1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
আমরা যেন হেরে না যাই, বললেন কাউন্সিলর হাসিবুর রহমান মানিক - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৯:৫২ পূর্বাহ্ন

আমরা যেন হেরে না যাই, বললেন কাউন্সিলর হাসিবুর রহমান মানিক

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১ এপ্রিল, ২০২০
  • ১৮১ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার |
করোনা ভাইরাস ঠেকাতে পুরো জাতি ঐক্যবদ্ধভাবে লড়ছে। সেনাসদস্যরা টইল দিচ্ছেন রাজপথে। মানুষকে নিরাপত্তা শুধু নয় কীভাবে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকা যাবে সে পরামর্শও দিচ্ছেন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও তৎপর। জাতীয় দুর্যোগের দিনে তারা সাধারণ মানুষের বন্ধু হিসেবে নিজেদের প্রমাণ করার সুযোগ পেয়েছে। কোথাও কোথাও ঘরবন্দি মানুষের কাছে নিত্যপণ্য পৌঁছে দিচ্ছে।

করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় সবচেয়ে সামনের সৈনিক যারা সেই ডাক্তার-নার্সরা এখনো সত্যিকার অর্থেই অসহায় অবস্থায়। ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম(পিপিই)না থাকায় তারা আতঙ্কের মধ্যে দায়িত্ব পালন করছেন। ফলে করোনা ভাইরাস মোকাবিলা নয়, যে কোনো রোগের চিকিৎসায় কার্যত অচলাবস্থা চলছে। চিকিৎসা সংশ্লিষ্টরা পিপিই না পেলেও জেলা-উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা এবং ব্যাংক কর্মকর্তাদের মধ্যে পিপিই পরে ফটোসেশনের হিড়িক পড়েছে। স্বভাবতই প্রশ্ন উঠেছে জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের পিপিই দেয়া এ মুহূর্তের কতটা জরুরি?বরং যারা সরাসরি করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের সেবা দেবে সেসব চিকিৎসক, নার্স,আয়া, ওয়ার্ডবয়কে সুরক্ষার জন্য পিপিই দেয়া দরকার। পিপিই কোনো ফটোসেশনের সামগ্রী নয়। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে হাসপাতালগুলোতে প্রয়োজন অনুযায়ী পিপিই সরবরাহের চেষ্টা চলছে এ কথা ঠিক। কিন্তু এই জরুরি সামগ্রীর যথেচ্ছ ব্যবহার হলে স্বাস্থ্যসেবা কর্মীরা ঝুঁকিতে পড়বেন।

করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়ার পরও এ নিয়ে অপরাজনীতির প্রবণতা চললেও এখন দল মত নির্বিশেষে সব মানুষের ঐক্যবদ্ধভাবে করোনা ভাইরাস ঠেকাতে হবে। ঘরবন্দি গরিব ও অসহায় মানুষের পাশে সরকার সাধ্যমতো হাত বাড়ালেও ধনীও সম্পন্নদের অনেকেই দায়হীন ভূমিকা পালন করছেন। রাজনীতির যেসব হাইব্রিড নেতা নিজেদের জনদরদি হিসেবে প্রমাণের জন্য পোস্টার লাগিয়ে নগর শহর গঞ্জের দেয়াল নোংরা করতেন তাদেরও পাশে পাচ্ছে না গরিব মানুষ। বিপদে নাকি বন্ধু চেনা যায়। হাইব্রিডদের সম্পর্কে দেশবাসী সতর্ক হলে সেটি আশীর্বাদ বলে বিবেচিত হবে। করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় চিকিৎসা সংশ্লিষ্টদের প্রস্তুত রাখার জন্য জরুরিভিত্তিতে ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম সরবরাহের উদ্যোগ নেয়া দরকার। ভাইরাস চিহ্নিত করার সক্ষমতাও বাড়াতে হবে।

এদিকে করোনা ভাইরাস নিয়েও একশ্রেণির মতলববাজ উঠেপড়ে লেগেছে গুজব ছড়ানোর কাজে। যারা গুজব ছড়িয়ে সাধারণ মানুষের মনোবল নষ্ট করার চেষ্টা চালাচ্ছে। ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করে নিজেদের বাহাদুরি ফলাতে চাচ্ছে। করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মানুষ যাতে সঠিক পথের বদলে কুসংস্কারের কবলে পড়ে সেজন্য ছড়ানো হচ্ছে আজগুবি তত্ত্ব। সামাজিক গণমাধ্যমকে এজন্য যথেচ্ছ ব্যবহার করছে অর্ধশিক্ষিত এবং মতলববাজরা। কেউ কেউ বলছে রসুন, লবঙ্গ, আদাজল খেলে করোনা ভাইরাস ভালো হয়। আবার কেউ থানকুনি পাতা চিবিয়ে খাওয়ার তত্ত্ব হাজির করছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে গুজব ছড়ানো হয়েছে,করোনার কারণে ফ্রিজে কাঁচা মাছ, মাংস রাখলে বাড়ি গিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ফ্রিজ ভেঙে দেবে। গাইবান্ধার মাঠের হাটে মাইকিং করে গুজব ছড়ানো হয়েছে- করোনার সংক্রমণ থেকে বাঁচতে হলে কালিজিরা, আদা ও গোলমরিচ বেটে খেতে হবে। রংপুর ও দিনাজপুরে গুজব রটনাকারীদের আবিষ্কার লবঙ্গ, সাদা এলাচ, আদা পানিতে সিদ্ধ করে খেলে মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবে না। গুজব ছড়ানো হয় মাঝরাতে আজান দিলে করোনা ভাইরাস হবে না। গুজব ছড়ালেই আইনি ব্যবস্থা নিয়ে গ্রেপ্তার করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে। ইতোমধ্যেই এ নিয়ে কাজও শুরু করেছে বিভিন্ন সংস্থা। গুজব সৃষ্টিকারী একাধিক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে। সত্যতা যাচাই ছাড়া কোনো তথ্য সামাজিক যোগাযোগসহ অন্যান্য মাধ্যমে প্রচার থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানানো হয়েছে। আমাদের বিশ্বাস সরকারের এই পদক্ষেপ গুজব সৃষ্টিকারীদের অপতৎপরতা রোধ করবে।

পরিশেষে বলতে চাই দেশের এই ক্লান্তিলগ্নে বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেভাবে বিগত দিনে দেশও জাতিকে বিভিন্ন বিপদজনক পরিবেশের হাত থেকে সুরক্ষা করতে সক্ষম হয়েছিলেন। বর্তমান সময়োপযোগী সময়ের মধ্যে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়া নভেল করোনাভাইরাস আক্রমণ যেভাবে আবির্ভাব হয়েছে বাংলাদেশে এতে কোনো চিন্তার কারণ নেই। সরকার সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দেশের জনগণের পাশে দাঁড়িয়ে আছে বদ্ধপরিকর ভাবে। সেই হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা করোনা প্রভাব মোকাবিলায় সরকারের পক্ষ থেকে নেওয়া হচ্ছে তিন মেয়াদি দীর্ঘ পরিকল্পনা ।

আমাদের বঙ্গবন্ধু কন্যা মহান রাষ্ট্রনায়ক দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনা করোনাভাইরাস মোকাবিলায় গতকাল গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সারাদেশের জেলা প্রশাসকও উর্ধতন কর্মকর্তাদেরকে বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেন। এতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বলেন কেউ এক বিন্দু অনিয়ম করলে তা সহ্য করা হবে না। করোনায় ছুটি ঘোষণার কারণে দিনমজুর ও খেটে খাওয়া মানুষের সমস্যা হচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী,প্রশাসন, জনপ্রতিনিধিসহ সবাইকে তাদের পাশে দাঁড়াতে হবে। প্রতিটি ওয়ার্ড ভিত্তিক অনুযায়ী পরিসংখ্যান করে তালিকা করতে হবে । আর সেই তালিকা অনুযায়ী সবার কাছে সেবা কার্যক্রম সহযোগিতা ঠিক মতো পৌঁছে দেওয়ার সু-ব্যবস্থা করতে হবে । মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা গতকাল ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমে মাঠ পর্যায়ে যারা কাজ করছেন, তাদের সঙ্গে আলাপকালে বর্তমান করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি প্রতিরোধ কী কী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে, পরিস্থিতি কেমন এবং সামনের দিনে কী করতে হবে সে সর্ম্পকে ও দিকনির্দেশনা দেন সরকারপ্রধান। এর পাশাপাশি বিদ্যমান পরিস্থিতিতে এবার বাংলা নববর্ষের অনুষ্ঠান বন্ধ রাখারও পরামর্শ দেন প্রধানমন্ত্রী।

লেখকঃঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন(ডিএনসিসি) সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেয়র ও বর্তমান ২৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর | বিশিষ্ট রাজনৈতিক ও সমাজসেবী এবং মানবাধিকার সংগঠক |

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম