1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
কেন দুস্থ-অসুস্থতায় সাংবাদিকতা? - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৫:৩৫ অপরাহ্ন

কেন দুস্থ-অসুস্থতায় সাংবাদিকতা?

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২০ এপ্রিল, ২০২০
  • ১১৩ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার :
ক্ষমতাধরদের মারে দুই পা হারিয়ে কাঁতরাচ্ছেন জামালপুরের সাংবাদিক শেলু আকন্দ। হেনস্তার শিকার হয়ে গ্রেফতারের পর ছাড়া পেয়েছেন সাংবাদিক কিবরিয়া এবং পান্নু। পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় খুলনায় হাতকড়া পরিয়ে তুলে নেয়া হয় একাত্তর টিভির সাংবাদিক রকিব উদ্দিন পান্নুকে। আর ঢাকায় অফিসে কর্মরত অবস্থা থেকে ঘাড় ধরে নিয়ে যাওয়া হয় দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি পত্রিকার সম্পাদক কিবরিয়া চৌধুরীকে।

সাংবাদিকদের এভাবে অপদস্ত-তাচ্ছিল্য করা আচমকা বা নতুন ঘটনা নয়। কেউ কেউ বলতে চান- হাতে হাতকড়া বা কোমরে দড়ি নিয়েই দুনিয়াতে সাংবাদিকতা-তথা সাংবাদিকতার অভিষেক। এটা না-কি পেশাটির বৈশিষ্ট্যের মতো। কিন্তু, কেন? কোন দুঃখে, কোন পাপে এ তাপ? খুলনা ওয়াসার কাজে গাফিলতির সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে প্রথমে প্রকল্প সংশ্লিষ্টদের বেদম মার খান পান্নু। পরে তারা পুলিশ ডেকে আনেন। পুলিশ হাতকড়া লাগিয়ে নিয়ে যায় তাকে। আর কিবরিয়াকে ছো মেরে তুলে নেয়া হয় তার মতিঝিল কর্মস্থল থেকে। নোয়াখালীর সোনাপুর থানা থেকে ঢাকা এসে মতিঝিল থানার সহায়তায় এ কর্মযজ্ঞ সাঙ্গ করে পুলিশ।

কাজের কী গতি এবং বেগ পুলিশের! এর বিপরীতে সাংবাদিক সমাজ থেকে কড়া কোনো প্রতিক্রিয়া আসেনি কিছু পোর্টাল ও ফেসবুকে মিউ মিউ টাইপে ইসফিস করা ছাড়া। সাংবাদিকদের বেশুমার সংগঠন থেকে কোনো প্রতিবাদ হয়নি। কারো কারো আক্ষেপ চাঁদাবাজ, টেন্ডারবাজ, ক্যাসিনোবাজদের গ্রেফতারে পুলিশ সম্মান দেখালেও ক্ষমতাসীন ঘরানার দাপটশালী একাত্তর টিভির পান্নু বা সরকারের খাস সাংবাদিক কিবরিয়াকে এর ছিটাফোঁটাও করলো না পুলিশ। উল্টোদিকে, মজা বোধের কিছু কায়কারবারও দেখা গেছে। প্রতিপক্ষ সাংবাদিক মহল বিকৃত তৃপ্তি পেয়েছে। সরকারের অতিশয় আজ্ঞাবহদের এমন ছ্যাচা তাদের কাছে আনন্দদায়ক ঘটনা। যারা আদর-সোহাগ করে আসছেন, তারাই একটু শাসন করেছেন, উচিৎ কাজ হয়েছে, মজা বুঝুক-তাদের এমন ভাবটা লুকানো থাকেনি।

সাংবাদিকদের এমন রহস্যজনক ‘গুডবয়’ ভূমিকা তাদের সহকর্মী সাগর-রুনি হত্যা মামলার চার্জশিট ৭০ বার পেছালেও। এটাই দেশের সাংবাদিক সম্প্রদায়ের বর্তমান হাল। সেখান থেকে চেতিয়ে চেতনা আনার অবস্থা হারিয়ে গেছে। সেই চেষ্টা করাও ঝুঁকিপূর্ণ। কারণ লোহার খাঁচায় ঘুমিয়ে থাকা বন্দির খাঁচা ভাংগার শক্তি থাকে না। এ দশায় তাদের জাগিয়ে তোলার চেষ্টা কষ্টকে আরো বাড়িয়ে দেবে কি-না, সেই সংশয়ও থেকে যায়। দু’চার দিনে এ দশায় এসেছে গণমাধ্যম জগত? অথবা একে ভাগ্যের লিখন বলে চেপে চাওয়া যায়? কেন সাংবাদিকদের মেরুদণ্ডের এ ব্যাকপেইন স্থায়ী রূপ নিচ্ছে- এ প্রশ্নের এক কথায় জবাব মেলা কঠিন। কিবরিয়া চৌধুরীকে গ্রেফতার করা হয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে। এই আইনটি নিয়ে শুরু থেকেই বিতর্ক ছিল। সব সাংবাদিক এর নীতিগত প্রতিবাদ করেননি। পরে অজ্ঞাত কারণে সাংবাদিকরা এ ব্যাপারে আর কথাও বলেননি। সম্রাট গ্রেফতার পরবর্তী সময় সাংবাদিকদের কে কে সম্রাটের কাছ থেকে সুবিধা নিয়েছেন তা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখালেখি হচ্ছিল। তথ্যপ্রযুক্তি তাদের শিক্ষা দিয়ে ছাড়া হয়েছে তাদের কয়েকজনকে।

সাংবাদিকদের দলবাজি, মোশাহেবি, তোষামোদি, তেলবাজিতে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীও তার বিরক্তির কথা জানিয়েছিলেন প্রকাশ্য সংবাদ সম্মেলনে। লজ্জা দিয়েছেন। এরপরও তারা দমেননি। দমছেন না। তাদের এ ভূমিকায় দলীয় তস্কররাও মনোকষ্ট পায়। ক্ষেপে সাংবাদিক নামের জীবদের ওপর। কারণ যে কাজটি করে দলবাজ নেতাকর্মীরা স্নেহে পিচ্ছিল হয় সেটি কেন অন্যরা করবে- এ কষ্ট তাদের ভোগায়। পীড়া দেয়। হিংসা জাগায়। প্রাপ্তির উম্মাদনা আর বোকামি যেটাই হোক সাংবাদিকদের একটি অংশ বুঝতে নারাজ ক্ষমতাধরদের কখনো তেলের ক্রাইসিস হয় না। তেলামাথায় তেল ভূতেও জোগায়। মালিশ-পালিশে ঘাটতি পড়ে না ক্ষমতার শেষ সেকেন্ড পর্যন্ত। হোক না জ্বী-হুজুরদের হুজরতি সমাজে প্রতিষ্ঠিত। আমন্ত্রিতও। সাংবাদিকরা কেন ভিড়বেন সেই পালে? দলবাজির রঙে কেন হবেন দুঃস্থ-অসুস্থ?

লেখকঃ সদস্য ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন ডিইউজে | মানবাধিকার সংগঠক ও প্রকাশক জ্ঞান সৃজনশীল প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান |

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম