1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
করোনা সংক্রমণের বড় শঙ্কা শপিং মলে, বিভিন্ন বিশেষজ্ঞদের অভিমত - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০২:৫৭ পূর্বাহ্ন

করোনা সংক্রমণের বড় শঙ্কা শপিং মলে, বিভিন্ন বিশেষজ্ঞদের অভিমত

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৭ মে, ২০২০
  • ১৭৬ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার :
দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কয়েক দিন ধরে দ্রুত বাড়ছে। প্রতিদিনের মৃত্যুর হিসাব কম-বেশি হলেও মৃত্যু বেড়েই চলছে। নমুনা পরীক্ষা প্রায় লাখে পৌঁছেছে। সব কিছু মিলে করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে যেখানে নানামুখী পদক্ষেপ নিয়েও ঠিকভাবে সব কিছু সামাল দিয়ে উঠতে পারছে না দেশের স্বাস্থ্য বিভাগসহ সংশ্লিষ্টরা, ঠিক তখনই আসন্ন ঈদ উপলক্ষে শপিং মল খুলে দেওয়ার ঘোষণায় স্বাস্থ্য খাতসহ অন্য সব পর্যায়ের বিশেষজ্ঞদের মধ্যে উদ্বেগ আরো বেড়েছে। একই সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন মহল থেকে শুরু হয়েছে সমালোচনা। কেউ কেউ রীতিমতো এই সিদ্ধান্তকে এক ধরনের আত্মঘাতী বলেও অভিহিত করেছেন। করোনা সংক্রমণের বড় ক্ষেত্র হয়ে উঠতে পারে শপিং মলগুলো।

কোনো কোনো বিশেষজ্ঞ মনে করেন, এভাবে সব কিছু এখনই খুলে দিলে সারা দেশ হাসপাতাল আর পরীক্ষাকেন্দ্র দিয়ে ভরে ফেললেও কোনো লাভ হবে না। সংক্রমণও ঠেকানো যাবে না, চিকিৎসা দিয়েও কুলানো যাবে না। তাঁদের মতে, এমনিতেই মানুষকে বহুভাবে সতর্ক ও সচেতন করা হলেও অনেকেই তা মানছে না। প্রতিদিনই বড় সড়ক থেকে শুরু করে অলিগলিতে মানুষের ভিড় বাড়ছে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার নির্দেশনাও কেউ আমলে নিচ্ছে না। তার ওপর এখন ঈদের কেনাকাটার জন্য শপিং মল খুলে দিলে কোনো নির্দেশনা দিয়েই মানুষকে মানানো যাবে না। যার আলামত এখনই দেখা যাচ্ছে।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও ভাইরোলজির অধ্যাপক ডা. মো. নজরুল ইসলাম বলেন, ‘এখনই সব কিছু এমনভাবে খুলে দেওয়া ঠিক হচ্ছে না। ঈদের কেনাকাটা একবার না করলে কী হবে! শপিং মল খুলে না দিয়ে বরং মানুষকে বিষয়গুলো বোঝানো উচিত, যাতে তারা ঘর থেকে বের না হয়। এমন শৈথিল্য কিন্তু আমাদের বিপদ বাড়িয়ে দেবে।’

প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক ও মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ বলেন, ‘শপিং মল খুলে দেওয়া আসলেই ভুল সিদ্ধান্ত হচ্ছে। বরং সংক্রমণ রোধে সরকারকে আরো কিছুটা দিন কঠোর হওয়া দরকার। প্রয়োজনে কারফিউ দিয়ে হলেও মানুষকে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হওয়া ঠেকাতে হবে। ঈদের শপিং করা জরুরি কোনো কাজের মধ্যে পড়ে না।’

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘সরকার আসলে বুঝতেই পারছে না এই মহামারি পরিস্থিতিতে কোনটি জরুরি আর কোনটি জরুরি নয়। তারা শপিং মল খুলে দিতে দেরি করছে না, কিন্তু জনগণের জন্য অতি জরুরি যে পরীক্ষার কিট, তা পরীক্ষামূলক ব্যবহার করে ফলাফল দেওয়ার ক্ষেত্রে যেন কচ্ছপের চেয়েও ধীরগতিতে এগোচ্ছে। এই জনগুরুত্বপূর্ণ কাজের জন্য তারা সময় পাচ্ছে না, শুধুই এই বন্ধ সেই বন্ধের অজুহাত দেয়।’
করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সরকার গঠিত জাতীয় কারিগরি কমিটির আহ্বায়ক ও বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, ‘আগে থেকেই বারবার বলে আসছিলাম যত বেশি জীবনযাত্রা শিথিল করা হবে ততই সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়বে। তার মধ্যে আবার এখন ঈদ উপলক্ষে শপিং মল খুলে দেওয়ার যে সিদ্ধান্ত হয়েছে সেটা সংক্রমণের ঝুঁকি আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। আর ১০ তারিখ থেকে শপিং মল খোলার সিদ্ধান্তের ব্যাপারে আমরা আগে থেকে কিছুই জানতাম না।’

অধ্যাপক শহীদুল্লাহ আরো বলেন, ‘গত মঙ্গলবার আমাদের কমিটির সঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর বৈঠকের সময় শপিং মল খোলার প্রভাব কী হতে পারে সেটা নিয়ে আলোচনা হয়। তখন আমাদের মধ্যে যারা রোগতত্ত্ববিদ আছেন তাঁদের এ বিষয়ে সুপারিশমূলক প্রতিবেদন দেওয়ার দায়িত্ব দেওয়া হয়। ঈদ উপলক্ষে শপিং মল খুলে দিলে সংক্রমণ বিস্তারের ক্ষেত্রে কী প্রভাব পড়তে পারে সে ব্যাপারে দু-এক দিনের মধ্যেই আমরা সরকারের কাছে সুপারিশ তুলে দেব। আমরা লকডাউন আর যাতে শিথিল না হয় সে ব্যাপারেও সরকারের কাছে আরো কিছু সুপারিশ করব।’

ওই কমিটির একজন জ্যেষ্ঠ সদস্য বলেন, ‘আমরা যেসব সুপারিশ করেছি তা কেন যেন গুরুত্বহীন হয়ে পড়ছে। আমরা গত ২৮ এপ্রিল যে সুপারিশগুলো করেছিলাম তার বেশির ভাগেরই কোনো প্রতিফলন দেখছি না। মনে হচ্ছে সেগুলো কাগজেই রয়ে গেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নজরে এসব সুপারিশ আসে কি না সেটা নিয়েও এখন সন্দেহ হচ্ছে। তা না হলে আমাদের বিশ্বাস শপিং মল বা মসজিদে জামাতে নামাজ আদায়ের সিদ্ধান্তের মতো গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলো এখনই নেওয়া হতো না। এ ধরনের সিদ্ধান্ত এক রকমের আত্মঘাতী হয়ে উঠছে।’

গত মঙ্গলবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বৈঠকে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক নিজেও শপিং মল খুলে দেওয়া হলে সংক্রমণ ঠেকানো যাবে না বলে একাধিকবার উল্লেখ করেছেন। বৈঠক শেষে তিনি বলেছেন, ‘শপিং মল খুলে দেওয়া হলে সংক্রমণের ঝুঁকি আরো বাড়বে।’

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) উপদেষ্টা ড. মুশতাক হোসেন বলেন, ‘যেকোনো মহামারির ক্ষেত্রে প্রথম কাজ হচ্ছে রোগ প্রতিরোধ করা। যুদ্ধে যেমন শত্রুকে নিজের সীমানায় ঢুকতে না দেওয়া প্রথম কাজ বলে বিবেচিত হয় এখানেও সেটাই প্রথম। আমরা যদি সংক্রমণের উৎস রুখে দিতে পারি তাহলে জয় সেখানেই মিলবে। কিন্তু যদি আমরা যেনতেন অজুহাতে সংক্রমণ বিস্তারের সুযোগ সৃষ্টি করি তাহলে পরীক্ষা করে কিংবা হাসপাতাল দিয়ে দেশ ভরে ফেললেও লাভ হবে না। কারণ পরীক্ষার প্রশ্ন তো আসে সংক্রমিত হওয়ার পর, আর চিকিৎসার প্রশ্ন আসে সবার শেষে। কিন্তু আমরা পরীক্ষা আর চিকিৎসা নিয়ে যত বেশি হৈচৈ করি সংক্রমণ রোধে কেন যেন তেমনটা দেখছি না। বরং বাণিজ্যের চাপে সংক্রমণ বিস্তারের সুযোগ করে দিচ্ছি অবলীলায়।’

ওই রোগতত্ত্ববিদ বলেন, এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে সংক্রমণ বাড়লেও মৃত্যুহার অনেক কমই আছে। আবার সংক্রমণের মাত্রা কোনো একটি জায়গায় বেশি সময় ঘনীভূত থাকছে না, এটা ইতিবাচক দিক। কিন্তু শপিং মল খুলে দেওয়া মানে হচ্ছে সংক্রমণকে বিশেষ বিশেষ জায়গায় ঘনীভূত করে ফেলা, যেটা খুবই বিপদ বয়ে আনতে পারে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম