1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
সাগর-রুনির হত্যা ৭০ বার বলা হলো ‘তদন্ত চলছে’ হতাশায় কালো মেঘের ছায়া আজ আট বছর - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৬:৫৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের অভিযানে ৬ জন গ্রেফতার – মাদক উদ্ধার ! ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে প্রচার যুদ্ধ, চেয়ার দখলে দ্বিমুখী লড়াই ! Situs Slot Gacor Pragmatic Bet 200 Resmi mudah Menang dan Terpercaya ঈদগাঁওতে ৬ দিন পর নির্বাচনী সহিংসতায় কর্মী খুনের মামলা কয়েক শত মাছের ঘের প্লাবিত হয়ে একাকার রাঙ্গাবালীতে ঘূর্ণিঝড় রিমালের তান্ডবে ক্ষয়ক্ষতি ২০ গ্রাম প্লাবিত আইপিএল এ সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে ফাইনালে রীতিমতো বিধ্বস্ত করে শিরোপা জিতে নিল কলকাতা নাইট রাইডার্স তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে এনে সাজা দেওয়া হবে -প্রধানমন্ত্রী ইনাতগঞ্জ ডিগ্রী কলেজে অধ্যক্ষ ও শিক্ষকের অপসারণের দাবিতে শিক্ষার্থীদের অবস্থান কর্মসূচি পালন।। ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম ঠাকুরগাঁওয়ে শিশুর পুরুষাঙ্গে ইট বেঁধে ভিডিও, ৩ কিশোর আটক

সাগর-রুনির হত্যা ৭০ বার বলা হলো ‘তদন্ত চলছে’ হতাশায় কালো মেঘের ছায়া আজ আট বছর

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
  • ১৬২ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার |
হতাশায় সময় কাটছে পরিবারের। কারো কিছু জানা নেই। স্বজনদের তথ্য দিচ্ছে না র‌্যাব। ‘চেষ্টা চলছে’ জানিয়ে আদালতে র‌্যাবের সময় প্রার্থনা বারবার। মামলার অগ্রগতি জানাতে সময় চাওয়ার সেই সংখ্যা দাঁড়াল ৭০। চাঞ্চল্যকর সাগর-রুনি হত্যা মামলার অগ্রগতি সেই একই বৃত্তে সীমাবদ্ধ। ‘৪৮ ঘণ্টার মধ্যে অপরাধী গ্রেপ্তার’—তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সেই আশ্বাসের পর আট বছর কেটেছে।

আজ ১১ ফেব্রুয়ারি সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনি খুনের আট বছর পূর্ণ হচ্ছে। হতাশার আরেকটি বছর কাটল স্বজনদের। দুই সন্দেহভাজন খুনিকে শনাক্তের কথা বলে ৭০ বার আদালতে সময় প্রার্থনা করলেও র‌্যাব কোনো অগ্রগতি দেখাতে পারেনি। শেষ দফায় আদালতে প্রতিবেদন দাখিলের দিন নির্ধারিত আছে আজ সোমবার। র‌্যাব কর্মকর্তারা বলছেন, কিছু অগ্রগতি আছে। খুনি শনাক্তের চেষ্টা আছে বলেও দাবি র‌্যাবের। তবে সাগর-রুনির স্বজন ও সহকর্মীরা বলছেন, তদন্ত একেবারে স্তিমিত হয়ে পড়ে আছে।

২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের ভাড়া বাসা থেকে উদ্ধার করা হয় মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সরওয়ার ও এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন রুনির ক্ষতবিক্ষত লাশ। এ সময় বাসায় ছিল তাঁদের একমাত্র সন্তান মাহির সরওয়ার মেঘ। ঘটনাস্থলে গিয়ে তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন বলেছিলেন, ‘৪৮ ঘণ্টার’ মধ্যে খুনিদের গ্রেপ্তার করা হবে। দুই দিন পর তৎকালীন পুলিশের আইজি হাসান মাহমুদ খন্দকার বলেছিলেন, ‘প্রণিধানযোগ্য অগ্রগতি’ হয়েছে। তখন গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) দুই মাস তদন্তের পর ‘ব্যর্থতা’ জানালে আদালত র‌্যাবকে তদন্তভার দেন। তারা সাত বছর ১০ মাস ধরে তদন্ত করছে। এ সময়ে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য আদালতের কাছে ৭০ বার সময় প্রার্থনা করেন র‌্যাবের তদন্ত কর্মকর্তা। গত ৩০ ডিসেম্বর ঢাকা মহানগর হাকিম দেবব্রত বিশ্বাসের আদালত ৭০ বারের মতো সময় বাড়িয়ে আজ (১০ ফেব্রুয়ারি) তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য করেন।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানিয়েছে, র‌্যাবের ৬৯টি অগ্রগতি প্রতিবেদনেই ‘গুরুত্বসহকারে তদন্ত চলছে’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। প্রায় ২০০ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করার কথাও বলা হয়েছে। সন্দিগ্ধ আসামিদের তালিকা প্রস্তুত করে তাদের নাম ও ঠিকানা যাচাই এবং পূর্ব ইতিহাস জানার জন্য গতিবিধি, চাল-চলন গভীর ও নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণের কথা বলা হয়। ডিএনএ প্রতিবেদন পাওয়ার কথা বলা হলেও চুরি যাওয়া ল্যাপটপ পাওয়া যায়নি বলে উল্লেখ করা হয়। ঘটনাস্থল থেকে জব্দ হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরি, বঁটি, ছুরির বাঁট, সাগর-রুনির পরনের কাপড়, সাগরের হাত-পা যে কাপড় দিয়ে বাঁধা হয়েছিল সেই কাপড় ও রুনির পরনের টি-শার্ট পাঠানো হয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রের ল্যাবরেটরিতে।

২০১৫ সালের ২ ফেব্রুয়ারি দাখিল করা এক প্রতিবেদনে তদন্ত কর্মকর্তা আদালতকে জানান, যুক্তরাষ্ট্রের পরীক্ষাগার থেকে ডিঅক্সিরাইবোনিউক্লিক এসিড (ডিএনএ) পরীক্ষার রিপোর্টগুলো পাওয়া গেছে। সে রিপোর্ট ও অপরাধচিত্রের প্রতিবেদন (ক্রাইম সিন রিপোর্ট) পর্যালোচনায় দুজন পুরুষের ডিএনএর পূর্ণাঙ্গ প্রফাইল পাওয়া গেছে। গ্রেপ্তারকৃত আট আসামি, নিহত দুজন এবং স্বজন মিলে ২১ জনের ডিএনএ নমুনা পরীক্ষার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানো হয়েছিল। এসব পরীক্ষায় সন্দেহভাজন খুনি শনাক্ত হয়নি। এই মামলায় গ্রেপ্তারকৃত আটজনের মধ্যে পাঁচজন—রফিকুল, বকুল, সাইদ, মিন্টু ও কামরুল হাসান ওরফে অরুণ মহাখালীর বক্ষব্যাধি হাসপাতালের চিকিৎসক নারায়ণচন্দ্র রায় হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত। গ্রেপ্তার দেখানো হয় পারিবারিক বন্ধু তানভীর এবং বাসার নিরাপত্তাকর্মী পলাশ রুদ্র পাল ও হুমায়ূন কবীর। এদের মধ্যে তানভীর, মিন্টু ও পলাশ হাইকোর্ট থেকে জামিন পেয়েছে। বাকিরা এখনো কারাগারে আছে।
মামলার বাদী ও রুনির ভাই নওশের আলম রোমান শ্যামল বাংলাকে বলেন, ‘এখন কী তদন্ত হচ্ছে তাও আমাদের জানা নেই। গত এক বছরের মধ্যে একবার শুধু আইও (তদন্ত কর্মকর্তা) ফোন দিয়েছিলেন। এ ছাড়া কিছু জানি না।’

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল সারওয়ার বিন কাশেম বলেন, ‘মামলার তদন্ত চলছে। কিছু বিষয়ে অগ্রগতিও আছে। পরে এ বিষয়ে আমরা জানাব।’

মা-বাবা খুনের সময় পাঁচ বছরের মেঘের বয়স এখন ১৩ বছর। রাজধানীর ইন্দিরা রোডে নানার বাসায় মামার সঙ্গে থাকছে সে। গুলশানের একটি স্কুলে সপ্তম শ্রেণিতে পড়ছে মেঘ। এবার বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে (বিকেএসপি) ক্রিকেট বিভাগে ভর্তির আবেদন করে ক্যাম্পেও গেছে মেঘ। স্বজনরা জানায়, সাকিবের মতো বড় ক্রিকেটার হতে চায় মেঘ। চিকিৎসকের পরামর্শে স্বজনরা মেঘকে মা-বাবার স্মৃতি আঁকড়ে থাকতে দেন না। তবে প্রায় মা-বাবার কথা বলে সে।

এদিকে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) ভিন্ন মামলায় মেহেরুন রুনির পরিচিত শান্ত ওরফে ডন ও তার সহযোগী সারোয়ার হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে সম্প্রতি। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সাগর-রুনি খুনের সঙ্গে এরা জড়িত কি না তা খতিয়ে দেখছে সিআইডি। ডন ও সারোয়ারের আরেক সহযোগীকেও খুঁজছে সিআইডির তদন্তকারীরা।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম