1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
রেড জোন পটিয়ায়, আতঙ্ক নিয়েও লোকজন ঘুরছে ফ্রি স্টাইলে - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৩৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
বাঁশখালীতে মধ্যরাতে অগ্নিকান্ডে পুড়েছে চার দোকান ফাঁসিয়াখালী-মেদাকচ্ছপিয়া পিপলস ফোরাম (পিএফ) সাধারণ কমিটির সভা সম্পন্ন চৌদ্দগ্রামে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উদযাপন চৌদ্দগ্রামে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা ফের ৩দিন ক্লাস বর্জনের ঘোষণা কুবি শিক্ষক সমিতির নবীনগরে পৃথক মোবাইল কোর্ট অভিযানে সাড়ে ৪ লাখ টাকা জরিমানা দৈনিক আমাদের চট্টগ্রামের সম্পাদক মিজানুর রহমান চৌধুরী উপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মাঠে নেমেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা তিতাসে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা শেরপুরে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত

রেড জোন পটিয়ায়, আতঙ্ক নিয়েও লোকজন ঘুরছে ফ্রি স্টাইলে

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২০ জুন, ২০২০
  • ১১৬ বার

গিয়াস উদ্দিন (পটিয়া চট্টগ্রাম):
করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণের ব্যাপকতা বিবেচনায় নিয়ে পটিয়া উপজেলাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। সহসা তা লকডাউন করে দেবে সরকার। রেড জোন ঘোষণার ক্ষেত্রে পটিয়ারর সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ছড়ানোর মাপকাঠিতে উপরের দিকে রয়েছে গোবিন্দরখীল, আল্লাই, মুন্সেফবাজার, পাইকপাড়া, পটিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এলাকা, পাঁচুরিয়া, সুচক্রদন্ডী, খরনার মতো এলাকা।

পটিয়াকে রেড় জোন ঘোষণা করলেও লকডাউন শুরু হয়নি এখনো। ফলে ইচ্ছে মতো চলছে মানুষজন। ব্যবসা-বাণিজ্য, চলা-ফেরায় কোন রকম প্রতিবন্ধকতা নেই। ফলে অনিয়ন্ত্রিত জীবন যাত্রার কারণে ঝুঁকিপূর্ণ পটিয়ায় কোরোনাভাইরাসের সংক্রামণ ছড়াচ্ছে ব্যাপকহারে।

পটিয়া উপজেলা বেশি সংক্রমিত হওয়ার কারণ পটিয়ায় মানুষগুলো বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে ব্যাংকের চাকরি করায়। যার কারণে পটিয়া ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশের ঝুঁকিপূর্ণ জেলা উপজেলা গুলোতে পটিয়ার মানুষ রয়েছে। যার কারণে চট্টগ্রামের উপজেলা গুলোর মধ্যে পটিয়া উপজেলা বেশী সংক্রমিত এবং রেডজোন হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে।

পটিয়ায় করোনা আক্রান্তে, প্রতিবন্ধী, শিশু,বৃদ্ধ-যুবক-কিশোর নারী সহ আরো অনেকেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। যা অন্যান্য উপজেলার চেয়ে অনেক বেশি।

সপ্তাহের শনিবার থেকে বৃহস্পতিবার হাসপাতালে ১১০ নম্বর রুমের ফ্লু কর্ণারে আসা রোগীদের রোগের ধরনের উপর ভিত্তি করে চিকিৎসকদের নির্দেশনায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ২ জন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পর্যায়ক্রমে দায়িত্ব পালন করেন। ইতোমধ্য একমাত্র টেকনোলজিস্টের করোনা পজিটিভ হওয়ায় তিনি আইসোলেশনে আছেন। কোন ধরনের নির্দিষ্ট বুথ না থাকায় হাসপাতালের বাইরের খোলা আকাশের নীচে নমুনা সংগ্রহ করতে দেখা গেছে।

উপজেলার ল্যাব টেকনোলজিস্ট করোনা আক্রান্ত হওয়ায় পার্শ্ববর্তী চন্দনাইশ উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ল্যাব টেকনোলজিস্টের সহায়তায় সাপ্তাহিক তিনদিন করে সন্দেহভাজনদের নমুনা সংগ্রহ করছেন। যা চাহিদার তুলনায় অনেক কম।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে নমুনা সংগ্রহ করা পটিয়া উপজেলার ৮১ জনের রিপোর্ট দীর্ঘ এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে আটকে আছে ঢাকায়।

৮১ জনের নমুনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পক্ষ থেকে চট্টগ্রামের বিআইিটিআইটি ল্যাবে পাঠানো হয়। সেখানে জট লেগে যাওয়ায় বিআইটিআইটি কর্তৃপক্ষ ঢাকার ল্যাবে পাঠিয়ে দেয় নমুনাগুলো। এক সপ্তাহ পার হয়ে গেলেও উক্ত রিপোর্টগুলো প্রকাশ করা হয়নি।

হুইপ আলহাজ্জ্ব সামশুল হক চৌধুরীর তত্ত্বাবধানে পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সের করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য চালু করা হয়েছে ২০ শয্যা আইসোলেশন সেন্টার। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের তৃতীয় তলায় পুরুষ ওয়ার্ডকে আইসোলেশন সেন্টার হিসেবে ব্যবহার করা হয়। করোনা আক্রান্ত আইসোলেশন ওয়ার্ডে এই পর্যন্ত ৭ জন পুলিশ সদস্যসহ মোট ১৩ জন করোনা রোগী চিকিৎসাধীন আছেন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীরি তৎপরতায় মানুষকে যেভাবে সমাগম থেকে দূরে রাখা গেছে, এখন তা ধরে রাখাটাও কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। লকডাউন শীতল করার কারণে সাধারণ মানুষকে সমাগম থেকে দূরে রাখা প্রায় অসম্ভব হয়ে উঠেছে। উপজেলায় সেনাবাহিনীর কঠোর পদক্ষেপ না থাকলেও প্রতিদিন বিকেলে তাদের কমবেশি টহল দেখা যায়।

উল্লেখ্য যে, পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এ পর্যন্ত নমুনা সংগ্রহে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২৬৩জন। সুস্থ হয়েছেন ৭০ জন। মারা গেছেন ৪ জন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম