1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
করোনা মানেই মৃত্যু নয়, সচেতনতায় মিলে মুক্তি, সাতকানিয়ায় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে তরুণ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বুধবার, ২২ মার্চ ২০২৩, ০৯:২৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ঠাকুরগাঁওয়ে ন্যাচারাল ডাইং প্রশিক্ষণ ও সার্টিফিকেট বিতরণ। মীরসরাইয়ে চালক ও সহকারীদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত গুইমারা উপজেলা প্রশাসনের প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত ৭৫ পরিবার পাচ্ছে স্বপ্নের আবাসন ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গী’র বীর মুক্তিযোদ্ধা দবিরুল ইসলাম, রাষ্ট্রীয় দাফন চান না, জেলা প্রশাসকের বরাবরে আবেদন করেছেন। নোবিপ্রবি হলের ছাদ থেকে শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার শাহ মাওলানা আবদুল হাই (রাহঃ) স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতা সম্পন্ন লতার ফাঁকে ফাঁকে হাজার হাজার তরমুজ- কোটি টাকা আয়ের স্বপ্ন দেখছেন চার কৃষক গুইমারা সেনা রিজিয়নের ২৫০০ জনকে সহায়তা ও ১২০০ জনকে চিকিৎসা সেবা প্রদান মতিঝিলে কয়েক হাজার নেতাকর্মী নিয়ে যুবদলের বিক্ষোভ মিছিল ‘নিরাপদ জ্বালানি, ভোক্তাবান্ধব পৃথিবী’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে রাজবাড়ীতে বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস উপলক্ষ্যে র্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

করোনা মানেই মৃত্যু নয়, সচেতনতায় মিলে মুক্তি, সাতকানিয়ায় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে তরুণ

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৯ এপ্রিল, ২০২০
  • ৮৬ বার

মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন : ‘করোনা মানেই মৃত্যু নয়, সচেতনতায় মিলে মুক্তি’ এমন শিরোনামে করোনা-জয়ের গল্প ফেসবুকে শেয়ার করেছেন চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার ছাত্রলীগ নেতা মোহাম্মদ রুমন।

এর আগে গত ১৪ এপ্রিল রাতে চট্টগ্রামে ১২ জনের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ পাওয়া যায়। এর মধ্যে ৫ জনই সাতকানিয়ার। যাদের মধ্যে রয়েছে রোমনসহ সুস্থ হওয়া তিনজন। মাত্র ১৪ দিনেই সুস্থ হয়ে জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন থেকে বাড়ি ফিরেছেন।

বুধবার দেড়টার দিকে করোনা-জয়ের সেই গল্পটি ফেসবুকে শেয়ার করেন রোমন। সাতকানিয়া থানাধীন, পশ্চিম ঢেমশা আলিনগর গ্রামের হতভাগা পাঁচ করোনা রোগীর গল্প উপ শিরোনামে রোমন লিখেন, চট্টগ্রাম জেলায় ‘প্রাণঘাতি করোনা’ যুদ্ধ জয় করা সাতকানিয়ার প্রথম তিনজন আমরা।

দীর্ঘ ১৪ দিন লড়াই করেছি প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের সাথে। তিনবার নমুনা পরীক্ষার পর, অবশেষে আল্লাহর রহমতে করোনা যুদ্ধ জয় করে আমরা তিনজন ঘরে ফিরছি। আশাকরি অন্যরাও দুই একদিনের মধ্যে সুস্থ হয়ে ফিরে আসবেন। আমাদের এই যুদ্ধ জয় সহজ ছিলো না। প্রতিটা দিন আমরা মৃত্যুভয়ের মধ্যে ছিলাম। অপ্রিয় হলো সত্য, সবাই আমাদের ঘৃণা করা শুরু করছিলো। যেন আমরা মহা কোনো পাপকাজ করেছি।

‘উপলব্ধি করেছি, বাস্তবতা কতই নিষ্ঠুর, করোনায় রোগী মরার আগে, মানুষের ঘৃণা অবহেলায় হাজারবার মরে। কারো করোনাভাইরাস হয়েছে, তার মানে এই নয় যে, সে বিশাল কোনো পাপ করে ফেলেছে। করোনা পজিটিভ হওয়ার পরে আমদের পাঁচ জনকে যেদিন বাড়ি থেকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল, আমাদের মনটা ভেঙে চুরমার হয়ে গিয়েছিল। মনে হচ্ছিলো আজ মনে হয় বাড়ির শেষদিন, হয়তবা আর কোনোদিন পরিবার পরিজন কারোর সাথে দেখা হবে না, আর কোনোদিন বাড়ি ফেরা হবে না।’

‘হতভাগা কাকে বলে সেদিন বুঝেছি, সেনাবাহিনীর এম্বুলেন্সে করে শহরে পৌঁছাতে পারিনি, খবর এলো আমাদের পাঁচজনের বাড়িঘর ভাংচুর ও বাড়ির লোকজনদের উপর হামলা হয়েছে। অপরাধ, পাপিষ্ঠ করোনা রোগীর । দুঃখে, কষ্টে, কাঁন্নায় বুক ফেটে গেছে।’ চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে পৌঁছার পর আশার আলো দেখালেন কর্তব্যরত ডাক্তার, নার্স…।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম