ইফা’র কাশেমের বিরুদ্ধে দূর্নীতি ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:-

শেয়ার করুন
  • 49
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    49
    Shares

ইসলামিক ফাউন্ডেশন খাগড়াছড়ি জেলার মানিকছড়ি উপজেলায় কর্মরত ভারপ্রাপ্ত মডেল কেয়ারটেকার মো. আবুল কাশেম এর বিরুদ্ধে অনিয়ম, দূর্নীতি ও ভূয়া কেন্দ্র দেখিয়ে বেতন ভাতা উত্তোলন করে সরকারি অর্থ আত্মসাৎসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।

শনিবার (১০ জানুয়ারী) মো. আবুল কাশেমের বিরুদ্ধে এইসব অনিয়মের তথ্য উল্লেখ করে মানিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক বরাবর ইসলামিক ফাউন্ডেশন মানিকছড়ি উপজেলার প্রাক-প্রাথমিক কেন্দ্রের শিক্ষক মো. মতিউর রহমান একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ইসলামিক ফাউন্ডেশন মানিকছড়ি উপজেলায় কর্মরত ভারপ্রাপ্ত মডেল কেয়ারটেকার মো. আবুল কাশেম অভিযোগকারীর নিকট হতে মাদরাসার উন্নয়ন ও সংস্কারের কথা বলে একাধিকবার অর্থ আত্মসাৎ করেন। নিয়মবহির্ভূতভাবে জামাতের সাধারণ সম্পাদক মো. নুর হোসেনকে শ্রেষ্ট শিক্ষক নির্বাচন করে পুরুস্কার প্রদান ও চেংগুছড়া গুচ্ছগ্রাম জামে মসজিদের ‘সহজ কুরআন শিক্ষা কেন্দ্র’টির শিক্ষক নুরুজ্জামান এর অনুপস্থিতিতে ভুয়া শিক্ষক দেখিয়ে স্বাক্ষর জাল করে বেতন ভাতা উত্তোলন করে মোটা অংকে সরকারি অর্থ আত্মসাতের কথাও উল্লেখ করা হয় অভিযোগে। এছাড়াও বিভিন্ন অনিয়ম, দূর্নীতির কথা উল্লেখ করে আবুল কাশেমের বিরুদ্ধে গত ০২/১২/২০২০ইং খাগড়াছড়ির আঞ্চলিক পত্রিকা “দৈনিক সবুজ পাতার দেশ” পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়।

প্রতিষ্ঠানটির সভাপতি ও মানিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার তামান্না মাহমুদ বলেন, আমার মাধ্যমে ইসলামিক ফাউন্ডেশন মানিকছড়ি উপজেলা শাখায় কর্মরত আবুল কাশেমের বিরুদ্ধ জেলা প্রশাসক বরাবর একটি অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে। বিষয়টি অবগত হয়ে জেলা প্রশাসক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে মানিকছড়ি উপজেলায় কর্মরত ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ভারপ্রাপ্ত মডেল কেয়ারটেকার মো. আবুল কাশেম তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন বলে দাবী করে বলেন, অভিযোগকারী তার দায়িত্ব যথাযথ পালন না করে আনসার ভিডিপিতে কর্মরত ছিলেন। সেই সুবাধে তার কেন্দ্রের পরিবর্তিত শিক্ষকের জন্য বেতনভাতা চেয়েছিলাম। কিন্তু তিনি তা প্রদান করেননি। তাছাড়া অভিযোগপত্রে উল্লেখিত শিক্ষক নুরুজ্জামানও একইভাবে তার কেন্দ্রটি পরিবর্তিত শিক্ষক দ্বারা পরিচালিত করতেন। ফলে তার মাসিক বেতন ভাতা হতে পরিবর্তিত শিক্ষককে নির্ধারিত কিছু টাকা প্রদান করতেন। অভিযোগকারী আমার বিরুদ্ধে উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে মিথ্যা অভিযোগ ও ষড়যন্ত্র করছে। এইসব অভিযোগের বাস্তবতা নেই।


শেয়ার করুন
  • 49
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    49
    Shares
  •  
    49
    Shares
  • 49
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.