1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
শিক্ষা ভবনের টিস্যুবক্সে এবার জাতির পিতার ছবি! - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৬:৫৫ অপরাহ্ন

শিক্ষা ভবনের টিস্যুবক্সে এবার জাতির পিতার ছবি!

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৬ মার্চ, ২০২০
  • ১৩১ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার :
সম্প্রতি বগুড়ার পুলিশ লাইনস স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবনির্মিত বঙ্গবন্ধু একাডেমিক ভবন উদ্বোধন করতে গেলে সেখানে উপস্থিত শত শত শিক্ষার্থী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মুখোশ পরে তাকে স্বাগত জানান। এ নিয়ে দেশব্যাপী সমালোচনার সৃষ্টি হয়। বিষয়টি নিয়ে দীপু মনিকে ভর্ৎসনা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও। আর সমালোচনার মধ্যেই আরেকটি কাণ্ড ঘটিয়েছে ‘দুর্নীতি ভবন’ হিসেবে পরিচিত মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের কতিপয় জামায়াতপন্থী শিক্ষা ক্যাডার কর্মকর্তা। এবার তারা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি ছেপে দিয়েছে টিস্যু বক্সে। এই টিস্যু পেপারগুলো ব্যবহার করবেন শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (চলতি দায়িত্ব)সহ সব পরিচালক, উপপরিচালক ও সহকারী পরিচালক ও অন্যান্য কর্মকর্তারা। সুত্র- দৈনিক শিক্ষা

অনুসন্ধানে জানা যায়, সাত-আটমাস আগে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) তাদের লোগো ব্যবহার করে এক হাজার টিস্যু বক্স তৈরি করার সিদ্ধান্ত নেয়। সেভাবেই এসএমএস টেকনলোজিস নামের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ দেয়া হয়। কিন্তু শিক্ষা অধিদপ্তরের দুইজন শিবিরপন্থী উপ-পরিচালক টিস্যুবক্সে অধিদপ্তরের লোগোর পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর ছবিও জুড়ে দেয় টিস্যু বক্সে। শুধু তাই নয়, সেই টিস্যু বক্সের দামও ধরা হয় অনেক বেশি। প্রতিটি টিস্যু বক্সের দাম ধরা হয়েছে ৫৬ টাকা। যা বাজারে পাইকারি দরে ত্রিশ টাকায় পাওয়া যায়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি সম্বলিত এই এক হাজার প্রশ্নবিদ্ধ টিস্যু বক্স এখন শিক্ষা ভবনের মূল ভবনের নীচ তলার স্টোর রুমে রাখা হয়েছে।

গত ২৯ ফেব্রুয়ারি শনিবার বগুড়া পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজে মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির হিসেবে অংশ নেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। সকালে শিক্ষামন্ত্রী অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছালে শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতির মুখোশ পরে শিক্ষামন্ত্রীকে স্বাগত জানান। যার প্রতিবাদ করেননি শিক্ষামন্ত্রী। এ নিয়ে গত ২ মার্চ মন্ত্রিপরিষদ সভায় ডা. দীপু মনির ওপর বিরক্তি প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর মুজিববর্ষে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালির ছবি ছাপানো টিস্যুবক্স কর্মকর্তাদের টেবিলে-টেবিলে দেয়াটা কতটা যুক্তিযুক্ত, তা নিয়েও আছে প্রশ্ন।

অনুসন্ধানে জানা যায়, টিস্যু বক্সে শুধু মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের লোগো ব্যবহারের লিখিত নির্দেশনা থাকলেও তাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি জুড়ে দেয়ার আইডিয়া দুইজন উপ-পরিচালকের। জামাতপন্থী এই দুই অতিউৎসাহী কর্মকর্তাই টিস্যু সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানকে টিস্যুবক্সে বঙ্গবন্ধুর ছবি ছাপানোর নির্দেশনা দিয়েছিলেন। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কর্তারাও এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এ ব্যাপারে মতামত জানার জন্য মহাপরিচালকের চলতি দায়িত্বে থাকা অধ্যাপক ড. মো: গোলাম ফারুককে ফোন করা হলেও পাওয়া যায়নি। তার অফিস থেকে জানানো হয় তিনি ঢাকার বাইরে গেছেন।

এর আগে ২০১৭ খ্রিষ্টাব্দের ১৮ ডিসেম্বর আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে স্বাধীনতার ছেচল্লিশতম বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের সামনে একটি কেক রাখা হয়। যা বানানো হয় জাতীয় পতাকার আদলে। জাতীয় পতাকার ওপর ছুড়ি চালাতে পারবেন না বলে কেক না কেটে সেই স্থান ত্যাগ করেন নুরুল ইসলাম নাহিদ। সেই সময় এই ঘটনা নিয়েও হয়েছিল হৈচৈ। সেই কেকের আইডিয়াও ছিলো জামায়াত-বিএনপিপন্থী দুইজন কর্মকর্তার। তদন্ত সাপেক্ষে শাস্তির ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিলেও নাহিদের সেই নির্দেশ বাস্তবায়ন হয়নি আজও।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম