1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
দোকান ভাড়া নিয়ে উত্তাল রাজধানী, চরম বিশৃঙ্খলার আশংকা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:৪৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:

দোকান ভাড়া নিয়ে উত্তাল রাজধানী, চরম বিশৃঙ্খলার আশংকা

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৫ জুন, ২০২০
  • ১৩২ বার

জাফরুল আলম : রাজধানীতে দোকান ভাড়া সংক্রান্ত জটিলতা বেড়েই চলেছে। দোকান ভাড়া মওকুফের দাবিতে উত্তাল রাজধানীর মার্কেটগুলো। মিছিল, মিটিং আর শ্লোগানে উত্তপ্ত তারা। আর এ আন্দোলনের উত্তাপ দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়ছে এক মার্কেট থেকে আরেক মার্কেটে। এ অবস্থায় ব্যবসায়ীরা দোকান ভাড়া মওকুফের দাবিতে একাট্টা। দোকান খুলেই যোগ দিচ্ছেন মিছিল মিটিংয়ে। তাদের প্রধান আলোচনাই দাঁড়িয়েছে দোকান ভাড়া। আর এ সমস্যা দিনে দিনে বেড়েই চলছে। দ্রুত এর সমাধান না হলে চরম বিশৃঙ্খলার আশংকা করছেন ব্যবসায়ীরা।

অন্যদিকে দোকান ভাড়া নিয়ে জটিলতা নিরসনে নিজেদের মধ্যে সমাধান করার অনুরোধ জানিয়েছেন বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন। তিনি বলেছেন, কোন বিশৃঙ্খলা নয়, সুষ্ঠুভাবে অালোচনা করেই এর সমাধান করতে হবে।

দেশে চলমান করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে অর্থনৈতিক মন্দাভাব বেড়েই চলছে। দিনে দিনে স্থবির হয়ে পড়ছে ব্যবসা বাণিজ্য। এ অবস্থায় রাজধানীর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোতেও দেখা দিয়েছে চরম হাতাশা। প্রতিদিনই গুনতে হচ্ছে লোকসান। ভারি হচ্ছে লোকসানের পাল্লা। এ অবস্থায় দোকান ভাড়া পরিশোধ করতে হিমশিম খাচ্ছেন দোকানিরা।

ব্যবসায়ীরা জানান, চলতি বছর মার্চে এ দেশে করোনাভাইরাস শুরু হবার পর থেকেই ব্যবসায় মন্দাভাব শুরু হয়। সরকারের নির্দেশে ধাপে ধাপে দোকানপাট বন্ধ থাকাকালীন আমাদের আয় রোজকারও ছিল বন্ধ। আর এখন দোকান খুল্লেও নেই বিক্রি। অার যা বিক্রি হচ্ছে, তা দিয়ে সংসার চালাতে আমরা হিমশিম খাচ্ছি। এভাবে চলতে থাকে অামাদেরকে পথে বসতে হবে। যদি আমাদের আয়ই বন্ধ হয়ে যায়। তাহলে অামরা খাবো কি, আর ভাড়া দিব কীভাবে! ব্যবসায়ীরা আরো বলেন, গত ঈদে আমাদের দোকানপাট খুললেও ব্যবসায় চরম মন্দা হয়েছে। স্টাফ বেতন কিংবা বোনাস দিতেও কষ্ট হয়েছে। আশানুরূপ বিক্রি তো দূরের কথা, বরং চরম মন্দা হয়েছে ঈদব্যবসা। তবুও জীবন সংগ্রামে একমাত্র আয়ের উৎস দোকানটাকে ধরে রেখেছি। কিন্তু ব্যবসায় এতোটা মন্দাভাব, সত্যিই আমাদেরকে হতাশ করেছে। এ অবস্থায় পরিবার পরিজন নিয়ে তিন বেলা খেয়ে বেঁচে থাকাটা কষ্টকর হয়ে পড়েছে।

আর এরই মধ্যে তীব্র আন্দোলনের মুখে দুই মাসের ভাড়া মওকুফে ঢাকা নিউ সুপার মার্কেটের দোকান মালিক সমিতি দফায় দফায় বৈঠক করেন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে। পরে তারা এপ্রিল মাসের ভাড়া মওকুফ করার সিদ্ধান্ত নেয় এবং মে মাসের ভাড়াও মওকুফের আশ্বাস দিয়েছেন দোকান মালিক সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ শহিদ।

জানা যায়, গাউছিয়া মার্কেট, চাঁদনী চক মার্কেট, ধানমন্ডি হকার্স মার্কেট, নূর জাহান মার্কেট, গুলিস্থান ট্রেড সেন্টার, টিকাটুলি রাজধানী সুপার মার্কেট, পুরান ঢাকার পাটুয়াটুলীর হোলসেল মার্কেটসহ রাজধানীর বিভিন্ন মার্কেটের ব্যবসায়ীরাও এখন আন্দোলনে। আবার কেউ অান্দোলনের প্রস্তুতিও নিচ্ছেন। এরই মধ্যে অনেক ব্যবসায়ী ভাড়া মওকুফের জন্য দোকান মালিক সমিতি বরাবর লিখিত আবেদনও করেছেন। এ আন্দোলনের মুখে উত্তরার সকল মার্কেট দুই মাসের ভাড়া মওকুফের ঘোষণাও দিয়েছে। পাটুয়াটুলীর ইলিয়াছ মার্কেটের হোলসেল ব্যবসায়ী নাছিম আহমেদ বলেন, সবকিছু সমঝোতার মাধ্যমে হোক এটাই আশা করি। যদি এভাবে দোকানে লভ্যাংশের বদলে লোকসান গুণতেই থাকি। তাহলে অামাদের ব্যবসা ধরিয়ে রাখা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়বে। এ ব্যাপারে সরকারের হস্তক্ষেপ দাবি করেন তিনি। এই ব্যবসায়ী আরও বলেন, বর্তমান সরকার ব্যবসায়ীদের সমস্যার দিকে সবসময় দৃষ্টি দেন। এখনও দিবেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওয়ারীর অারেক ব্যবসায়ী বলেন, দোকান ভাড়া, স্টাফ বেতন, বিদ্যুৎ বিলসহ অন্যান্য খরচ পরিশোধ করার মতো অবস্থা অামাদের নেই। এ টানাপোড়ন অবস্থায় অামরা নিজেদের সংসারের খরচ মেটাতেই হিমশিম খাচ্ছি। তবে তিনি আশা করেন, মার্কেটগুলোতে ভাড়া সংক্রান্ত সমস্যা দ্রুত সমাধান হবে। সেই সাথে মার্কেট ব্যতীত যে সব দোকারপাট, শোরুম রয়েছে। এগুলোরও ভাড়া মওকুফের দাবি জানান তিনি। ব্যবসায়ীদের জোরালো দাবি হচ্ছে, কমপক্ষে ২ মাসের ভাড়া মওকুফ। সেই সাথে করোনাকালীন সময়ে দোকান ভাড়া যেন কমপক্ষে ৫০ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়। দোকানপাট বন্ধ করার সরকারের নির্ধারিত সময়সীমা নিয়ে গুলিস্তানের এক ব্যবসায়ী সালাম বলেন, এভাবে ৪টা পর্যান্ত দোকানপাট চালু রাখলে ক্রেতার মুখ দেখা কষ্টকর। প্রচন্ড রোদে-গরমে ক্রেতারা অাসতে অনীহা করেন। কারণ অধিকাংশ ক্রেতা মূলত বিকেলেই পণ্য ক্রয়ে দোকানে আসেন। সরকারের কাছে দোকান খোলা রাখার সময়সীমা বাড়ানোর অনুরোধ করেন তিনি। তবে ব্যবসায়ী সালামের মতো দোকান খোলা রাখার সময়সীমা বাড়ানোর দাবি অনেক ব্যবসায়ীদের।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে ব্যবসায়ীরা লোকসানে পড়েছে। এ অবস্থায় নিজেদের মধ্যে ভাড়া সংক্রান্ত যে জটিলতা তৈরি হয়েছে। তা সমাধান করতে হবে এবং সেটা নিজেদের মধ্যে আলোচনার মাধ্যমেই সমাধানের জন্য অনুরোধ করেছেন তিনি। যাতে কোন বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি না হয়। ভাড়া নিয়ে জটিলতা সৃষ্টির ব্যাপারে সংগঠনের পক্ষ থেকে কোন পদক্ষেপ নিবেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা শুধু দোকান মালিকদের কাছে অনুরোধ করতে পারবো। তারা না মানলে অামাদের এ মুহূর্তে করার কিছু নেই।

ব্যবসায়ীদের দোকানপাট খোলা রাখার সময়সীমা বাড়ানোর দাবির প্রেক্ষিতে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই’র সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি হেলাল উদ্দিন অারও বলেন, আমি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে এ ব্যাপারে অবগত করেছি। আশা করি, আগামি মাস থেকে দোকানপাট সহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ৭টা পর্যন্ত খোলা রাখার প্রস্তাব বাস্তবায়ন হবে। তবে সবকিছু নির্ভর করবে করোনা পরিস্থিতি বিবেচনার ওপর। তবে ব্যবসায়ীরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে পারলে সরকারও আমাদের সমস্যাগুলো বিবেচনা করবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম