আশুলিয়ার ভাদাইলে ঝুট ব্যাবসাকে কেন্দ্র করে দু’গ্রুপের হামলায় আহত ২০

মোহাম্মদ নুর আলম সিদ্দিকী মানু ঃ

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আশুলিয়ায় ঝুট ব্যাবসার দখলকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে ২০জন আহত হয়েছে। এলাকাবাসী সরেজমিনে গিয়ে জানাযায় ২মার্চ মংগলবার সকাল সারে ৯ টার দিকে আশুলিয়ার স্বনির্ভর ধামসোনা ইউনিয়নের ভাদাইল এলাকার ৬নং ওয়ার্ড মেম্বার হাজী সাদেক ভূইয়ার মেম্বার কার্যালয় সংলগ্ন স্থানে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার সময় সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, কতিপয় যুবক রাম দা দিয়ে মটরসাইকেল আরোহিকে কোপাতে দেখা যায়, পরে আহতরা বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে যানাযায়। পরে আশুলিয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ১৭টি ভাংচুর করা মোটরসাইকেল ও একটি পিকআপ জব্দ করে থানায় নিয়ে যায়।

যানাযায়, দুগ্রুপের সংঘর্ষে আহতদের উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের সবাই আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহবায়ক কবির হোসেন সরকারের সমর্থক বলে জানা গেছে।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গার্মেন্টসের ঝুট ব্যাবসাকে কেন্দ্র করে সকালে ওই এলাকায় আধিপত্য বিস্তারের জন্য থানা যুবলীগের একটি গ্রুপ মোটরসাইকেল বহর নিয়ে যায়। এ সময় এলাকাবাসীর সঙ্গে তর্ক বির্তকে জরিয়ে পরেন । এক পর্যায়ে সংঘর্ষ শুরু হলে মসজিদের মাইকে ডাকাত পড়েছে বলে ঘোষণা দিয়ে যুবলীগের মোটরসাইকেলের বহর ঘেরাও করলে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার এক পর্যায়ে ২০ জন আহত হন।এ ঘটনায় যুবলীগের প্রায় ১৭টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করেন এলাকাবাসী।
প্রত্যক্ষদর্শীরা এ প্রতিবেদককে যানান, স্থানীয় ইউপি সদস্য সাদেক ভুইয়া ও আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহ্বায়ক কবির সরকারের সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
নাম না প্রকাশের শর্তে আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহ্বায়ক কবির হোসেন সরকারের সমর্থক পিন্টু (ছদ্মনাম) এ প্রতিবেদককে বলেন, জনাব কবির হোসেন সরকার ডিইপিজেডের ভেতরে এক্সপেরিয়েন্স লিমিটেড নামে একটি কারখানায় গত তিন বছর ধরে ব্যবসা করে আসিতেছে। গত সোমবার ১মার্চ মেম্বার ছাদেক ভুঁইয়ার ছেলে ওই কারখানায় গিয়ে কবির সরকারের শ্রমিকদের বের করে দেয়। পরে বিষয়টি কবির সরকার থানায় জানালে, কবির সরকারের ম্যানেজার অফিসে যেতে ভয় পাওয়ায় আজ কয়েকটি মোটরসাইকেলসহ কিছু লোকজন ম্যানেজারকে কারখানায় পৌঁছে দিতে যায়। এ সময় পেছন থেকে সাদেক ভুঁইয়ার লোকজন তাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়।

সংঘর্ষের ঘটনা জানতে ধামসোনা ইউপি সদস্য হাজী ছাদেক ভুঁইয়ার সাথে একাধিকবার চেস্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

নাম না প্রকাশের শর্তে তার এক সমর্থক বলেন, সাদেক ভূইয়া সাহেব সকালে নাস্তা করছিলেন। এমন সময় ২০ থেকে ২৫টি মোটরসাইকেলসহ দুই থেকে তিনশ লোক মেম্বারের বাড়িতে হামলা করে। হামলার সময় হামলা কারীরা ২-৩টি ফাঁকা গুলি চালায়। পরে মেম্বার নিজেই মাইকে ঘোষণা দেন, আমার বাড়িতে ডাকাত পড়েছে। পরে এলাকাবাসী সমবেত হলে হামলাকারীরা মোটরসাইকেল রেখে পালিয়ে যায়।
আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জিয়াউল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ১টি পিকাপ ও ১৭টি মোটরসাইকেল উদ্ধার করে আশুলিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয়। সংঘর্ষের প্রকৃত কারন তদন্ত করা হচ্ছে তদন্ত শেষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.