1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
১৫-১৭% জনসমর্থন নিয়ে মেয়র - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৩৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
গাজীপুর টঙ্গীতে ইয়াবা ট্যাবলেট ও গাঁজা সহ গ্রেপ্তার ২ আরএমপি’র উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন করলেন পুলিশ কমিশনার ঠাকুরগাঁওয়ে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা । বাড়ির আঙ্গিনায় মাল্টা চাষ করে সফলতার মুখ দেখছেন ইউপি সচিব কাজী কামাল উদ্দিন বহুমুখী ব্যবহার ঠাকুরগাঁওয়ে পাটখড়ির কদর বেড়েছে ! চৌদ্দগ্রামে ৫ কেজি গাঁজাসহ আটক ১ অধ্যক্ষ ইসমাঈল এর স্মরণ সভা আয়োজন করলো ফতেয়াবাদ কলেজ নবীনগরে বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের উদ‍্যোগে সাংস্কৃতিক কার্যক্রম অনুষ্ঠিত শ্রীপুরে পিকআপের ধাক্কায়৷ বেকারি কারখানার পরিবেশক নিহত নবীনগরে ধারাবাহিক মূল‍্যায়ন অভ‍্যন্তরীন প্রশিক্ষণের সমাপনী অনুষ্ঠিত

১৫-১৭% জনসমর্থন নিয়ে মেয়র

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ৫৮ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার :
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতিকুল ইসলাম মোট ভোটারের মাত্র ১৪ দশমিক ৮৪ শতাংশের সমর্থন নিয়ে মেয়রের চেয়ারে বসতে যাচ্ছেন। অন্যদিকে ঢাকা দক্ষিণে মোট ভোটারের ১৭ দশমিক ৩০ শতাংশের সমর্থন নিয়ে মেয়রের দায়িত্ব নিচ্ছেন আওয়ামী লীগের শেখ ফজলে নূর তাপস।

ভোট পড়ার হার উত্তরে ২৫ দশমিক ৩০ শতাংশ এবং দক্ষিণে ২৯ শতাংশ। অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় এবার কমসংখ্যক ভোটারের সমর্থন নিয়ে মেয়রের দায়িত্ব নিতে হচ্ছে ক্ষমতাসীন দলের দুই প্রার্থীকে। ভোটের পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ক্রমে ভোটের প্রতি মানুষের আগ্রহ কমছে। তবে সর্বশেষ এই ভোটের হার নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করছেন অনেকে।

বিশ্লেষকেরা বলছেন, ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনের পর থেকে ভোটের প্রতি একধরনের অনাগ্রহ তৈরি হতে থাকে। বিভিন্ন নির্বাচনে নানা অনিয়ম ও জবরদখলের ঘটনায় নির্বাচনব্যবস্থা ও নির্বাচন কমিশনের (ইসি) প্রতি মানুষের আস্থা নষ্ট হয়েছে। নির্বাচন ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। ফল নির্ধারণে ভোটারদের গুরুত্ব নেই—এমন একটি ধারণা তৈরি হয়েছে। এ কারণে বড় অংশের ভোটারের মধ্যে ভোটবিমুখতা তৈরি হয়েছে।

বিশ্লেষকেরা ভোটের প্রতি আগ্রহ কমে যাওয়ার আরও কয়েকটি নতুন কারণের কথা বলছেন। যেমন মানুষ এখন গণতান্ত্রিক চর্চার বিষয়ে কিছুটা উদাসীন বা প্রত্যাশাহীন হয়ে পড়েছেন। ভোটের ফল নিয়ে সাধারণ মানুষের খুব বেশি মাথাব্যথা নেই। কারণ, এখানে তাঁদের পাওয়ারও কিছু নেই। তা ছাড়া মানুষ হয়তো কোনো ঝামেলায়ও জড়াতে চান না। ব্যক্তিগত নিরাপত্তাই এখন মানুষের কাছে প্রধান। এটাকেই বড় করে দেখছেন তাঁরা। বলা যায়, আস্থা বা নিরাপত্তাহীনতার কারণেই মানুষ গণতন্ত্রবিমুখ হয়ে পড়ছেন।

এক–তৃতীয়াংশ মানুষও কেন্দ্রে যাননিঃ

গত শনিবার অনুষ্ঠিত হলো ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নির্বাচন। ঢাকা উত্তরে মোট ভোটার ৩০ লাখ ১২ হাজার ৫০৯ জন। ভোট দিয়েছেন ৭ লাখ ৬২ হাজার ১৮৮ জন। প্রায় ৭৫ শতাংশ মানুষ ভোটকেন্দ্রে যাননি। আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতিকুল ইসলাম ৪ লাখ ৪৭ হাজার ২১১ ভোট পেয়েছেন। অর্থাৎ তিনি মোট ভোটারের ১৪ দশমিক ৮৪ শতাংশের সমর্থন পেয়ে মেয়র হয়েছেন। অবশ্য তিনি প্রদত্ত ভোটের ৫৮ দশমিক ৬৭ শতাংশ পেয়েছেন।

গত বছরের মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র পদে উপনির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ ছিল না। কিন্তু সে নির্বাচনেও ৩১ দশমিক ৫ শতাংশ ভোট পড়েছিল। আর এর আগে ২০১৫ সালে উত্তরের মেয়র নির্বাচনে ভোটের হার ছিল ৩৭ দশমিক ৩ শতাংশ। বিএনপি মাঝপথে সে নির্বাচন বর্জন করেছিল।

এবার ঢাকা দক্ষিণে মোট ভোটার ২৪ লাখ ৫৩ হাজার ১৫৯ জন। ভোট পড়েছে ৭ লাখ ১৩ হাজার ৫০টি। ৭১ শতাংশ মানুষ ভোটকেন্দ্রে যাননি। ৪ লাখ ২৪ হাজার ৫৯৫ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের শেখ ফজলে নূর তাপস। তিনি নির্বাচনী এলাকার মোট ভোটারের মাত্র ১৭ দশমিক ৩০ শতাংশের সমর্থন পেয়েছেন। তবে তিনি প্রদত্ত ভোটের ৫৯ দশমিক ৫৪ শতাংশ পেয়েছেন।

২০১৫ সালে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে ভোট পড়ার হার ছিল ৪৮ শতাংশ।

প্রধান দুই প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ ও বিএনপি এবারও রাজনীতির মাঠে সক্রিয় ছিল। প্রচারণায় দুই দলের প্রার্থীরা সরব থাকলেও এক–তৃতীয়াংশ ভোটারও ভোটকেন্দ্রে যাননি। প্রথমবারের মতো পুরোপুরি ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএমে) অনুষ্ঠিত এ নির্বাচন ছিল নিয়ন্ত্রিত। ভোটার যন্ত্রে আঙুলের ছাপ দেওয়ার পর ব্যালট উন্মুক্ত হলে অনেক জায়গায় অবাঞ্ছিত ব্যক্তিরা গোপন কক্ষে ভোট দিয়ে দেন। এই অবাঞ্ছিত ব্যক্তিরা সরকারদলীয়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাঁরা ‘ভোট সহায়ক’ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন।

২০১৪ সালের নির্বাচনের পর থেকে ভোটের প্রতি আগ্রহ কমছে। মানুষ ভাবছে, ভোট দেওয়া না-দেওয়া সমান।

তবে দুই সিটির নির্বাচনকে ১০০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে অবাধ, শান্তিপূর্ণ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হিসেবে অভিহিত করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। অবশ্য স্বাধীনতা–পরবর্তী সময়ে গত মাসে চট্টগ্রাম–৮ আসনের উপনির্বাচন ছাড়া এত কম ভোট পড়ার নজির আর দেখা যায়নি। এ উপনির্বাচনে ভোট পড়েছিল ২৩ শতাংশ।

জানতে চাইলে সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম সাখাওয়াত হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, ২০১৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ না করা, বিরোধী দলের সহিংসতা এবং বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রার্থীরা বিজয়ী হওয়ায় নির্বাচন নিয়ে ভোটারদের অনীহার সূচনা ঘটে। এরপর ২০১৪ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ত্রুটিপূর্ণ ব্যবস্থাপনা, অনিয়ম এবং ভোট কারচুপির ব্যাপক ও দৃশ্যমান অভিযোগ এবং এসব অভিযোগের ব্যাপারে নির্বাচন কমিশনের নিষ্ক্রিয়তা ভোটারদের মধ্যে চূড়ান্ত হতাশা তৈরি করে। তিনি বলেন, এভাবে চলতে থাকলে একটি দেশ উদার গণতান্ত্রিক থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ভাষায় নিয়ন্ত্রিত গণতন্ত্রের দিকে চলে যায়।

সাম্প্রতিক একটি জরিপের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ওই জরিপ অনুযায়ী প্রায় ৮৫ শতাংশ মানুষ আওয়ামী লীগকে সমর্থন করেছে। তাহলে আওয়ামী লীগের ভোটাররাও কি ভোট দিতে যাননি? তাঁরা আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন নাকি তাঁরা ধরে নিয়েছেন, তাঁদের দল জয়ী হবে, এ কারণে ভোট দিতে হবে না।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম