চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মশা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ!

এম আর আমিন,চট্টগ্রাম

শেয়ার করুন
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares

সিটি করপোরেশনের পক্ষ হতে পর্যাপ্ত এবং নিয়মিত ওষুধ ছিটানোর দাবি করা হলেও মশা থেকে নগরবাসিদের স্বস্তি দিতে ব্যর্থ!।

মশা যেন নগরীতে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে এখন বাসাবাড়িতে । কিন্তু সন্ধ্যা নামলেই স্থির থাকা কঠিন হয়ে পড়েছে। মশক নিধনে চসিকের ব্যর্থতায় ক্ষুব্ধ নগরবাসী । নগরীর বেশির ভাগ নালা-নর্দমায় জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্পের কাজ চলচ্ছে এতে পানি প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হয়ে নালার পানির স্থিরতা বেড়েছে। অস্বাভাবিক ভাবে মশার প্রজনন বেড়ে গেছে।

চিকিৎসকদের মতে এ সময় ম্যালেরিয়া ও চর্ম রোগীর সংখ্যা বেড়ে যায়। সাম্প্রতিক সময়ে আরও যোগ হয়েছে ডেঙ্গু জ্বর। মশার কামড়ে বিশেষ করে ম্যালেরিয়া, ডেঙ্গু ও চর্ম রোগের প্রকোপ বেশি হয়।

এদিকে মশার অস্বাভাবিক উৎপাতে করোনা আতঙ্কে। ডেঙ্গুসহ মশাবাহিত নানা রোগ ব্যাপক আকার ধারণ করতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সিটি করপোরেশনের প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ শফিকুল মান্নান সিদ্দিকী বলেন, মশার উপদ্রব নিয়ন্ত্রণ সিটি করপোরেশন একার পক্ষে সম্ভব নয়।

নগরবাসীর সার্বিক সহযোগিতা ছাড়া মশা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়। এমনিতেই নভেম্বর হতে মে মাস পর্যন্ত মশার প্রজনন বৃদ্ধি পায়।

মশা নিধনে ‘এডালটিসাইড’ (পূর্ণাঙ্গ মশা ধ্বংসকারী) এবং ‘লার্ভিসাইড’ (ডিম ধ্বংসকারী) নামে দুই ধরনের ওষুধ ছিটানো হয়। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ার পর ‘এডালটিসাইড’ ছিটানো বন্ধ রাখা হয়েছে।


শেয়ার করুন
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares
  •  
    3
    Shares
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.