হত্যার এক বছরের মধ্যে বিজ্ঞান ও গবেষনা সেক্টরের প্রধান মহসেন ফাখরিজাদের হত্যা ইরানের উপরে বড় ধরনের আঘাত - শ্যামল বাংলা ডট নেট

হত্যার এক বছরের মধ্যে বিজ্ঞান ও গবেষনা সেক্টরের প্রধান মহসেন ফাখরিজাদের হত্যা ইরানের উপরে বড় ধরনের আঘাত

মেহেদী হাসান পলাশ

শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

আল কুদস বাহিনীর প্রধান কাশেম সুলাইমানির হত্যার এক বছরের মধ্যে বিজ্ঞান ও গবেষনা সেক্টরের প্রধান মহসেন ফাখরিজাদের হত্যা ইরানের উপরে বড় ধরনের আঘাত। এ ধরনের একেকটি আঘাত কয়েকটি সেনানিবাস উড়িয়ে দেয়ার থেকেও বৃহত্তর। পশ্চিমের চোখে মহাসেন ফাখরিজাদে ইরানের প্রকল্প পরমাণু প্রকল্পের মূলহোতা হলেও, ইরান জানে তিনি আসলে কে ছিলেন, কতটা ছিলেন এবং তাঁর মৃত্যুতে কী অপূরণীয় ক্ষতি তাদের হয়েছে। সবচেয়ে বড় কথা এই হত্যাকাণ্ডগুলো ইরানের নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে। কেননা মহসিন ফখরিজাদেকে হত্যা করা হয়েছে ইরানের নিজস্ব ভূমিতে, অন্যদিকে কাশেম সোলায়মানি কে ইরাকে হত্যা করা হলেও তিনি ইরানের নিরাপত্তা বলয়ের বাইরে ছিলেন না।
আসলে বাইরে থেকে দেখে ইরানকে যেরকম মনে হয়, ভেতরের ইরান তার থেকে বেশ কিছুটা ভিন্নতর। আমার কয়েকবারের ইরান সফরের অভিজ্ঞতা থেকে বুঝতে পেরেছি, বাইরে থেকে দেখে মানুষ ইরান সম্পর্কে যেরকম ধারনা করে, ভেতরের পরিস্থিতির সাথে তার অনেক মিল নেই। যেমন দীর্ঘদিনের অবরোধের প্রেক্ষিতে এবং প্রবল মুদ্রাস্ফীতির কারণে ইরানকে আর্থিকভাবে দুর্বল দেশ মনে করা হলেও, এই অবরোধ কে ব্যবহার করে ইরান নিজস্ব প্রযুক্তির উন্নয়ন ঘটিয়ে ভেতরে ভেতরে অনেক উন্নতি করেছে এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উন্নয়নে দেশটি বিশ্বের অনেক উন্নত দেশের সাথে প্রতিযোগিতা করতে সক্ষম।

অন্যদিকে ইরানের সরকার ব্যবস্থা এবং রাষ্ট্র পরিচালনা ব্যবস্থা ও ধর্মনীতি দেখে এই দেশটিকে বাইরে থেকে একটি কট্টরপন্থী ইসলামি রাষ্ট্র মনে হলেও ভেতরে এই দেশটি অনেক গণতান্ত্রিক ও উদার। দেশটির বিশাল অংশের জনমানুষের মাঝে বিপরীত ধর্মী চিন্তার প্রবল ও শক্তিশালী উপস্থিতি রয়েছে। যেমন, ইসলামী বিপ্লবের পর ইরানের রাষ্ট্রব্যবস্থা যে ধারায় পরিচালিত হচ্ছে তার সমর্থক যেমন এই দেশটিতে রয়েছে বিপুল সংখ্যক, তেমনি বিরাট সংখ্যক জনগণ রয়েছে এই ব্যবস্থার সম্পূর্ণ বিরোধী মতাবলম্বী। আমার ইরান সফরকালে অনেক লোকের সাথে পরিচয় ও আলাপ হয়েছে যারা বর্তমান সিস্টেমকে একদম পছন্দ করছে না এবং যেকোন উপায়ে পরিবর্তন চায়। বাইরে থেকে দেখে বোঝার উপায় না থাকলেও সেখানে আমার অনেক নাস্তিক মানুষের সাথে আলাপ হয়েছে।

রাষ্ট্রীয় নীতির কারণে মেয়েরা বিশেষ ধরনের পর্দা করলেও একটি বিরাট সংখ্যক নারী ব্যক্তিগত চলাফেরায় ও আলাপ আলোচনায় তারা আধুনিক, সংস্কারমুক্ত এবং উদার। এবং এই সিস্টেম নিয়ে তাদের মধ্যেও আপত্তি রয়েছে। ইসলামী ব্যবস্থা সেখানে বাইরে যতটা দেখা যায় ভেতরে ততটা উপস্থিত নয়। পাশ্চাত্যের মুক্ত সমাজ ও জীবনযাপনের প্রতি আগ্রহ দেখেছি আমি অনেক নারী পুরুষের মধ্যে। প্রথমবারের ভ্রমণে এই বিষয়গুলো আমাকেও বেশ অবাক করেছিল।
ব্যক্তিগত আলোচনার সময় আমি এই বিষয়টি সেখানকার সরকারি লোকদের কাছে জানতে চাইলে করলে তারাও স্বীকার করে নেন। তারা আমাকে এটাও বলেন যে, এসবের পেছনে পাশ্চাত্য প্রতিবছর বিলিয়ন ডলার ব্যয় করে থাকে। তবে তাদের কারো কারো উত্তর ছিল এরকম, বিপ্লবের পুর্বে ইরান মধ্যপ্রাচ্যে ইউরোপ-আমেরিকার মতোই একটি উন্মুক্ত রাষ্ট্র ছিল। তাদের জীবনযাপন ছিল অবাধ। সেই জেনারেশন বা তাদের উত্তরসূরীরা এখনো তেমনই একটি উন্মুক্ত সমাজ প্রত্যাশা করে দেশটিতে।

সোলাইমানির মৃত্যুর পিছনে কারা জড়িত তা স্পষ্ট। তবে মহসেন ফখরিজাদের মৃত্যুর জন্য কারা দায়ী তা এখনও স্পষ্ট নয়। যদিও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইসরাইলকে ইঙ্গিত করেছেন। তবে আমার ধারণা, এ ধরনের হত্যাকাণ্ডের পিছনে কোন রাষ্ট্র এককভাবে ভূমিকা রেখেছে তা সঠিক নাও হতে পারে। বরং আমার ধারণা এ দুটি হত্যাকাণ্ডের পেছনেই মার্কিন- ইসরাইল জোট এবং মধ্যপ্রাচ্যে তাদের মিত্রশক্তিগুলো যৌথভাবে ভূমিকা রেখেছে বলে আমার বিশ্বাস।


শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares
  •  
    2
    Shares
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.