1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
বেগম জিয়ার কারামুক্তিকে কঠিন করে তুলেছে বিএনপি : আসিফ নজরুল - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ০৭:১০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীনগরে কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল রাউজানে তিনদিন ব্যাপী বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন রাউজানে ৬০ প্রজাতির ১ লাখ ৮০ হাজার ফলজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপন কর্মসূচি উদ্বোধন মাগুরায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শরিয়াতউল্লাহ হোসেন রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান  *জরুরী রক্ত প্রয়োজন*রক্তের গ্রুপ: AB+ (এবি পজেটিভ) ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে চৌদ্দগ্রামে তিন ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ কক্সবাজারে সাংবাদিকদের উপর আ’লীগ-ছাত্রলীগের হামলা সারাদেশে ছাত্রসমাজের উপর মর্মান্তিক হামলার প্রতিবাদ ও কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে দোহাজারীতে বিক্ষোভ মিছিল  এমএসআর’র ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা লুটপাট সমস্যায় জর্জরিত চট্টগ্রামের চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-অধিকাংশ চিকিৎসক অনুপস্থিত থাকেন নবীনগরে কুতুবিয়া দরবার শরীফে শাহাদাতে কারবালা মাহফিল অনুষ্ঠিত

বেগম জিয়ার কারামুক্তিকে কঠিন করে তুলেছে বিএনপি : আসিফ নজরুল

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
  • ১৩৩ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার :
গত শনিবার ৭ ফেব্রুয়ারি বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার কারাবাসের দুই বছর পূর্ণ হয়। বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। দেশের কোটি কোটি মানুষ তার অন্ধ সমর্থক।

বিদেশেও আমেরিকা, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া প্রভৃতি দেশেও যারা প্রবাসী আছেন তাদের মধ্যে ৯০ শতাংশই তার সমর্থক। তার সমর্থনের যে পরিমাণ আমি উল্লেখ করছি, সেটা আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে বলছি।

বাংলাদেশে যে তিনি কতখানি জনপ্রিয় সেটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক আসিফ নজরুলের ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকে বোঝা যায়।

ঐ স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন, খালেদা জিয়ার বন্দিত্বের দু’বছর পূরণ হলো। এক অর্থে বাংলাদেশও বন্দি আজ বহু বছর ধরে।
তিনি যদি মুক্ত থাকতেন বাংলাদেশ বন্দি থাকত না, থাকত না এতটা দুর্বল আর নতজানু হয়ে।’ ঢাবির এ অধ্যাপক আরও বলেন, এ দেশে লক্ষ কোটি টাকা লোপাট আর পাচার হয়। বহু চোর থাকে মহাদাপটে।

জিয়ার নামে ট্রাস্টে দু’কোটি টাকা বেড়ে চার-পাঁচ কোটি টাকা হয়েছে। তবু খালেদা জিয়া শান্তি পেয়েছেন। সেটিও মূলত তার কর্মকর্তাদের গাফিলতি আর ভুলের কারণে।

তিনি বলেন, এক টাকাও আত্নসাৎ করেননি খালেদা জিয়া। তবু তার নামে অপপ্রচার হয় এতিমের টাকা মেরে দেয়ার। কিন্তু কোনো অপপ্রচার মুছতে পারবে না তার অতুলনীয় জনপ্রিয়তা, মুছে দিতে পারবে না তার আত্মত্যাগ। ‘বেগম খালেদা জিয়া, বাংলাদেশের মানুষ ভুল বুঝবে না আপনাকে।’

খালেদা জিয়ার কারাবাস নিয়ে চিন্তিত যেমন দেশের মানুষ, তেমনি চিন্তিত আন্তর্জাতিক নামাজাদা মহল। অথচ এমন একজন অসাধারণ জনপ্রিয় নেত্রীর মুক্তি তো দূরের কথা, দুই বছরে তার মুক্তির কোনো আলামতই দেখা যাচ্ছে না। আলামত বলবো কেন, বেগম জিয়ার মুক্তির কোনো প্রচেষ্টাই লক্ষ্য করা যাচ্ছে না।

বিএনপি নেতারা হয়তো বলবেন যে, তারা তো নিআদালত থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ আদালত অর্থাৎ আপীল বিভাগ পর্যন্ত দৌড়াদৌড়ি করেছেন। কিন্তু তার পরেও তার মুক্তি মেলেনি। সুতরাং তার মুক্তির ব্যাপারে তাদের কোনো শৈথিল্য নাই।

আদালতে দৌড়াদৌাড়ি করে তার যে মুক্তি মিলবে না, এমনকি জামিনও মিলবে না সেই কথাটি দেশের সাধারণ মানুষ, যাকে বলে আনপড়, তেমন মানুষও বুঝেছে। কিন্তু বুঝতে পারেননি বিএনপির বিজ্ঞ আইনজীবীরা ও বিজ্ঞ স্ট্যান্ডিং কমিটির মেম্বাররা। নি আদালত থেকে দেশের সর্বোচ্চ আদালত সব কিছুই সরকারের কুক্ষিগত। এই কথাটি একজন দোকানদারও জানে।

আমি তো নিজে কাঁচা বাজারের কয়েকজন বিক্রেতা এবং মুদি দোকানের কয়েকজন মালিককে বলতে শুনেছি, বেগম জিয়ার বিরুদ্ধে দুই কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে তাকে দশ বছরের শাস্তি দেওয়া হয়েছে। অথচ তার সেই দুই কোটি টাকা আজ ফুলে ফেঁপে আট কোটি টাকা হয়েছে। এই রকম কেসে জেল না দিয়ে তাকে তো পুরুস্কৃত করা উচিত। সেখানে তাকে প্রথমে দেওয়া হলো পাঁচ বছরের জেল। সরকারের মন ভরলো না।

হাইকোর্টে আপিল করলো। সরকার আপিল করলে সেই জেলের মেয়াদ বাড়ানো হলো পাঁচ বছর। মোট ১০ বছর। এখানেই তো সরকারের রাজনৈতিক মতলব বোঝা গেছে।

দুই
বিএনপি যখন তার জামিন নিয়ে আপিল বিভাগে যায় তখন ইনকিলাবের এই কলামে আমি তার তীব্র বিরোধিতা করেছিলাম। আমার বক্তব্য ছিলো এই যে, আপিল বিভাগেও তার জামিন মিলবে না বরং হাইকোর্টের জামিন প্রদানে অস্বীকৃতি আপিল বিভাগ কনফার্ম করবে। আর তাই যদি হয় তাহলে বেগম জিয়ার জামিনে বেরিয়ে আসার সব রাস্তা বন্ধ হয়ে যাবে।

তখন একমাত্র রাস্তা থাকবে দেশের প্রেসিডেন্ট। প্রেসিডেন্টের কাছে যেতে হলে দোষ স্বীকার করতে হবে এবং ক্ষমা চাইতে হবে। আমাদের বিশ্বাস প্রাণ গেলেও বেগম জিয়া এই কাজটি করবেন না। কিন্তু বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব কারো কথা না শুনে আপিল বিভাগেই বিষয়টি নিয়ে গেলো। এবং যা ঘটবার তাই ঘটলো।

কেন দুই বছর ধরে আদালতে দৌড়াদৌড়ি করে বিএনপি মূল্যবান সময় নষ্ট করলো? এই আমি সহ সর্বশ্রেণীর মানুষ বলছেন যে, বেগম জিয়ার মুক্তি চাইলে বিএনপিকে রাজপথে নামতে হবে। কথায় বলে, গরীবের কথা নাকি বাসি হলে ফলে। তাই গত শনিবার নয়াপল্টন বিএনপি অফিসের সামনে অনুষ্ঠিত এক বিরাট জন সমাবেশে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন যে, আমরা অনেক কথা বলেছি। সভা করেছি, অনেক দাবি জানিয়েছি, নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। এখন আমাদের একটাই কথা- দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবোই। সরকারকে বাধ্য করবো তাকে মুক্তি দিয়ে জনগণের সব অধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য। এটাই এখন বিএনপির একমাত্র কাজ।

গত শনিবারের সমাবেশ সম্পর্কে দৈনিক ইনকিলাবের প্রথম পৃষ্ঠায় যে রিপোর্ট করা হয়েছে তার অংশ বিশেষ নিম্নরূপ। ‘খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে বজ্রকণ্ঠে স্লোগান তুলে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার নেতাকর্মীরা ছুটতে থাকেন। নির্ধারিত সময় বেলা দুইটার আগেই মিছিলে মিছিলে সমাবেশ জনসমুদ্রে রূপ নেয়। নেতা-কর্মীরা খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে স্লোগানে স্লোগানে মুখর করে তুলে গোটা এলাকা। সমাবেশে উপস্থিত লাখো নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের কণ্ঠে উচ্চারিত হয় ‘মুক্তি মুক্তি মুক্তি চাই, খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই’। নানা স্লোগানের পাশাপাশি সিটি নির্বাচনে ভোটচুরির বিরুদ্ধে ‘শেখ হাসিনা ভোট চোর, শেখ হাসিনা ভোট চোর’ স্লোগানও দেয়।

বেলা ২টায় কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হয় সমাবেশে বক্তৃতার পর্ব। বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকরা তাদের বক্তব্যে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার জন্য কঠোর থেকে কঠোরতর কর্মসূচি ঘোষণার দাবি জানান। রক্ত দিয়ে, জীবন দিয়ে হলেও তারা সেসব কর্মসূচি সফল করার অঙ্গীকারও করেন।’

একটি কথা আমাদের মাথায় আসেনা যে আওয়ামী সরকার যখন বেগম জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা করে এবং মামরা করতে করতে তাকে জেলেও ঢুকায় তখন নিশ্চয়ই তাকে মুক্তি দেওয়ার জন্য জেলে ঢুকায়নি।

আওয়ামী লীগ যখন বিএনপির সাথে রাজনৈতিক গেম খেলছে তখন বিএনপিও তো আওয়ামী সরকারের সাথে রাজনৈতিক গেম খেলতে পারতো। বিএনপির পক্ষেও তো রাজনৈতিক তাস খেলায় আওয়ামী লীগকে টেক্কা দেওয়ার সুযোগ ছিলো। প্রধানমন্ত্রীর সাথে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের বৈঠক হলো।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম