রাজশাহীতে ১৫০ বিঘায় রাইস ট্রান্সপ্লান্টারে বোরো চাষ - শ্যামল বাংলা ডট নেট

রাজশাহীতে ১৫০ বিঘায় রাইস ট্রান্সপ্লান্টারে বোরো চাষ

মঈন উদ্দীন:

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

কৃষিতে যান্ত্রিকীকরণ ও হাইব্রিডের আবাদ বাড়াতে উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ লক্ষ্যে ‘সমালয়ে চাষাবাদ’ কর্মসূচির আওতায় প্রত্যেক জেলার একটি উপজেলাতে রাইস ট্রান্সপ্লান্টারের মাধ্যমে বোরো রোপণ করা হবে। উৎপাদন খরচ কমানো, কর্তনোত্তর অপচয় রোধ, কায়িক শ্রম লাঘব, শ্রমিকের অভাব পূরণ ও ফসলের উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি করতেই সমালয়ে চাষাবাদ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।
এরই ধারাবাহিকতায় রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার সিংগা গ্রামে এই চাষাবাদ পদ্ধতিতে বোরো চাষের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। জানা গেছে, সরকারি কৃষি প্রণোদনায় ১৫০ বিঘা জমিতে বোরো ধানের চারা রোপণ করা হবে। এ কর্মসূচির সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন সিংগা গ্রামের আইপিএম কৃষক ক্লাবের ৪৫ জন নারী-পুরুষ। বর্তমানে বোরোর বীজতলা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস জানিয়েছে, সমালয়ে চাষাবাদ পদ্ধতির জন্য সরকারিভাবে বরাদ্দ রয়েছে ১৪ লাখ টাকা। বীজ থেকে শুরু করে ফসল কর্তন পর্যন্ত সব কাজ করে দেবে কৃষি দপ্তর। আর এই কাজগুলোতে ব্যবহার করা হবে আধুনিক যন্ত্রপাতি। ট্রেতে বীজতলা তৈরি, রাইস ট্রান্সপ্লান্টারে চারা রোপণ ও কম্বাইন্ড হারভেস্টারে কাটা হবে ফসল।
জানা গেছে, চলতি মৌসুমে জেলায় বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৬৬ হাজার ২৬৫ হেক্টর। আর দুর্গাপুর উপজেলায় সেটা ৫ হাজার ১৯০ হেক্টর। ফলে মৌসুমের শুরু থেকেই বোরো চাষের জন্য বীজতলা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা।

কৃষি অফিসের নির্দেশনা ও পরামর্শে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা মাঠে মাঠে ঘুরে বোরো ধান চাষে বিভিন্ন প্রযুক্তি, যেমন বোরো ধানের উচ্চ ফলনশীল জাতের চাষ, বীজ শোধন, আদর্শ বীজতলা, তীব্র শৈত্যপ্রবাহে বোরো বীজতলার যত্ন ইত্যাদি গ্রহণে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করছেন। এরই সাথে উপজেলার সিংগা গ্রামে আইপিএম কৃষক ক্লাবের কৃষকরা সমালয়ে চাষাবাদ পদ্ধতিতে বোরোর বীজ তলা তৈরি করছেন। এ কাজে সার্বিক দেকভাল করছেন ওই জোনের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোকলেছুর রহমান।

দুর্গাপুর কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, বিভাগীয় নির্দেশনা অনুযায়ী বোরোধানে
রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক শামছুল হক বলেন, দেশের প্রতিটি জেলায় সরকারি প্রণোদনায় সমালয়ে চাষাবাদ প্রকল্পের আওতায় বোরো আবাদ করা হচ্ছে। কৃষিতে যান্ত্রিকীকরণ ও হাইব্রিডের আবাদ বাড়াতে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এর আওতায় জেলার দুর্গাপুর উপজেলায় ৫০ একর জমিতে বোরো চাষ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। প্রযুক্তিটি কৃষকের মধ্যে ব্যাপক আলোড়ন তৈরি করেছে; এবং এটি কৃষকদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে কাজ করে যাচ্ছে কৃষি বিভাগ। এ প্রযুক্তিতে বোরোধান চাষ করা হলে কৃষকের ধান চাষের উৎপাদন খরচ ও সময় দুই সাশ্রয় হবে। সেই সঙ্গে ফসলের উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি পাবে। এতে কৃষক লাভবান হবেন।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.