সাথে কথা বলে জানাযায়,মুক্তিযুদ্ধের সময় আব্দুল জলিল গাজীর বয়স ছিল প্রায় ২০ থেকে ২৫ বছর।তিনি মুক্তিযুদ্ধেও অংশগ্রহন করেছিলেন।সেই অনুযায়ী তিনি সরকার প্রদত্ত মুক্তিযোদ্ধাদের সকল সুযোগ সুবিধা পাচ্ছেন।কিন্তু কিভাবে সে ওই স্কুলে দপ্তরির চাকুরী করে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তারা বলে প্রধান শিক্ষকের সাথে আতাত করে ভুয়া সার্টিফিকেট দিয়ে তিনি চাকুরী করছেন।
সম্প্রতি কচুরিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় বিদ্যালয়ের সামনের মাঠে রোদ পোহাচ্ছেন বয়সের ভারে নুয়ে পড়া একবৃদ্ধ।ভালভাবে হাটতে পারেন না।তার কাছে জানতে চাইলাম বিদ্যালয়ের দপ্তরি কোথায় আছে।তিনি বললেন আমিই দপ্তরি।অনিয়মের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি শিকার করেন তার অন্যায়ের কথা।তিনি বলেন,এখানে স্কুল করার জন্য আমি জমি দিয়েছি।জমি দানের সময় কথা ছিল আমাকে চাকুরী দিতে হবে।সেই জন্য প্রধান শিক্ষক আমাকের চাকুরী দিয়েছেন।আর যখন চাকুরী হয়েছে তখন মুক্তিযোদ্ধার ভাতা ছিল না।চাকুরী দুই একদিনের মধ্যে চাকরী ছেড়ে দেওয়ার কথা জানান।
প্রধান শিক্ষক শাহজাহান শিকদার বলেন,যখন একটি বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করতে হয় তখন অনেক কিছু করতে হয়।তাই কমিটি আব্দুল জলিল গাজীকে দপ্তরি হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে। তবে আমি জলিল সাহেবকে বলেছি আপনি চাকুরী ছেড়ে দেন।
বাগেরহাট জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ কামরুজ্জামান বলেন,বিষয়টি খোজ খবর নিয়ে দেখা হবে।সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
বাগেরহাটে ডাকাতি করতে এসে গনপিটুনিতে অজ্ঞাত যুবক নিহত
নইন আবু নাঈম বাগেরহাট ঃ
বাগেরহাটের কচুয়ায় ডাকাতি করতে এসে গনপিটুনিতে অজ্ঞাত যুবক (৩৫) নিহত হয়েছেন।সোমবার ভোররাতে বারুইখালি গ্রামের সোমেদ হাওলাদার এর বাড়ি ডাকাতি করতে গেলে গণপিটুনির শিকার হয় ওই যুবক।এসময় ওই এলাকার দুইজন আহত হয়েছে। পরে সকাল সাড়ে ৬টার সময় আহত যুবককে উদ্ধার করে কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েনিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।বিষয়টি জানার পরে বাগেরহাট সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ওবায়দুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছেন।
আহতরা হলেন,বারইখালি গ্রামের আব্দুল কাদের হাওলাদারের ছেলে মোহিত হাওলাদার (৩২) ও মহাসিন হাওলাদার (৩৬)।
ওই পরিবারের বরাত দিয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য জাকির হাওলাদার বলেন,ডাকাতি করার উদ্দেশ্যে ভোর রাতে ৫-৬ জনের একদল লোক সোমেদ হাওলাদারের বাড়িতে ঢোকে। বাড়ির সকলের ডাক চিৎকারে গ্রামের লোকজন বেড়িয়ে আসে এবং ডাকাতরা লোকজনের সমাগম টের পেয়ে পালানোর চেষ্টা করে।এসময় গনপিটুনিতে অজ্ঞাত এক যুবক গুরুত্বর আহত হয়।ডাকাতদের ধরতে গিয়ে স্থানীয় দুই যুবকও আহত হয়েছে।
কচুয়া থানার ওসি(তদন্ত) সর্দার ইকবাল হোসেন বলেন,গনপিটুনিতে আহত যুবককে হাসপাতালে নিয়ে আসার পরে সে মারা যায়।যুবকের পরিচয় জানতে আমরা তার ছবি দিয়ে বেতার বার্তা পাঠিয়েছি বিভিন্ন থানায়।মরদেহের ময়নাতদন্তের জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।অন্যান্য আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম