1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
দেশে করোনা শনাক্ত লক্ষাধিক জনস্বাস্থ্যে অব্যবস্থাপনার ফল - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৫০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
যাত্রীবাহি বাসের ধাক্কায় প্রাণ গেল চুয়েটের দুই শিক্ষার্থীর নবীগঞ্জে সাংবাদিকদের সঙ্গে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী সাংবাদিক সাইফুল জাহান চৌধুরীর মতবিনিময় নবীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী বোরহান চৌধুরীর নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের মত বিনিময় সভা ঠাকুরগাঁওয়ে ঐতিহ্যবাহী বৈশাখী মেলাকে আবদ্ধ করার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন চট্টগ্রামের চন্দনাইশে পুকুরে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু তীব্র তাপদাহে রাউজানে পথচারীদের মাঝে সুপেয় পানি বিতরণ মাগুরায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ৬ পরিবারের প্রায় ১৫ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি! ছবি তোলার অপরাধে সাংবাদিক গ্রেফতার, অত:পর মুক্তি নবীনগরে প্রারম্ভিক শিশু বিকাশ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত মহাকবি আল্লামা ইকবালের ৮৬তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন

দেশে করোনা শনাক্ত লক্ষাধিক জনস্বাস্থ্যে অব্যবস্থাপনার ফল

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২০ জুন, ২০২০
  • ১২৯ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার :
বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস কোভিড-১৯-এর মহামারী নিয়ন্ত্রণে আসছেই না। এক অঞ্চলে প্রকোপ কমছে তো, পৃথিবীর অন্য প্রান্তে এটি হানা দিচ্ছে আরো দ্রুত গতিতে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে, দক্ষিণ এশিয়ায় এখন করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। এ অঞ্চলের আট দেশে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ব্যাপকভাবে বাড়ছে। আমাদের দেশ বাংলাদেশে উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে করোনার সংক্রমণ। দেশে ৮ মার্চ প্রথম সংক্রমণের পর ১০৩তম দিন গত বৃহস্পতিবার শনাক্ত রোগীর সংখ্যা এক লাখ দুই হাজার ২৯২ জন ছাড়িয়ে গেছে। দক্ষিণ এশিয়ার অন্য দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশে করোনা রোগী শনাক্ত এক লাখ ছাড়াল অপেক্ষাকৃত দ্রুত সময়ে। এর মধ্য দিয়ে সংক্রমণের সংখ্যার দিক থেকে বাংলাদেশ এখন শীর্ষ দেশগুলোর তালিকায় ১৭তম স্থানে চলে এসেছে।
সংক্রমণের ধারা, বর্তমান প্রেক্ষাপট এবং আক্রান্তের সংখ্যা বেশি, এমন দেশগুলোর অভিজ্ঞতা বলছে, আমাদের দেশে সংক্রমণ আরো তীব্র হতে পারে। প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে, দেশে করোনাভাইরাসের প্রকোপ শুরুর পর প্রথম ৫০ হাজার রোগী শনাক্ত হয়েছিল ৮৭ দিনে; এরপর তা লাখে পৌঁছতে সময় লেগেছে মাত্র ১৬ দিন। প্রথম রোগী শনাক্তের ২৮ দিন পর ৬ এপ্রিল মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা শতের ঘর ছাড়ায়। ১৪ এপ্রিল এক হাজার ছাড়ায় শনাক্ত রোগী। ৪ মে ১০ হাজার, ১৫ মে ২০ হাজার এবং ২ জুন ৫০ হাজার ছাড়িয়েছিল মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা। ১৬ দিনের ব্যবধানে আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ হাজার থেকে দ্বিগুণ হয়েছে। দেশে প্রথম ২৫ হাজার রোগী শনাক্তে সময় লেগেছে ৭৩ দিন। শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার আরেকটি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, এক থেকে ১০ হাজার রোগী শনাক্ত হতে সময় লাগে ৫৮ দিন। সর্বশেষ ৯০ হাজার থেকে এক লাখ এই ১০ হাজার রোগী শনাক্ত হয়েছে মাত্র তিন দিনে। সরকারি তথ্যমতে, দেশে ১৮ মার্চ প্রথম কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগী মারা যান। ২০ এপ্রিল মৃতের সংখ্যা ১০০ ছাড়ায়। ১০ জুন মৃতের সংখ্যা হাজারের ঘর পেরিয়ে যায়। মৃত্যুর হিসাব বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, মার্চে পাঁচজন, এপ্রিলে ১৬৩ জন, মে’তে ৪৮২ জন এবং জুনে এখন পর্যন্ত ৬১২ জন মারা গেছেন। আর গত বৃহস্পতিবার করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে মোট এক হাজার ৩৪৩ জনে পৌঁছে। পরিসংখ্যান বিশ্লেষণে দেখা গেছে, দেশে করোনায় আক্রান্তের হার ২৩ শতাংশ। মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩৩ শতাংশ।
করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ক্রমেই বাড়তে থাকায় সামনের দিনগুলোতে এ রোগে মৃত্যুর হার বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন দেশের বিশেষজ্ঞরা। আমাদের দেশে সংক্রমণ কবে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছে গ্রাফ ফের নিম্নমুখী হবে, সে বিষয়ে এখনো কোনো ধারণা দিতে পারছেন না তারা। অন্য দিকে হতাশার খবর শুনিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক। গত বৃহস্পতিবার তিনি বলেছেন, দেশের করোনাভাইরাস আগামী এক-দুই বা তিন মাসে যাবে না। এটি দুই থেকে তিন বছর বা তার চেয়েও বেশি স্থায়ী হতে পারে। তবে সংক্রমণের মাত্রা উচ্চহারে না-ও থাকতে পারে। দেখেশুনে মনে হচ্ছে, জনস্বাস্থ্যের চরম অব্যবস্থাপনার ফলে করোনা মোকাবেলায় দেশে এমন সঙ্কট তৈরি হয়েছে। সাদা চোখেই দেখা যাচ্ছে দেশের স্বাস্থ্য খাত বড়ই নড়বড়ে। ফলে পদে পদে সমন্বয়হীনতা। তা ছাড়া যাদের হাতে দেশের স্বাস্থ্য খাত পরিচালনার ভার ন্যস্ত; তারা করোনা নিয়ে প্রথম থেকেই লুকোচুরি করেছেন বলেই প্রতীয়মান হয়। এই ভাইরাস প্রতিরোধে যথাযথ গুরুত্ব না দিয়ে কথার ফুলঝুরি ছুটিয়েছেন তারা। এতে দেশে করোনা পরিস্থিতির প্রকৃত অবস্থা কী তা অস্পষ্টই রয়ে গেছে। দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের গাফিলতির কারণে আজ দেশবাসীকে চরম মূল্য দিতে হচ্ছে।
করোনা প্রতিরোধে যথাযথ পদক্ষেপ না নেয়ায় সময় দ্রুত ফুরিয়ে গেছে। এই ভাইরাস মোকাবেলায় প্রথম থেকেই জাতীয় ঐকমত্যের ভিত্তিতে সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টা ছিল অতীব জরুরি; কিন্তু তা না হওয়ায় আজ করোনা নিয়ে দেশে লেজে-গোবরে অবস্থা। মনে হচ্ছেÑ এখন আমাদের আর তেমন কিছুই করার নেই। তবু সচেতন থাকার কোনো বিকল্প নেই। সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে যতটুকু পারা যায় করোনা প্রতিরোধে সচেষ্ট থাকতে হবে। দয়াময় আল্লাহ আমাদের করোনা মহামারী থেকে হেফাজত করুন।

লেখকঃ বিশেষ প্রতিবেদক | সাবেক কাউন্সিলর বিএফইউজে-বাংলাদেশ ও সদস্য ডিইউজে |

২০ জুন ২০২০- | ৬ আষাঢ় ১৪২৭ | ২৭ শাওয়াল ১৪৪১ | শনিবার |

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম