1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
দেশবরেণ্য কথাসাহিত্যিক এর করোনাকালের দিনলিপি সেলিনা হোসেন- ঘরবন্দি এই জীবন কখনো দেখিনি - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৪৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীনগরে ফসল কর্তন উৎসব ও কৃষক সমাবেশ অনুষ্ঠিত Mostbet Partners Mostbet Sports Betting & & Online Casino Associate Program Reviews বাঁশখালীতে মধ্যরাতে অগ্নিকান্ডে পুড়েছে চার দোকান ফাঁসিয়াখালী-মেদাকচ্ছপিয়া পিপলস ফোরাম (পিএফ) সাধারণ কমিটির সভা সম্পন্ন চৌদ্দগ্রামে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উদযাপন চৌদ্দগ্রামে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা ফের ৩দিন ক্লাস বর্জনের ঘোষণা কুবি শিক্ষক সমিতির নবীনগরে পৃথক মোবাইল কোর্ট অভিযানে সাড়ে ৪ লাখ টাকা জরিমানা দৈনিক আমাদের চট্টগ্রামের সম্পাদক মিজানুর রহমান চৌধুরী উপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মাঠে নেমেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা

দেশবরেণ্য কথাসাহিত্যিক এর করোনাকালের দিনলিপি সেলিনা হোসেন- ঘরবন্দি এই জীবন কখনো দেখিনি

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২৭ জুন, ২০২০
  • ১২২ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার :
‘শৈশব, কৈশোর, তরুণ বয়স পেরিয়ে এখন আমি পরিণত বয়সে। ৭৩ বছরের জীবনে কখনো এমন সময় আর আসেনি। মহামারি হতে দেখেছি। কলেরা দেখেছি। বসন্ত হতে দেখেছি। কিন্তু করোনাকালের এই ঘরবন্দি জীবন কখনো দেখিনি। মুক্তিযুদ্ধের সময়টা অন্য রকম ছিল। তখনো মানুষের সঙ্গে মানুষের যোগাযোগটা ছিল। ঝুঁকি নিয়ে হলেও যোগযোগ হতো, দেখাশোনাও হতো।’

শ্যামল বাংলা ডট নেট এর বিশেষ প্রতিবেদক মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় কথাগুলো বলছিলেন দেশবরেণ্য কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন। তিনি বলেন, ‘তিন মাসের বেশি সময় ধরে ঘরবন্দি জীবন পার করছি। এত দীর্ঘ সময় ঘরবন্দি আর কখনো থাকিনি। করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে গত ২২ মার্চ থেকে আমি স্বেচ্ছায় ঘরবন্দি আছি। এর মধ্যে সাকল্যে তিন দিন বাইরে গেছি। দুই দিন ডাক্তারের কাছে, আর এক দিন দুস্থদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করতে।’
সময়টাকে খুব কষ্টের উল্লেখ করে এই কথাসাহিত্যিক আরো বলেন, “সবচেয়ে বেশি অভাব বোধ করছি মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ, সাক্ষাৎ। ফোনে কথা বলে মনটা তো আর ভরে না, যদিও কথা হয়। সবার সঙ্গে ফোনে প্রায় একই রকম কথা। এই যেমন ‘কেমন আছেন’, ‘ভালো থাকবেন’, ‘আল্লাহ রহম করুন’। কিন্তু অন্তরঙ্গতা তো হয় না। গল্প করা, আনন্দ করা, হৈচৈ করা হয় না। দুঃখের কথা ভাগাভাগি করা হয় না। মানুষের সঙ্গে মানুষের যে সঙ্গ আমরা লাভ করি, সেটা প্রিয়জন হোক আর যে-ই হোক, বসে কথা বলে যে আনন্দ, তা তো আর পাচ্ছি না।”

দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে সেলিনা হোসেন যোগ করেন, ‘আজ (গতকাল শুক্রবার) মনটা খুব খারাপ। এক প্রিয়জন মারা গেছেন। আরেকজন করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়ে ভীষণ অসুস্থ। চারদিকে শুধু দুঃসংবাদ। আরেকজন ফোন করে জানালেন, ভীষণ শ্বাসকষ্ট হচ্ছে। অক্সিজেন সিলিন্ডার পাচ্ছেন না। হাসপাতালেও ভর্তি হতে পারছেন না। আনিসুজ্জামান স্যার, কামাল লোহানী ভাইয়ের মৃত্যু সংবাদ শোনার পর মনে হলো জীবনটাই বুঝি শেষ! একটা আতঙ্কের মধ্যে সবাই সময় পার করছে। শঙ্কায় আছি আমিও, কখন আক্রান্ত হই। তবে আমি পীড়িত হয়ে যাইনি।’

শ্যামল বাংলা ডট নেট এর বিশেষ প্রতিবেদক মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার প্রশ্ন করেন সময়টা কিভাবে পার করছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, “ঘরেই তো আছি। টেলিফোনে প্রিয়জনদের খোঁজখবর নিই। বাকি সময়টায় বই পড়ি। কখনো কখনো লেখি। এই খারাপ সময়ের মধ্যেও মনটা একটু স্থির হলে লিখতে বসি। মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষাপটে লিখছি উপন্যাস ‘বধ্যভূমিতে বসন্ত বাতাস’। মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যার নির্মমতা সরাসরি প্রত্যক্ষ করেছি। একাত্তরের ১৯ ডিসেম্বর রায়েরবাজার বধ্যভূমিতে শহীদ সেলিনা পারভীনের চোখ বাঁধা ক্ষতবিক্ষত মরদেহ পড়ে থাকতে দেখেছি। এ ছাড়া অনেক গণকবর এবং বধ্যভূমি দেখেছি। এসব নিষ্ঠুরতার চিত্র থাকবে এ উপন্যাসে।”
বর্তমান সময়টাকে স্থবির উল্লেখ করে সেলিনা হোসেন আলাপচারিতাকে সম্প্রসারিত করেন, ‘প্রতিদিন অপেক্ষায় আছি কবে, কিভাবে কাটবে এই করোনাকাল। কবে কাটবে মহামারির সংকট। এই স্থবির সময় অতিক্রম করে কবে আমরা দেখব নতুন পৃথিবী। করোনাভাইরাস মানুষের ভাবনাকে, জীবনকে স্থবির করে দিয়েছে। বিশ্বজুড়েই এই পরিস্থিতি। তবে এটাও আমাদের একটা অভিজ্ঞতা। একসময় বিশ্বজুড়ে প্লেগ মহামারি দেখা দিয়েছিল। আমরা সেটা না দেখলেও উপন্যাসে পড়েছি। করোনার এই সময়টাও অন্য রকম। এই সময়টাও আমাদের কবি, সাহিত্যিক, চিত্রশিল্পী, চলচ্চিত্রকার— সৃজনশীল মানুষ যাঁরা আছেন, তাঁদের সৃষ্টিকর্মে অবশ্যই চিত্রিত করবেন। এই অন্য রকম সময়টা কিভাবে মানুষ পার করেছিল তা সৃষ্টিকর্ম থেকেই যেন আগামী প্রজন্ম জানতে পারে। সবার সৃষ্টিকর্মে সময়টা প্রতিফলিত হলে এটা হবে আমাদের একটি প্রাপ্তি। আমি নিজেও এই করোনাকাল নিয়ে একটি উপন্যাস লিখব বলে ভাবছি।’

বাসায় সেলিনা হোসেন এবং তাঁর স্বামীর সঙ্গে আরো থাকছেন দুই গৃহকর্মী। সেলিনা হোসেনের কন্যা বৈমানিক ফরিয়া লারা ১৯৯৮ সালে বিমান দুর্ঘটনায় মারা যাওয়ার পর তাঁর নামে একটি ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করে সমাজসেবা কার্যক্রম পরিচালনা করছেন তাঁরা। গাজীপুরের একটি এলাকায় সপ্তাহে এক দিন এই ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে দরিদ্রদের চিকিৎসাসেবা দেওয়া হয়। করোনা পরিস্থিতিতে ওই এলাকার দুস্থদের মধ্যে ত্রাণও বিতরণ করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম