1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
মাঠভরা পাকা ধান, সোনার ফসল ঘরে তোলা নিয়ে দুশ্চিন্তায় রাজশাহীর কৃষক - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৬:০৪ অপরাহ্ন

মাঠভরা পাকা ধান, সোনার ফসল ঘরে তোলা নিয়ে দুশ্চিন্তায় রাজশাহীর কৃষক

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৩ মে, ২০২০
  • ১২৬ বার

মঈন উদ্দীন: মাঠভরা পাকা বোরো ধান। কিন্তু শ্রমিক সংকট আর বৈরি আবহাওয়ার আশঙ্কায় সোনার ফসল ঘরে তোলা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন রাজশাহীর কৃষকরা। নওগাঁ ও নাটোর জেলায় ধান কাটা শেষ পর্যায়ে হলেও রাজশাহীতে ৮২ শতাংশ মাঠে পড়ে আছে। তবে কৃষি কর্মকর্তাদের ভাষ্য, সব ঠিকঠাক থাকলে আগামী ২০-২৫ দিনের মধ্যে রাজশাহী জেলায় ধান কেটে ঘরে তুলতে পারবেন কৃষকরা।
রাজশাহীর তানোর উপজেলায় গত আট দিন থেকে ধান কাটা শুরু হয়েছে। উপজেলার মোহনপুর গ্রামের কৃষক আবদুল খালেক বলেন, ‘আমি ৩০ বিঘা জমিতে বোরো আবাদ করেছি। ইতোমধ্যে ক্ষেতের ধান পেকে উঠেছে। দুই একদিন পরেই ধানকাটা শুরু হবে। কিন্তু শ্রমিক পাবো কিনা সন্দেহ হচ্ছে। এবার করোনার কারণে তারা আসতে পারবে কি না জানি না।’ মোহনপুর উপজেলার কেশরহাট পৌর এলাকার তিলাহারি গ্রামের কৃষক এনামুল হক বলেন, ‘এ বছর ধানের ফলন ভালো হয়েছে। করোনা সংকটের কারণে ধান কাটতে শ্রমিক সংকট রয়েছে। আমার পাঁচ বিঘা জমিতে বোরোধান রয়েছে।’
রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক কৃষিবিদ শামসুল হক জানান, রাজশাহী জেলায় ৬৬ হাজার ২৬৫ হেক্টর জমিতে এবার বোরোধান আবাদ হয়েছে। এরমধ্যে ১৮ শতাংশ জমির ধান কাটা হয়েছে। রাজশাহী জেলায় আলুসহ অন্য ফসল ঘরে তোলার পর বোরো ধান আবাদ শুরু করে কৃষকরা। এজন্য নওগাঁ ও নাটোরের চেয়ে রাজশাহীতে আবাদ একটু দেরিতে শুরু হয়।
তিনি আরও বলেন, রাজশাহী জেলায় প্রযুক্তির সাহায্যে মাধ্যমে ধান কাটার জন্য কৃষকদের মাঝে ৪৫টি কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন ও ৪০টি রিপার মেশিন বিতরণ করা হয়েছে। আশা করা যায় আগামী ২০-২৫দিনের মধ্যে রাজশাহী জেলায় ধান কাটা শেষ করা হবে।

রাজশাহীতে বইছে মৃদু তাপদাহ,
বিদ্যুতের লুকোচুরি, নাজেহাল মানুষ
মঈন উদ্দীন: রাজশাহী অঞ্চলের ওপর দিয়ে এখন মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। সূর্যের উত্তাপে তপ্ত হয়ে উঠেছে পথঘাট। এ ভেতরেই প্রয়োজনের তাগিদে ছুটছে মানুষ। আর ঘরে ভ্যাপসা গরম। বিদ্যুৎ গেলেই নাজেহাল হচ্ছেন মানুষ। রাজশাহী আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, মঙ্গলবার দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তিনি বলেন, বুধবার তাপমাত্রা আরো বাড়তে পারে। ভোরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিলো ২৪ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ভেতরে থাকলে তাকে মৃদু তাপদাহ বলে।
আবহাওয়া অফিসের উচ্চ পর্যবেক্ষক দেবল কুমার মৈত্র জানান, গেল কয়েকদিন ধরেই রাজশাহীতে মৃদু তাপদাহ চলছে। গত রোববার (১০ মে) এ পর্যন্ত সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সেদিন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিলো ২৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। মঙ্গলবার ভোরে বাতাসের আদ্রতা ছিলো ৯৬ শতাংশ। তবে বেলা ৩টায় আদ্রতা কমে আসে ৪৮ শতাংশে। রাজশাহীতে গত ৭ মে বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সর্বশেষ কালবৈশাখী ও শিলাবৃষ্টি হয়। এটি মৌসুমের দ্বিতীয় বৃষ্টিপাত। সেদিন ২৩ দশমিক ২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়। এর পর মঙ্গলবার পর্যন্ত আর ঝড়-বৃষ্টি হয়নি। ফলে প্রতিদিনই একটু একটু করে তাপমাত্রা বাড়ছে। এটি অব্যাহত থাকবে বলছে আবহাওয়া অফিস।
পর্যবেক্ষক দেবল কুমার মৈত্র বলেন, আবহাওয়া এখন শুষ্ক থাকারই সম্ভাবনা বেশি। বৃষ্টিপাতের তেমন সম্ভাবনা নেই। ফলে তাপমাত্রা কমারও সম্ভাবনা নেই। আরও কিছুটা তাপমাত্রা বাড়তে পারে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম