1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ক্ষোভে ফুঁসছে গ্রাহক, মীরসরাইয়ে ঘরে ঘরে বিদ্যুতের ভুতুড়ে বিল - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ১০:৫৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
সৈয়দপুরে এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ বদলে গেছে লালমনিরহাটের তিন বিঘা করিডোর ও দহগ্রাম-আঙ্গরপোতা ছিটমহল চৌদ্দগ্রাম প্রেসক্লাবের উদ্যোগে ৩ দিন ব্যাপী বার্ষিক আনন্দ ভ্রমণ সম্পন্ন চৌদ্দগ্রামে শুভ সংঘের উদ্যোগে অস্বচ্ছল নারীদের সেলাই প্রশিক্ষণের উদ্বোধন ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চললে কেউ অপরাধ করতে পারে না নবীগঞ্জে ঠাকু অনুকূল চন্দ্রের জন্মোৎসবে এসপিআর কালী চরন মন্ডল Pilot video game in Kenya ঠাকুরগাঁওয়ের বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ বীর মুক্তিযোদ্ধা তৈমুর রহমানের ইন্তেকাল ! সুবর্ণজয়ন্তী রোভার মুটে কুবি রোভার স্কাউটদের অংশগ্রহণ ঠাকুরগাঁওয়ে ২৫০কোটি টাকা ঋণের বোঝা ও শতকোটি লোকসান নিয়ে দীর্ঘদিন চালু ছিল চিনিকল দেশসেরা ক্যাডেট ইনসেন্টিভ এওয়ার্ড পেলেন কুবি বিএনসিসির সিইউও সাদী

ক্ষোভে ফুঁসছে গ্রাহক, মীরসরাইয়ে ঘরে ঘরে বিদ্যুতের ভুতুড়ে বিল

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৮ জুন, ২০২০
  • ৯১ বার

ইমাম হোসেন, মীরসরাই (চট্টগ্রাম) থেকেঃ চট্টগ্রাম পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩ মীরসরাই অঞ্চলের বিরুদ্ধে গ্রাহকদের ভুতুড়ে বিলের অভিযোগ উঠেছে। করোনা সংক্রমনের কারণে লকডাউনের মধ্যে মীরসরাইয়ে ঘরে ঘরে ভুতুড়ে বিলের কাগজ ধরিয়ে দেয়া হচ্ছে মে মাসের বিদ্যুৎ বিল। স্বাভাবিক বিলের চাইতে কয়েকগুণ বেশি বিল এসেছে প্রায় গ্রাহকের। ১৮৪ টাকার বিদ্যুৎ বিল হয়েছে ৭০২ টাকা, ৯৩ টাকার বিল ৪৯৩ টাকা, ২২৪ টাকা বিল করা হয়েছে ৬১২ টাকা, ১৯২ টাকা বিল করা হয়েছে ৭০৪ টাকা। গ্রাহকদের অভিযোগ, মিটার না দেখে বিল করলেও পূর্বের রেকর্ড দেখে বিল করলে এতোটা অসামঞ্জস্যপূর্ণ হতো না।

উপজেলার ১৬টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভার শত শত গ্রাহক ভুতুড়ে বিলের ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। গ্রাহকদের কাছে মে মাসে বিলের কাগজ পৌঁছালে ওই বিলের টাকার পরিমান দেখে গ্রাহকদের চোখ কপালে ওঠে। তারা ওই বিল দেখে বিস্মিত ও হতভম্ব হয়ে পড়েন। তারা দেখেন প্রত্যেকের বিদ্যুৎ বিলে বিগত মাসের চেয়ে কয়েকগুন বেশী। এছাড়াও মিটারের ইউনিটের সাথে উল্লেখিত বিলের ইউনিটের সাথে কোন মিল নেই। এতে করে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন পল্লী বিদ্যুত সমিতি-৩ মীরসরাই এলাকার শত শত গ্রাহক।

উপজেলার ৮নং দুর্গাপুর ইউনিয়নের মিঠাছরা এলাকা মেহের আলী ভুঁইয়া বাড়ীর মাওলানা আব্দুল বাকী নিজামী অভিযোগ করেন, তার হিসাব নং ০২-০২২০-১৫৫৭ মে মাসে তার আবাসিক বিদ্যুৎ বিল ৯৭৪ টাকা যা মার্চ মাসে ছিলো ১৯৫ টাকা। অথচ পূর্বের মাস গুলোতে তার বিল আসতো ১৫০ – ২২৫ টাকার মতো। এত ইউনিট ভূতে ব্যবহার করেছেন কিনা তিনি প্রশ্ন রাখেন। তিনি আরো অভিযোগ করেন তার বাসায় ভাড়াটিয়াদের প্রত্যেক মিটারে পুর্বের বিদ্যুৎ বিলের চাইতে কয়েকগুণ বেশি বিল চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে।

মায়ানী ইউনিয়নের পশ্চিম মায়ানী গ্রামের নুরুল করিম লিটন নামে আরেক গ্রাহক ক্ষোপ প্রকাশ করেন, তার হিসাব নং ০৩-০০৯১-২৯৫৩ অতিরিক্ত বিলের কারণে তার মিটারের লাইন বিচ্ছিন্ন করে পরে তিনি ফেব্রুয়ারী মাসে মিটার পরিবর্তনের আবেদন করার পরেও তার বিদ্যুৎ বিল ১৪১৩২ টাকা করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন কিছুদিন আগে বেসরকারী টিভি চ্যানেলের তালাশ নামে অনুসন্ধানী রিপোর্টে একটি পর্বে নাম দেওয়া হয়েছিলো “তারে কারেন্ট খায়’! আমারটা ও কি তাহলে তারে কারেন্ট খাচ্ছে?

১৩ নং মায়ানী ইউনিয়নের বটতল আবুতোরাব এলাকার মাহবুবুল আলমের বাসা ভাড়াটিয়া আরেক গ্রাহক মনজুল আলম জানান, তাঁর হিসাব নং ০৩-০১৭১-১৩৯৩ তার মিটারে যদিও ১৯০৬ টাকা বিল করা হয়েছে। কিন্তু পুর্বে মাস গুলোতে নিয়মিত তার বিল আসতো ৪৫০-৫৩০ টাকা মতো বিল আসতো। কিন্তু এই ভুতুড়ে বিলের এর প্রতিকার কী?

এই বিষয়ে চট্টগ্রাম পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩ এর মীরসরাই জোনাল অফিসের ডিজিএম মো. সাইফুল আহম্মেদ বলেন, করোনা ভাইরাস সংক্রামণের কারণে গ্রাহকদের আঙ্গিনায় গিয়ে বিদ্যুাৎ বিল করা সম্ভব হয় নি। বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ এক বক্তব্য অনুপাতে গত বছরের এপ্রিল মে মাসের বিদ্যুৎ বিল দেখে এই বছরের এপ্রিল মে মাসের বিদ্যুৎ বিলের সমন্বয় করে দেওয়া হবে। তবে কোন গ্রাহকের বিদ্যুৎ বিল অবিশ্বাস্য রকমের বেশি আসলে তা হয়তো ভুলবসত হতে পারে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম