1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
নোয়াখালীর তরমুজ চাষীরা বিপাকে - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৩:৪৪ পূর্বাহ্ন

নোয়াখালীর তরমুজ চাষীরা বিপাকে

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৮ এপ্রিল, ২০২০
  • ১৩১ বার

রাসেল মাহম্মুদ বিশেষ প্রতিনিধিঃ প্রতিবছরের ন্যায় এবছরও নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার তরমুজ এলাকার চাহিদা মিটিয়ে চলে যেত বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে।সে চাহিদার আলোকে এবারও সুবর্ণচরের চাষীরা তরমুজ চাষ করেছেন। অনেকে কিস্তি নিয়ে তরমুজ চাষ করেছেন।সবকিছু ঠিক থাকলে কিস্তি শোধ করে লাভের মুখ দেখতেন চাষীরা ।কিন্ত ফলন ভালো হলেও এবছর হলো ভিন্ন চিত্র। নোভেল করোনা ভাইরাসের প্রভাব পড়েছে তরমুজেও তা সরেজমিনে গিয়ে উপজেলার তরমুজ চাষীদের সাথে কথা বলে জানা যায়।সরেজমিনে সুবর্নচর উপজেলা ঘুরে দেখা যায়, কৃষকেরা কেউ কেউ তরমুজের ক্ষেতে তরমুজ তুলতে ব্যস্ত। কারণ তরমুজ চাষাবাদ করলে ধানের চেয়ে তিনগুন লাভ, খরচও আয় তিন চার গুন বেশি। তবে তরমুজে লাভ যেমন তেমনি ঝুঁকিও বেশী।প্রয়োজনীয় সেচ দিতে না পারা, বর্গাচাষী হওয়ায় সঠিকভাবে জমির পরিচর্যা করতে না পারা সহ নানান প্রতিক‚লতা থাকলেও প্রচুর পরিমাণ তরমুজ উৎপাদন হয় এই উপজেলায়।অনেক চাষী দূর দূরান্ত থেকে পানি এনে জমিতে পানি দিয়েছেন। তরমুজের ফলন এবছর বাম্পার হলেও করোনা ভাইরাসের কারণে বিপাকে আছে চাষীরা। তরমুজ চাষে লাভ যেমন ঝুঁকিও তেমন চরাঞ্চলের কৃষকদের সেই আশাবাদী তরমুজ বিক্রি হতো নোয়াখালী জেলা শহর মাইজদী ও চৌমুহনীসহ বিভিন্ন হাট বাজারগুলোতে।এছাড়া গাড়ী দিয়ে অতিরিক্ত লাভের আশায় চাষীরা তরমুজ পাঠাতেন ঢাকা ও চট্রগ্রামসহ অন্যান্য জেলায় ,কিন্তু এবছর করোনা ভাইরাসের কারণে লগডাউন থাকায় ভালো দাম পাচ্ছে না কৃষকরা ।তরমুজের ফলন ভালো হলেও চোখে মুখে হতাশা দেখা যাচ্ছে তরমুজ চাষীদের।সুবর্ণচর উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের চর আকরাম গ্রামের তরমুজ চাষী ইদ্রিসস মিয়া জানান, গতবছর আমরা ২২ একর জমিতে তরমুজ চাষ করি। এতে কয়েক লাখ টাকার তরমুজ বিক্রি করি। এতে আমাদের খরচের অর্ধেকের মাতো লাভ হয়েছে।এলাভের আশায় এবারও একই পরিমান জমিতে তরমুজ চাষ করেছি। কিন্তু লাভ থাক দুরে কথা মুলধন পাবো কিনা তাও অনিশ্চিত। গতবারের তুলনায় এবার খরচ হয়েছে অনেক বেশি বলেও জানান ইদ্রিস।একই এলাকার আরেক তরমুজ চাষী মো. নাসির উদ্দিন জানান, তিন একর জমিতে এবার তার খরচ হয়েছে প্রায় দুই লাখ টাকা। বর্তমান পরিস্থিতিতে অর্ধেকেরও বেশি লোকশান হওয়ার আশংকা করছেন তিনি। তিনি আরও জানান, প্রতিবছর এ সময়ে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে তরমুজ ব্যবসায়ীরা আমাদের এলাকায় এসে মাঠ থেকে তরমুজ ক্রয় করতে আসতো। এবার তেমন একটা ক্রেতা নেই। এমন পরিস্থিতির কারণে তরমুজ চাষীরা পথে বসতে হবে।উপজেলার চরক্লার্ক ইউনিয়নের মোস্তফা মিয়া জানান, চার একর জমিতে এবার তরমুজ চাষে তার খরচ করতে হয়েছে দেড় লক্ষ টাকা। আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে তিনি চার থেকে পাঁচ লক্ষ টাকার তরমুজ বিক্রি করতে পারতেন। কিন্ত বর্তমানে করোনা ভাইরাসের কারনে সবাই হোমকোয়ারেন্টাইনে থাকার কারনে তরমুজ ব্যবসা হুমকির মুখে। এমন পরিস্থিতিতে উত্তরনে তিনি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।সুবর্ণচর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম জানান, নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলায় এবছর প্রায় ৩হাজার হেক্টন জমিতে তরমুজ চাষাবাদ হয়েছে। তিনি আরোও জানান, করোনা পরিস্থিতিতে সরকার কাঁচামালের গাড়ী এবং কাঁচা বাজার লকডাউনের আওতাধীন রয়েছে। আশা করা হচ্ছে করোনা পরিস্থিতি তরমুজে তেমন কোন প্রভাব ফেলবে না।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম