1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
খালেদার ফেরার অপেক্ষায় প্রস্তুত ফিরোজা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৭:২৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
পোকখালী’র ইউপি চেয়ারম্যান জামিনে মুক্ত চৌদ্দগ্রামে ইউনাইটেড ফর হিউমিনিটি’র অভিষেক ও দুর্ঘটনায় আহত শিক্ষকের মাঝে অর্থ হস্তান্তর ভিসির নির্দেশে বন্ধ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজন, মানেনি কুবি শিক্ষকরা ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিলের সাথে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের মতবিনিময় ফুলবাড়িতে ত্রিমুখী লড়াইয়ে এগিয়ে জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী ঘূর্ণিঝড়ে রাউজানে দুইটি ঘর বিধ্বস্ত, বিচ্ছিন্ন  বিদ্যুৎ সংযোগ  রাশিয়া তালেবানকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে বৃহত্তর বার্ষিক অর্থনৈতিক ফোরামে উদাহরণ দিয়ে বলতে পারবেন না, কোথাও আমরা মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছি – সেনা প্রধান  ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জের রেজিয়া হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন বিষয়ে – পুলিশের প্রেস ব্রিফিং ! Kumpulan Situs Joker Roma 123 Mudah Maxwin Hari Ini

খালেদার ফেরার অপেক্ষায় প্রস্তুত ফিরোজা

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৫ মার্চ, ২০২০
  • ১৩১ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার |
২ বছর ১ মাস ১৬ দিন পর আড়মোড়া ভাঙছে গুলশান-২ এর ৭৯ নম্বর রোডের ১ নম্বরের ফ্যাকাশে রঙের বাড়িটি। আজ মুক্তি পেয়েই এই বাড়িতেই ফিরবেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ধোয়ামোছা শেষ গোছগাছ শেষ। এবার খালেদার ফেরার অপেক্ষা।

গৃহপরিচারকের কাজে যুক্ত ৫ জন আর নিরাপত্তারক্ষায় নিয়োজিত ১৬ জনের ব্যস্ততা ফিরেছে ফিরোজায়। গতকাল মঙ্গলবার শেষ বেলায় খালেদার মুক্তির খবরে আশপাশে স্বল্পসংখ্যক মানুষ ভিড় করেন। প্রিয় নেত্রীর মুক্তির খবরে ভিড় জমাতে চাইলেও নিরাপত্তারক্ষীরা তাদের ফিরিয়ে দিচ্ছেন করোনা ভাইরাসের বিশেষ পরিস্থিতির কথা ভেবে।

নিরাপত্তারক্ষীরা ভেতরে প্রবেশে বাধা দিয়ে জানান, ভেতরে চলছে ধোয়ামোছার কাজ। বাইরের কারো প্রবেশ মানা। তারা বলেন, ম্যাডাম কারাগারে যাওয়ার পর থেকে এখানে নেতাকর্মীদের আসা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। আজ তার মুক্তির খবর শোনার পর থেকে বেশ কিছু নেতাকর্মী এসেছেন। এখন আবার এই বাড়ি প্রাণ ফিরে পাবে। গতকাল মঙ্গলবার বিকালে খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণার পর তার ভাই শামীম ইস্কান্দর গণমাধ্যমকে বলেন, তিনি মুক্তি পাওয়ার পর এখন যে বাসভবন ফিরোজা সেখানেই উঠবেন।

কারাগারে যাওয়ার আগে ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি ফিরোজা থেকেই আদালতের উদ্দেশে বেরিয়েছিলেন খালেদা জিয়া। ২০১২ সালের ২১ এপ্রিল গুলশান-২ এর ৭৯ নম্বর রোডের বাসভবন ফিরোজায় ওঠেন তিনি। এই বাড়িটি বিএনপি নেতা মেজর (অব.) কামরুল ইসলামের ছেলে তানভীর ইসলামের। ক্যান্টনমেন্টের মঈনুল হোসেন রোডের বাড়িটি আদালতের রায়ে হারানোর পর কিছুদিন খালেদা জিয়া তার ভাই শামীম ইস্কান্দারের বাড়িতে ছিলেন। এরপর ফিরোজায় বসবাস শুরু করেন। ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি এই বাড়ি থেকেই পুরান ঢাকার আলিয়া মাদ্রাসা মাঠের অস্থায়ী আদালতে এসেছিলেন তিনি। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়ে সাজা হওয়ায় সেখান থেকে সরাসরি পুরান ঢাকার সাবেক কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে।

সূত্র জানায়, ২০১১ সালে মোসাদ্দেক আলী ফালু মাসিক ৩ লাখ টাকা ভাড়ায় ৩ বছরের জন্য ফিরোজা ভাড়া নেন। এরপর দুদফায় চুক্তি আবার নবায়ন করা হয়। সর্বশেষ চুক্তিটি নবায়নের পর গত বছরের নভেম্বরে এর মেয়াদ শেষ হয়। গত এক বছরে সেখানে দুবার এসেছিলেন খালেদা জিয়ার প্রয়াত ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান। দুই মেয়ে জাহিয়া রহমান ও জাফিয়া রহমানকে নিয়ে এসেছিলেন তিনি। তবে খালেদা জিয়ার ছোট ভাইয়ের স্ত্রী কানিজ ফাতেমা প্রায়ই এসে বাড়িতে অবস্থানরত লোকজনের খোঁজখবর নিয়ে যান। জানা গেছে, দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল দলের নেতাকর্মীদের ফিরোজায় ভিড় না বাড়াতে নির্দেশ দিয়েছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম