1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
খামাড়ীরা করোনায় করুনা করছেন প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রনোদনা ঋনের জন্য - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
বাঁশখালী স্টুডেন্টস্ ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের পুরস্কার বিতরণ বর্ষবরণে রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউতে রঙ তুলির আঁচড়ে বাঙালী সংস্কৃতি তুলে ধরতে আয়োজিত  দেশের বড় আল্পনা উৎসব শোলাকিয়া ঈদগাঁহ ময়দানের ঈদুল ফিতরের নামাজ লাখ লাখ মানুষের অংশগ্রহণ ঠাকুরগাঁওয়ে আম বাগানগুলোর গাছে ব্যাপক পরিমাণে আম ঝুলছে ! ঠাকুরগাঁওয়ের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে আনন্দের সীমা নেই! কারণ ভারতের কাছ থেকে ৯১ বিঘা জমি উদ্ধার ! Feelflame Evaluation: Initial Statements ঠাকুরগাঁও জেলা ও বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা বাসিকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাংবাদিক মোঃ মজিবর রহমান শেখ, Onwin bahis adresi nasıl alınır? Hızlı ve Kolay Rehber Site Adres Güncellemesi Onwin bahis sitesi ile oynayarak heyecan dolu oyunlara katılın! En güvenilir ve kazançlı bahis deneyimi Onwin’de sizi bekliyor. আলহাজ্ব  আমজাদ হোসেন মোল্লার উদ্দ্যোগে রাজধানীর রূপনগরে  গরীব, অসহায় পাশাপাশি  বিএনপির নেতা কর্মীদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ

খামাড়ীরা করোনায় করুনা করছেন প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রনোদনা ঋনের জন্য

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৪ জুন, ২০২০
  • ১০৫ বার

নুর আলম সিদ্দিকী স্টাফ রিপোর্টার ঃ বগুড়া জেলার ধুনট উপজেলা ঘুরে খামারিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কয়েক বছর ধরে ধান-চালের ব্যবসা ভালো যাচ্ছে না। তাই চাতাল ব্যবসায়ীরা চাতালের পাশেই মুরগির খামার গড়ে তুলেছেন। আবার গ্রামগঞ্জে ছোট-বড় খামার করে অনেকে মুরগি পালন করছেন। এতে উপজেলায় প্রায় হাজারের মতো মুরগির খামার গড়ে উঠেছে। তবে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ে খামারিদের কোনো তালিকা নেই তাই খামারির সংখ্যা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
এ বিষয়ে ধুনট উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাক্তার সাইফুল ইসলামের সাথে মুটোফোনে যোগাযোগ করে পাওয়া যায়নি।
শ্যামল বাংলা ডট নেট এ-র স্টাফ রিপোর্টার নুর আলম সিদ্দিকীকে বগুড়া জেলার ধুনট উপজেলার মাঝবাড়ী গ্রামের দুই ভাই বড় ভাই সাইফুল ইসলাম ছোট ভাই রন্জু মিয়া বলেন, সংসারের সম্মিলিতভাবে কৃষি খামারের ভাবনায় বসেন দুই ভাই মিলে খামার গরার চিন্তা করে ২০০৮ সালে বয়লার মুরগীর খামার গরেন। ব্রয়লারের খামারে একবার লাভ হয় দু’বার লোকসান হয়, এভাবে চলতে থাকে ২০১৩ সালের শেষ পর্যন্ত। পরে যখন ২০১৪ সালে টার্কি মুরগীর চাহিদা সারাদেশে ব্যাপকভাবে সাড়াযাগে তেমনি এক মুহুর্তে দুই ভাই মিলে টার্কি মুরগী ১০০০পিচ কিনে টার্কির প্রথম খামার শুরু করেন। ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস এক হাজার পিচ টার্কি মুরগী থেকে বার্ড ফ্লু রোগে ৩০০পিচ মারা যায়, যার মুল্য ১৫০০০০০(দের লাখ) টাকা ছিলো। জিরো বাচ্চার দামছিলো ৮০০টাকা জোরা। ডিম দেওয়া এক জোরা টার্কির দাম ছিলো ১০০০০(দশ হাজার) টাকা। পরে টার্কি মুরগীর চাহিদা ব্যাপকভাবে বেড়েযায়, কিছুদিন পরে উন্নতজাতের টার্কি বাজারে আসা শুরু করলো যার নাম ছিলো রেড বার্মা,জার একজোরার দাম ছিলো ৪০০০০(চল্লিশ হাজার)টাকা। ২০১৭ সালে দাম স্বাভাবিক থাকার পরে হটাৎ দাম শেয়ার বাজারের ন্যায় কমিয়ে যায়, যার মুল্য একজোরা চল্লিশ হাজার থেকে নেমে হয় জোরা ৪০০০(চারহাজার)টাকা। পরে দাম আরো কমিয়ে যাওয়ার আসংকায় লোকসান করে বেচতে হয় টার্কি মুরগী সেইবার সর্বমোট লোকসান গুনতে হয়েছিলো ১৯০০০০০(উনিশ লাখ)টাকা। ২০১৭ সালের দিকে নেট কেটে ২৫০পিচ টার্কি মুরগী চুরিও হয়ে যায় । সব লোকসান পুষিয়ে নিতে দুই ভাই মিলে আবারো চেস্টা চালিয়ে যান, কিভাবে কোন জাতের মুরগি পালন করলে লাভবান হওয়া যায় সেই খোজ খবর রাখেন খামারীদের কাছে, নিত্যনতুন ব্যাবসার ভাবনা ভাবেন দুই ভাই এমনি এক মুহুর্তে তিথি মুরগীর তথ্য পান। পরে তিথী মুরগীর অনেক তথ্য সংগ্রহ করে ২০১৮ সালের শুরুতে ২৭পিচ তিথী মুরগী দিয়ে শুরু করেন তিথীর খামার, সেই তিথী মুরগীর খামারে যখন লোকশান পুশিয়ে নেওয়া শুরু করলো এমনি এক মুহুর্তে সারাবিশ্বে করোনার আক্রমণ। করোনার আক্রমণে সমস্ত স্বপ্ন ভাংগা শুরু করলো । এখন রানিং ৪০০(চরশত) পিচ তিথী মুরগী আছে যার প্রতি সপ্তাহে ৯০০০(নয়হাজার)টাকার খাবার দিতে হয় আর প্রতি সপ্তাহে প্রায় ৫০০০টাকা লোকসান গুনতে হয়। করোনার প্রভাবে ১৫০-২০০টাকা প্রতিপিচ বাচ্চা এখন বিক্রি করতে হয় ৫০-৬০টাকায়। বর্তমান করোনা পরিস্থিতি শেষ না হওয়া পর্যন্ত লোকসান গুনতে হবে। সাইফুল ইসলাম বলেন. এই মুরগী গুলো এখন গলার কাঁটা হয়ে দারীয়েছে, না পারছি বিক্রি করতে না পারছি রাখতে এমতঅবস্হায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা রিনের হাত বারীয়ে দেওয়ার জোর দাবি জানান প্রনোদনা ঋন সংশ্লিষ্টদেরকে।
উপজেলায় ছোট-বড় প্রায় এক হাজার মুরগির খামার আছে। স্থানীয় বেসরকারি সংস্থাগুলোর কাছ থেকে ঋণ নিয়ে অনেকে মুরগি পালন করেন।
সরকারিভাবে কোনো ধরনের সুবিধা পাননি খামারী সাইফুল ইসলাম ও রঞ্জু মিয়া। ধুনট উপজেলার মুরগী খামাড়ীরা করোনায় করুনা করছেন প্রনোদনা ঋনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে। প্রতিদিন এই উপজেলা থেকে প্রায় প্রায় ৫০হাজার মুরগি ও ডিম দেশের বিভিন্ন জেলায় যায়।
তিনি বলেন, কয়েকজাত মিলিয়ে এক হাজার মুরগি পালন করছি বাচ্চা ফুটানোর জন্য। খামারিরা বলেন, সোনালি জাতের মুরগি ৭০ দিন হলে বাজারে তোলা হয়। এবার শীতে মুরগিগুলো ৩০ থেকে ৪০ দিনের ছিল। এ অবস্থায় অনেক মুরগি রানীক্ষেত ও গাম্বুরো রোগে মারা যায়। বাকি মুরগিগুলো বড় হওয়ায় তাঁরা বাজারে তুলেছেন। কিন্তু দাম কমে গেছে। অনেক খামারি ডিলারদের কাছ থেকে বাচ্চা,খাদ্য ও ওষুধ বাকিতে নিয়ে এই ব্যবসা করেছেন। দুই দফা লোকসানে তাঁরা ঋণে জড়িয়ে পড়েছেন।
উপজেলার নিমগাছী ইউনিয়নের বেরেরবাড়ী বাবু বাজারের হিটলার মন্ডল হেলাল মিয়া বলেন, ১হাজার দুইশত মুরগী মুরগির বাচ্চা কিনে একেকটি ডিম দেওয়া মুরগি তৈরি করতে ১২০০ টাকা খরচ পড়েছে।প্রতি মাসে লোকসান গুনতে হচ্ছে ১০থেকে ১৫ হাজার টাকা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা ঋনের আওতায় না-পরার কারন হিসাবে বলেন আমরা যারা এক দুই হাজার মুরগির খামার করেছি তারা প্রনোদনার আওতায় না পরে পরেছে গ্রুপ কোম্পানি গুলো।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম