1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মুজিব ভক্তদের দমাতে পারেনি করোনাও - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:০০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীগঞ্জে পুলিশের বিশেষ অভিযানে ৩ কেজি ৬০০ গ্রাম গাঁজাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার প্রতি বছরের ন্যায় এবারও পর্দা নামল শেখ রাসেল ডেভেলপমেন্ট কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট-অনুর্ধ ১৫ নিজস্ব পিসিএনপির খাগড়াছড়ির জেলা সম্মেলন; সভাপতি ইঞ্জি: লোকমান সম্পাদক এসএম মাসুম রানা উন্নয়নের প্রতিটি আপনারা তদারকি করবেন ফাঁকিবাজদের ছাড় দেবেন না -অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খাঁন ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে বার্বাডোস চৌদ্দগ্রামে সাংবাদিক মীরুকে প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগ নবীনগরে মোবাইল কোর্টে এসিল্যান্ডের উচ্ছেদ অভিযান চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় ২ যুবক নিহত ঠাকুরগাঁওয়ে নিখোঁজের ২ দিন পরে শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার করেছ পুলিশ চৌদ্দগ্রামে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে জরিমানা ও কারাদন্ড

মুজিব ভক্তদের দমাতে পারেনি করোনাও

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৮ মার্চ, ২০২০
  • ১১৫ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার |
বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাস আতঙ্কও দমাতে পারেনি মুজিব ভক্তদের। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের অনুষ্ঠানে স্বতঃস্ফ‚র্তভাবে শামিল হয়েছেন তারা। গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে রাত অবধি চলা সব কর্মসূচিতেই ছিল মুজিব ভক্তদের ভিড়। ধানমন্ডির বঙ্গবন্ধু ভবন থেকে শুরু করে জাতির পিতার সমাধিস্থল টুঙ্গিপাড়ায়, এমনকি প্রতিটি জেলা, উপজেলা, ইউনিয়নসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে ক্ষুদ্র পরিসরে অনুষ্ঠিত প্রতিটি কর্মসূচিতে ঢল নামে ভক্তদের। তাদের মতে, জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী তো আর বারবার পালনের সৌভাগ্য হবে না। তাই ইতিহাসের অংশ হতে তাকে শ্রদ্ধা জানাতে ঘর থেকে বের হয়েছেন তারা। যদিও স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে বারবার জনসমাগম এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এমনকি বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া কেউ যেন ঘর থেকে বের না হয় সে ব্যাপারেও দেয়া হয়েছে নির্দেশনা। কাটছাঁট করা হয়েছে মুজিববর্ষের নানা আয়োজনও।

ধানমন্ডি-৩২ নম্বরের বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানানোর মধ্য দিয়ে গতকাল মঙ্গলবার সকালে মুজিববর্ষের কর্মসূচি শুরু হয়। সকাল ৭টায় বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারপ্রধান হিসেবে প্রথমে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন বোন শেখ রেহানা ও কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল। শেখ হাসিনা সেখানে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে ছিলেন। সেনাবাহিনীর একটি সুসজ্জিত দল তাকে অভিবাদন জানায়। এরপর আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে নিয়ে দলের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তিনি। এরপর জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

প্রধানমন্ত্রী চলে যাওয়ার পর বঙ্গবন্ধু ভবন সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। এর আগে সকাল ৬টা থেকে দলীয় নেতাকর্মী, হাজারো মুজিব ভক্তসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতাকর্মীরা শ্রদ্ধা জানাতে ভিড় করেন ওই এলাকায়। তাদের অনেকের পরনে ছিল মুজিববর্ষের লোগো সম্বলিত টি-শার্ট। এ সময় উপস্থিত হাজারো নারী-পুরুষের কণ্ঠে উচ্চারিত ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’, ‘লাল সবুজের পতাকায় মুজিব তোমায় দেখা যায়।’ এসব স্লোগানে পুরো এলাকার পরিবেশ মুখরিত হয়ে ওঠে। নেতাকর্মীদের ভিড় সামলাতে হিমশিম পোহাতে হয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদেরও।

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর ও দক্ষিণ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, জাতীয় শ্রমিক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, কৃষক লীগ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করে। এছাড়া স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, মুক্তিযোদ্ধা ফাউন্ডেশনসহ বিভিন্ন সংগঠন এবং সর্বস্তরের মানুষ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন। এরপর সকাল ৯টায় তেজগাঁও বিমানবন্দর থেকে হেলিকপ্টারযোগে টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশে রওয়ানা হন প্রধানমন্ত্রী। সেখানে পৌঁছে জাতির পিতার সমাধিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তিনি। রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদও জাতির পিতার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকেও। জাতীয় সংসদের স্পিকার, চিফ হুইপ ও হুইপরাও শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

রাত ৮টায় ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শুরু হয় আতশবাজি। লাইভ সম্প্রচারের মাধ্যমে শুরু হয় এ দিবসটি। ‘মুক্তির মহানায়ক’ শিরোনামের অনুষ্ঠানে প্রথমে জাতীয় সংগীত পরিবেশিত হয়। এরপর রাষ্ট্রপতির বাণী, প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ, তার বোন শেখ রেহানার অনুভূতি প্রকাশ ও তার লেখা কবিতা প্রধানমন্ত্রীর কণ্ঠে পাঠ, বিভিন্ন দেশ ও সংস্থাপ্রধানদের ভিডিও বার্তা প্রচার করা হয়।

বঙ্গবন্ধুর জন্মদিবসটি জাতীয় শিশু দিবস বিধায় শত শিশুর কণ্ঠে জাতীয় সংগীত ও দলীয় সংগীতের পরিবেশনা হয়। শত শিল্পীর পরিবেশনায় যন্ত্রসংগীত, মুজিববর্ষের থিম সং, বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মকে তুলে ধরে একটি থিয়েট্রিকাল পারফরমেন্স ও বিশ্বখ্যাত কোরিওগ্রাফার আকরাম খানের পরিবেশনাও ছিল অনুষ্ঠানে। প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী প্রোগ্রামের শেষে জাতীয় সংসদের দক্ষিণ প্লাজা থেকে পিক্সেল ম্যাপিংয়ের লাইভ সম্প্রচারের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হয়।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যান থেকে শুরু করে হাতিরঝিলসহ রাজধানীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অনুষ্ঠিত আতশবাজিতে নামে জনতার ঢল। বিকাল থেকেই এসব স্থানে ভিড় করতে থাকে হাজার হাজার মানুষ। প্রত্যেকের একটাই উদ্দেশ্য মুজিববর্ষে নিজেকে ইতিহাসের সাক্ষী হিসেবে স্মরণীয় করে রাখা।

দিনব্যাপী কর্মসূচি পালিত হয়েছে সারাদেশেই। জেলা, উপজেলা প্রশাসনসহ দলীয় নেতাকর্মীরা দিবসটি উদযাপন করেন। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে সাদামাটাভাবে পালিত হয়েছে দিবসটি। বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন তারা। প্রতিটি কর্মসূচিতেই দেখা গেছে হাজারো মানুষের ঢল।

কর্মসূচি পালন করেছে বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠন। এমনকি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোতেও পালিত হয়েছে দিবসটি। বিনামূল্যে সার্জারি, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসাসেবা, ওপেন হার্ট সার্জারি, স্বেচ্ছায় রক্তদানসহ নানা কর্মসূচির মাধ্যমে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে ১০০ হাফেজকে দিয়ে ১০০ বার কোরান খতম দেয়া হয়। ধানমন্ডিতে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা জানায় বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশন। এছাড়া রাত ৮টায় বঙ্গভবনের গ্যালারিতে বঙ্গবন্ধুর ওপর প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনের পর দরবার হলে বিশেষ মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম