ইয়াবা বিক্রির দায়ে যুবকের ৫ বছরের কারাদণ্ড

আনোয়ার হোসেন শামীম গাইবান্ধা প্রতিনিধি

ইয়াবা ট্যাবলেট বিক্রির দায়ে গাইবান্ধায় মোশারফ হোসেন নামে এক যুবককে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাসের দণ্ডাদেশ দেন আদালত।

এ ছাড়া এই মামলার অন্য দুই আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে গাইবান্ধার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক দিলীপ কুমার ভৌমিক এই রায় দেন। তবে রায়ের সময় আদালতে খালাস পাওয়া দুই আসামি উপস্থিত হলেও দণ্ডপ্রাপ্ত মোশারফ হোসেন পলাতক ছিলেন। দণ্ডপ্রাপ্ত মোশারফ হোসেন ওরফে আলম মিয়ার (৩৩) বাড়ি গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার মুরালীপুর গ্রামে। মোশারফ ওই গ্রামের ইয়াছীন আলী মণ্ডলের ছেলে। খালাস পাওয়া দুই আসামি হলেন মুরালীপাড়া গ্রামের কশাই রানা (৩৮) ও আব্দুল হাই (৪০)।
আদালতের সরকারি কৌশুলি (পিপি) মো. ফারুক আহম্মেদ জানান, ২০২০ সালের ২৩ জুলাই সদর উপজেলার সাহাপাড়া ইউনিয়নের বুড়িরঘর এলাকায় ইয়াবা বিক্রির খবরে অভিযান চালিয়ে মোশারফ হোসেনকে আটক করে পুলিশ। এসময় তার কাছ থেকে ১২০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। পরে মোশারফসহ ইয়াবা বিক্রির সঙ্গে জড়িত কশাই রানা ও আব্দুল হাইসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে সদর থানায় একটি মামলা করে পুলিশ। মামলার তদন্ত শেষে পুলিশ ওই বছরেই আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। এরপর দীঘ শুনানি ও সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে মঙ্গলবার আদালতের বিচারক মামলার রায় ঘোষণা করেন। বিক্রিসহ ইয়াবা রাখার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আসামি মোশারফ হোসেনকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দেন আদালতের বিচারক। এ ছাড়া আসামী কশাই রানা ও আব্দুই হাই মিয়ার সংশ্লিষ্ট না পাওয়ায় মামলা থেকে খালাশ দেওয়া হয়েছে।

পিপি আরও জানান, আদালতে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি মোশারফ উপস্থিত ছিলেন না। তবে খালাস পাওয়া দুই আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। মামলা চলাকালে আদালতের জামিন নিয়ে কারাগার থেকে বের হয় মোশারফ। এরপর থেকেই পলাতক তিনি। আদালত তাকে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে। গ্রেপ্তার কিংবা আত্মসমর্পণের দিন থেকে তার সাজা কার্যাকর হবে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.