1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
রাজশাহীতে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজার স্থিতিশীল - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৮:৩১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
দেশে মেডিকেল ডিভাইস তৈরি করলে তা সাধারণ মানুষের কাছে সহজলভ্য হবে’ -স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন নবীগঞ্জ শহরের রাজা কমপ্লেক্সে হামলা ভাংচুর ও ৪ ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষ! শহর রণক্ষেত্র- আহত অর্ধশতাধিক৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশের টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ৷ লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনে যাত্রী ভোগান্তির শিকার দেখার কেউ নেই। চৌদ্দগ্রামে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ট্রাই সাইকেল বিতরণ চৌদ্দগ্রামের বাতিসায় জাতীয় পার্টির উদ্যোগে ইফতার সামগ্রী বিতরণ ব্যবসায়ী হাবিবুর রহমান হাবিবের ১৮তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন ঠাকুরগাঁও জমে উঠেছে জেলা পরিষদ নির্বাচন ! মোঃ মজিবর রহমান শেখ, ঠাকুরগাঁওয়ে “আত্মকথন” শীর্ষক ভিডিওচিত্র সংকলনের উদ্বোধনী ! চন্দনাইশে চিকিৎসক ঐক্য পরিষদের অভিষেক অনুষ্ঠান সম্পন্ন।

রাজশাহীতে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজার স্থিতিশীল

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৯ জুন, ২০২০
  • ১০২ বার

মঈন উদ্দীন: করোনার প্রভাব পড়েছে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজারে। বর্তমান পরিস্থিতিতে বেশ কিছুদিন থেকেই পণ্যের দাম স্থিতিশীল থাকলেও বাজারে কমেছে ক্রেতাদের ভিড়। এতে বিপাকে পড়েছেন নগরীর ব্যবসায়ীরা। তাদের দাবি, ক্রতা কম থাকায় গুণতে হচ্ছে লোকসান। নগরীর সাহেববাজার, বিনোদপুর কাঁচাবাজার, কাজলা বাজারসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন পণ্য নিয়ে বসে আছেন। কিন্তু সেই তুলনায় ক্রেতার সংখ্যা কম। সবজি বিক্রেতারা জানিয়েছেন, প্রায় সব সবজির দামই আছে আগের মতো। গত এক মাস ধরে সবজির দামের ক্ষেত্রে তেমন কোন পার্থক্য দেখা যায়নি।
বিক্রেতাদের দেয়া তথ্যমতে, ভেনরি গত সপ্তাহের ৩৫ টাকা কেজি হলেও এখন দাম হয়েছে ৩০ টাকা। লেবু ২০ টাকা হালি হলেও এখন ৮ টাকা হালিতে কিনতে পারছেন ক্রেতারা। দাম কমেছে কাঁচা মরিচের। কাঁচামরিচ ৫০ টাকা কেজি হলেও এখন ৪০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে। পুঁইশাক, পালং শাক, কচু শাক আগের মতো ১০ থেকে ১৫ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে। সবজির মতো দাম কমেছে পেঁয়াজ, রসুন এবং আদার। গত সপ্তাহের তুলনায় কেজিতে ৫ টাকা থেকে ৪০ টাকা পর্যন্ত দাম কমেছে। কিছুদিন আগেও পেঁয়াজের দাম ছিলো ৪৫ থেকে ৫০ টাকা। তবে এখন ৪০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে। আদা ও রসুনের দাম কমেছে কেজি প্রতি ৪০ টাকা। আদার দাম কেজি প্রতি ৪০ টাকা কমে দাম হয়েছে ১৪০ টাকা এবং রসুনের দাম হয়েছে ১২০ টাকা।
বিক্রেতারা জানান, লকডাউন শিথিল হলেও তেমন ক্রেতা নেই। মাছ থেকে শুরু করে সব পণ্যের আমদানি ভাল। কিন্তু ক্রেতা নেই। এতে আমরা ব্যবসায়ীয়া খুব ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছি। বাজার করতে এসেছিলেন গৃহিনী রিনা বেগম। তিনি বলেন, দেশের যে পরিস্থতি, আমরা ভেবেছিলাম সবকিছুর দাম অনেক বেশি হবে। কিন্তু সব কিছুর দামই অনেক স্বাভাবিক আছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম