খাগড়াছড়ি পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা - শ্যামল বাংলা ডট নেট

খাগড়াছড়ি পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা

আলমগীর হোসেন, খাগড়াছড়িঃ

শেয়ার করুন
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    4
    Shares

আর মাত্র ২ দিন পর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে খাগড়াছড়ি পৌরসভা নির্বাচন। আগামী ১৬ জানুয়ারি পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা।
এবারের নির্বাচনী প্রচারণায় প্রতিবন্ধকতা বা বাঁধা নিয়ে বিরোধী দলসহ কোন প্রার্থীরই অভিযোগ পাওয়া যায়নি। সব প্রার্থীই ব্যাপক প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। তবে এবারে আওয়ামী লীগের প্রচারণা ছিল নজিরবিহীন। দলীয় প্রার্থীকে বিজয়ী করতে অতিতে এমন জোরালো প্রচারণা দেখেনি পৌরবাসী। এদিকে নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে সকল প্রস্তুতি নিয়েছে জেলা নির্বাচন অফিস।

সরেজমিনে দেখা গেছে, পুরো পৌরসভা এলাকায় মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের পোস্টার, ব্যানার ও ফেস্টুন শোভা পাচ্ছে। পৌর ভোটারদের দ্বারে দ্বারে প্রতিদিন ছুটছেন তারা। এলাকাভিত্তিক উন্নয়নে দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি। কাউন্সিলর প্রার্থীদের নিয়ে ভোটারদের আগ্রহ না থাকলেও কে হচ্ছেন এবারের মেয়র তা নিয়ে চায়ের দোকান থেকে শুরু করে সর্বত্রই চলছে তুমুল আলোচনা। এর উত্তাপ ছড়িয়েছে জেলার প্রতিটি উপজেলায় উপজেলায়।
নির্বাচন অফিস জানায়, খাগড়াছড়ি পৌরসভায় এবার মোট ভোটার ৩৭ হাজার ৮৭ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ২০ হাজার ৩৫১ জন এবং মহিলা ভোটার ১৬ হাজার ৭৩৬ জন। নির্বাচনে ১৮ কেন্দ্রে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

এবার দলীয় মনোনয়নে খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য নির্মলেন্দু চৌধুরী নির্বাচন করছেন। দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বর্তমান মেয়র মো. রফিকুল আলম। বিএনপি থেকে দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পেয়েছেন খাগড়াছড়ি জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মো. ইব্রাহিম খলিল আর জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচন করছেন মো. ফিরোজুল আলম। এই পৌরসভায় এবারই প্রথমবারের মতো ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) পদ্ধতিতে ভোট নেয়া হবে।
জেলা আওয়ামী লীগ সূত্র জানায়, ‘আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন ৩ জন। এদের মধ্যে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্মলেন্দু চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক পার্থ ত্রিপুরা জুয়েল এবং জেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত কমিটির সদস্য মো. রফিকুল আলম। ৩ জন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাইলেও মেয়র পদে আওয়ামী লীগ থেকে গত ১৮ই ডিসেম্বর মনোনয়ন পেয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্মলেন্দু চৌধুরী। মনোনয়ন না পেয়ে নাগরিক কমিটির ব্যানারে ঐদিনই মেয়র প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে বিদ্রোহী প্রার্থী মো. রফিকুল আলম।’
খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতাকর্মীরা বলছেন, ‘দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে যারা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন, তারা বিদ্রোহী। বিদ্রোহীদের বিষয়ে কেন্দ্র অবগত রয়েছে। তাদের কঠিন জবাব দেওয়া হবে। এবার মেয়র পদে জনগণ পরিবর্তন চায়। তাই খাগড়াছড়ি পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় প্রতীক নৌকার বিজয় সু-নিশ্চিত করতে একাট্টা আওয়ামী লীগ।
বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান পৌর মেয়র মো. রফিকুল আলম নিজেকে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মানতে নারাজ। তিনি বলেন, ‘জনগণ ও পৌরবাসীর অনুরোধেই আমি নাগরিক কমিটির ব্যানারে নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি। নেতাকর্মীরা আমার সঙ্গে আছেন। আমি বিশ্বাস করি পৌরসভার উন্নয়নের স্রোতধারা ধরে রাখতে পৌরবাসী আমাকে আবারো সুযোগ দিবেন।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নির্মলেন্দু চৌধুরী বলেন, ‘আমরা পারিবারিকভাবে ৩৫ বছর ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতি করছি। সব সময় জনগণের সুখ-দুঃখে পাশে ছিলাম, আছি, থাকবো। দলের বিদ্রোহী প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিলেও আমি চিন্তিত নই। পৌরবাসী এবার পরিবর্তন চায়। খাগড়াছড়ি আওয়ামী লীগ পরিবার এবং জনসাধারণরা নৌকার পক্ষে ঐক্যবদ্ধ। আসন্ন পৌর নির্বাচনকে ঘিরে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত। নির্বাচনে পৌরবাসী আমাকে মূল্যায়ন করবেন বলে বিশ্বাস করি।’
বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মো. ইব্রাহিম খলিল বলেন, ‘মাদকমুক্ত সমাজ গড়ার লক্ষে এবং জনগণের সেবা করার জন্য মেয়র পদে নির্বাচন করছি। জনগণ যদি তাদের ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত করেন তাদের কল্যাণে আজীবন কাজ করে যাবো।

এদিকে পৌর নির্বাচন নিয়ে মতামত ব্যক্ত করেছেন ভোটারড়া। পৌর এলাকার ভোটার হোসনেয়ারা বেগম বলেন, ‘প্রতিদিনই প্রার্থীরা বাড়িতে এসে ভোট চাচ্ছেন। রাস্তাঘাট করে দেওয়ার প্রতিশ্রতি দিচ্ছেন। গতবারের মত এবার আর ভুল করব না। এবার যোগ্য প্রার্থীকেই ভোট দিবো।’
আরেক ভোটার আব্দুস সবুর জানান, শহরের রাস্তা ঘাট পোস্টার ব্যানারে ভরে গেছে। মাইকিং করেও ভোট চাচ্ছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। এবার মেয়র নিয়ে বেশি আলোচনা হচ্ছে। এবার যোগ্য প্রার্থীই হবে নতুন মেয়র।’
নবীন ভোটার লিটন চৌধুরী বলেন, ‘ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট অনুষ্ঠিত হওয়ায় তরুণ ভোটারদের বেশ আগ্রহ রয়েছে। এটাই আমার প্রথম ভোট। আমার এই প্রথম ভোটটি আমি উন্নয়নের মার্কায় দিতে চাই।’
খাগড়াছড়ি জেলা নির্বাচন কার্যালয়ের সূত্রে জানা যায়, খাগড়াছড়ি পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে ১৮টি ভোটকেন্দ্রে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে মেয়র পদে ৪ জন, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১০ জন ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪০ জন নির্বাচনে লড়ছেন।
এ বিষয়ে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ রাজু আহমেদ জানান, ১৪ জানুয়ারি রাত ৮ পর্যন্ত প্রার্থীরা প্রচারণা চালাতে পারবেন। ১৬ জানুয়ারি সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ভোটগ্রহণের জন্য সকল ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।


শেয়ার করুন
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    4
    Shares
  •  
    4
    Shares
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.