1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মেডিকেল টেকনোলজিস্ট সংকটের সুরাহা জরুরি - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৫৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
বাঁশখালী স্টুডেন্টস্ ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের পুরস্কার বিতরণ বর্ষবরণে রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউতে রঙ তুলির আঁচড়ে বাঙালী সংস্কৃতি তুলে ধরতে আয়োজিত  দেশের বড় আল্পনা উৎসব শোলাকিয়া ঈদগাঁহ ময়দানের ঈদুল ফিতরের নামাজ লাখ লাখ মানুষের অংশগ্রহণ ঠাকুরগাঁওয়ে আম বাগানগুলোর গাছে ব্যাপক পরিমাণে আম ঝুলছে ! ঠাকুরগাঁওয়ের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে আনন্দের সীমা নেই! কারণ ভারতের কাছ থেকে ৯১ বিঘা জমি উদ্ধার ! Feelflame Evaluation: Initial Statements ঠাকুরগাঁও জেলা ও বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা বাসিকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাংবাদিক মোঃ মজিবর রহমান শেখ, Onwin bahis adresi nasıl alınır? Hızlı ve Kolay Rehber Site Adres Güncellemesi Onwin bahis sitesi ile oynayarak heyecan dolu oyunlara katılın! En güvenilir ve kazançlı bahis deneyimi Onwin’de sizi bekliyor. আলহাজ্ব  আমজাদ হোসেন মোল্লার উদ্দ্যোগে রাজধানীর রূপনগরে  গরীব, অসহায় পাশাপাশি  বিএনপির নেতা কর্মীদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ

মেডিকেল টেকনোলজিস্ট সংকটের সুরাহা জরুরি

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৪ জুন, ২০২০
  • ১১৪ বার

| অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার |
রাষ্ট্রীয় নীতিনির্ধারণে সরকার এবং জনপ্রশাসনের কর্মকর্তাদের অদক্ষতা ও অদূরদর্শিতা যে পেশাজীবী ও জনগণের জন্য কতটা ভয়াবহ পরিণাম ডেকে আনতে পারে তার দৃষ্টান্ত দেখা গেল মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের নিয়ে উদ্ভূত সংকটে। চিকিৎসা সেবা খাতে চিকিৎসক ও নার্সদের পাশাপাশি খুবই গুরুত্বপূর্ণ প্রশিক্ষিত মেডিকেল টেকনোলজিস্টরা। কিন্তু করোনা মহামারীর এই মহাদুর্যোগে পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা থেকে শুরু করে হাসপাতালগুলোতে মেডিকেল টেকনোলজিস্টের তীব্র অভাবে চিকিৎসাসেবা ব্যাহত হচ্ছে। অথচ দেশে প্রশিক্ষিত ২৫ হাজার মেডিকেল টেকনোলজিস্ট চাকরির অভাবে বেকার বসে আছেন।

এই জটিলতার শুরু দেড় যুগ আগে। কোনো সমন্বয় ছাড়াই দেশে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অনুমোদিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি শিক্ষা মন্ত্রণালয় অনুমোদিত বিভিন্ন কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মেডিকেল টেকনোলজিস্ট তৈরির শিক্ষা পরিচালনার অনুমতি দেওয়ার মধ্য দিয়ে। এই নীতি নির্ধারণী ভুলের জটিলতায় বিপুল পদ ফাঁকা থাকলেও গত ১০ বছর ধরে মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পদে নিয়োগ হচ্ছে না।
স্বাধীনতার আগে থেকেই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদিত ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি প্রশিক্ষিত মেডিকেল টেকনোলজিস্ট তৈরি করার কাজ করে আসছে। ডিপ্লোমা ও বিএসসিসহ এ সংক্রান্ত অন্য কোর্সগুলো পরিচালনা করছে দেশের ১৩টি সরকারি ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি। কিন্তু ২০০২ সালে তৎকালীন সরকার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে হেলথ টেকনোলজিস্ট তৈরির অনুমোদন দেয়। এখন বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড অনুমোদিত ২৩৮টি মেডিকেল টেকনোলজি প্রতিষ্ঠান আছে। কারা চিকিৎসাসেবা শিক্ষা দেবে আর কারা দেবে না এমন গুরুত্বপূর্ণ একটি সিদ্ধান্তের বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মধ্যে কোনো সমন্বয় নেই। এদিকে সরকারি নিয়োগে কারা প্রাধান্য পাবেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অনুমোদিত না শিক্ষা মন্ত্রণালয় অনুমোদিত মেডিকেল টেকনোলজিস্টরা এটা নিয়েই নিয়োগ জটিলতার শুরু।

এ সমস্যা সমাধানে ২০০৭ সালে একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটি সুপারিশ প্রদান করে। গত ১৩ বছরে সেই সুপারিশ বাস্তবায়ন করেনি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। সেই আন্তঃমন্ত্রণালয় সিদ্ধান্তকে উপেক্ষা করে মেডিকেল টেকনোলজিস্ট কোর্স পরিচালনা করে আসছে কারিগরি শিক্ষা বোর্ড। কয়েক দফা কমিটি গঠনের পর বিষয়টি আদালতে গড়ায়। ১০১৬ সালে সুপ্রিম কোর্ট মেডিকেল টেকনোলজিস্ট তৈরির শিক্ষা প্রদানকে ‘এক ছাতার নিচে’ আনার নির্দেশ দেয়। কিন্তু এখনো সেটি পুরোপুরি বাস্তবায়নে কালক্ষেপণ করা হচ্ছে।
সম্প্রতি মহামারী সামলাতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে জরুরি ভিত্তিতে ২ হাজার চিকিৎসক ও ৫ হাজার নার্স নিয়োগ দেওয়া হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ৩ হাজার স্বাস্থ্যকর্মীর নতুন পদ সৃষ্টি হলে ১ হাজার ২০০ মেডিকেল টেকনোলজিস্ট নিয়োগের পথ খোলে। এ সময়ই তড়িঘড়ি করে ১৮৩ জন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট নিয়োগের প্রক্রিয়ায় অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের ৫টি সংগঠন ওই নিয়োগ বাতিলের দাবি জানিয়ে আন্দোলনে নামে এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে ঘেরাও ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করতে থাকেন মেডিকেল টেকনোলজিস্টরা। এ বিষয়ে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব দেশ রূপান্তরকে বলেছেন, ১৮৩ জন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট নিয়োগ নিয়ে যে অনিয়ম ও আর্থিক লেনদেনের যে অভিযোগ উঠেছে সেসব তদন্ত করা হবে। পরিস্থিতি সামাল দিতে গিয়ে গত সোমবার স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে জানায়, ওই ১৮৩ জনের পদ সংরক্ষিত রেখে বাকি ১ হাজার ১৭ জনকে দ্রুত সময়ের মধ্যে নিয়োগ দেওয়ার জন্য। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ইতিমধ্যে বাকি পদে নিয়োগের প্রক্রিয়াও শুরু করেছে।

মেডিকেল টেকনোলজিস্ট এবং চিকিৎসাসেবা খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দেশে দেড় লাখ মেডিকেল টেকনোলজিস্ট প্রয়োজন। কিন্তু আছেন মাত্র ৫ হাজারের কিছু বেশি। অথচ দেশে ডিগ্রিপাপ্ত ২৫ হাজার মেডিকেল টেকনোলজিস্ট বেকার বসে আছেন। বিভিন্ন সময়ে চাকরির আন্দোলনে নেমেও তাদের কোনো লাভ হয়নি। মামলা, পাল্টা মামলা আর একের পর এক কমিটির সুপারিশে আটকে আছে এসব পদে নিয়োগের প্রক্রিয়া। দেড়যুগ আগের একটি রাষ্ট্রীয় নীতিনির্ধারণী ভুলের কারণে সৃষ্ট সংকটের সুরাহা এখনো করতে না পারা সত্যিই দুঃখজনক। এ অবস্থায় অবিলম্বে দেশের সব সরকারি হাসপাতালে প্রয়োজনীয় সংখ্যক মেডিকেল টেকনোলজিস্ট নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করা জরুরি। বৃহস্পতিবার প্রস্তাবিত বাজেটে করোনা মহামারীর যে কোনো জরুরি চাহিদা মেটানোর জন্য ১০ হাজার কোটি টাকার থোক বরাদ্দ রাখা হয়েছে। সব মিলিয়ে স্বাস্থ্য খাতে মোট ৪১ হাজার ২৭ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী। মহামারী মোকাবিলা এবং স্বাস্থ্য খাতের প্রয়োজনীয় সংস্কার কাজে এই অর্থ স্বচ্ছতার সঙ্গে যথাযথভাবে ব্যয় করা নিশ্চিত করতে হবে। একইসঙ্গে চিকিৎসক ও চিকিৎসা-জনবলের ঘাটতির দেশে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষিত জনবল তৈরি ও নিয়োগের প্রক্রিয়ায় সরকারকে আরও সুপরিকল্পিত সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

লেখকঃ বিশেষ প্রতিবেদক | সদস্য ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন ডিইউজে

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম