1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মীরসরাইয়ে তিন ফসলী কৃষি জমি অধিগ্রহণ না করার দাবিতে মানববন্ধন - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১১:০৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
যাত্রীবাহি বাসের ধাক্কায় প্রাণ গেল চুয়েটের দুই শিক্ষার্থীর নবীগঞ্জে সাংবাদিকদের সঙ্গে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী সাংবাদিক সাইফুল জাহান চৌধুরীর মতবিনিময় নবীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী বোরহান চৌধুরীর নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের মত বিনিময় সভা ঠাকুরগাঁওয়ে ঐতিহ্যবাহী বৈশাখী মেলাকে আবদ্ধ করার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন চট্টগ্রামের চন্দনাইশে পুকুরে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু তীব্র তাপদাহে রাউজানে পথচারীদের মাঝে সুপেয় পানি বিতরণ মাগুরায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ৬ পরিবারের প্রায় ১৫ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি! ছবি তোলার অপরাধে সাংবাদিক গ্রেফতার, অত:পর মুক্তি নবীনগরে প্রারম্ভিক শিশু বিকাশ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত মহাকবি আল্লামা ইকবালের ৮৬তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন

মীরসরাইয়ে তিন ফসলী কৃষি জমি অধিগ্রহণ না করার দাবিতে মানববন্ধন

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৩০ জুন, ২০২০
  • ১১৬ বার

মীরসরাই (চট্টগ্রাম) উপজেলা সংবাদদাতাঃ মীরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চল (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প নগরে) তিন ফসলি কৃষি জমি অধিগ্রহণ না করার দাবিতে মানববন্ধন কৃষক শ্রমিক সহ সর্বস্তরের জনগণ। উপজেলার ১১নং মঘাদিয়া, ১৩নং মায়ানী ও ১৬নং সাহেরখালী ইউনিয়নে প্রায় শতাধিক মানুষ মঙ্গলবার সকাল ১১টায় কাজিতালুক এলাকায় (সিপির দক্ষিণ পাশে) এই মানববন্ধন করা হয়। মানববন্ধন শেষে জানানো হয় আগামীকাল বুধবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করবেন।
উক্ত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন ভোক্তাভোগী কৃষক নুর হোসেন, রহিম উল্লাহ, আবু ছালেক মাষ্টার, হুদা মিয়া, মাইনুল আহসান রোকন, রবিউল হোসেন, আকলিমা আক্তার, মরিয়ম আক্তার সহ প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, প্রস্তাবিত দক্ষিণ এশিয়ার বৃহৎ শিল্পাঞ্চল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগর স্থাপনের উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের দক্ষিণ মঘাদিয়া মৌজা এলাকার প্রায় ৩০ হাজার একর অকৃষি জমি এই অঞ্চলের মানুষ দিয়ে থাকে। তখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন কোন প্রকার আবাদী জমি বা কৃষি জমি অধিগ্রহণ করা হবে না। কিন্তু গত কিছুদিন আগে দক্ষিণ মঘাদিয়া মৌজার ৭০০ একর তিন ফসলী জমি অধিগ্রহণের নোটিস জারি করা হয়।

বক্তারা আরো বলেন, কৃষিনির্ভর এলাকার এসব জমি কৃষকদের একমাত্র উপার্জনের উৎস। উপজেলার অন্যান্য এলাকার চেয়ে এই তিন ইউনিয়নের কৃষি জমিতে ধানসহ অন্যান্য ফসল বেশি উৎপাদন হয়ে থাকে। প্রতি বছর এই কৃষি জমিতে দুই থেকে তিন বার ফসল আবাদ করে এলাকার কৃষকরা জীবিকা নির্বাহ করে থাকে। এই জমি অধিগ্রহণ করা হলে কৃষকরা না খেয়ে মরবে। তাই কৃষকদের জমি অধিগ্রহণ না করার জোর দাবি জানান বক্তারা।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন এ প্রসঙ্গে বলেন, জমির মালিকরা আমাদের কাছে লিখিত আবেদনের মাধ্যমে তাদের দাবিগুলো উপস্থাপন করলে আমরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে সামাধানের চেষ্টা করবো।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম