জামায়াতের অর্থ যোগানদাতা সাইমন এবার অগ্নি সংযোগ ও বিস্ফোরক মামলার আসামী

নোয়াখালী প্রতিনিধি :

নোয়াখালীর মাইজদি আয়োজন মিষ্টি এন্ড বেকারীর মালিক নোয়াখালীর চিহ্নিত জামায়াতের অর্থ যোগানদাতা মোস্তানছির বিল্লাহ সাইমন এবার ককটেল বিস্ফোরন, গাড়িতে অগ্নি সংযোগ ও বসতঘরে হামলা ও লুটপাট মামলার আসামী। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে ইয়াবা সেবন, স্ট্যাম্প জালিয়তি ও পরকিয়া করে মারধর খাওয়ার অভিযোগ আছে।

অভিযোগে বলা হয়, বেগমগঞ্জ উপজেলার হাজীপুর গ্রামে কাজী বাড়িতে জায়গার মালিক দালান ঘর করতে গেলে জামায়াত নেতা সাইমন চৌমুহনী পৌরসভার কিছমত করিমপুর গ্রামের এক সন্ত্রাসীকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ভাড়া করে নির্মানাধীন দালানঘর ধ্বংস করার জন্য। প্রথমদিন ১০/১২ জনের একটি সন্ত্রাসী দল শ্রমিকদের কাজে বাধা দেয়। কিন্তু জায়গার মালিক পক্ষে বেশি লোকজন থাকায় ব্যর্থ হয়ে চলে যায়। ২য় দিন জেলা সদর মাইজদির একটি চিহ্নিত বাহিনী এসে বাধা দেয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। এরপর রাতে আবার ২০/২৫ জনের একটি সশস্ত্র মুখোশধারী সন্ত্রাসী এসে ১৫ থেকে ২০ টি ককটেল ফাটিয়ে ঠিকাদারের মটরসাইকেলে অগ্নি সংযোগ করে নির্মানাধীন দালান ঘর ভাংচুর করে তছনছ করে অন্য সাব-ঠিকাদারের আরেকটি মটর সাইকেল চুরি করে নিয়ে যায়। এসময় সাইমুন নিজে তার বিল্ডিং এর ছাদ থেকে সাব- ঠিকাদার দেলোয়ার হোসেন মুন্সিরকে লক্ষ্য করে ককটেল নিক্ষেপ করে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে কয়েকটি তাজা ককটেল ও ৮টি ককটেলের খোসা উদ্ধার করে। এ ঘটনায় বেগমগঞ্জ মডেল থানায় মোস্তানছির বিল্লাহ সাইমুনসহ ৫ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ১৫/২০ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়। এখন মামলা উঠিয়ে নেয়ার জন্য বাদী পক্ষকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়ে আসছে, অন্যথা বাদীকে হত্যা করা হবে। ভুক্তভোগী পরিবার জামায়াতের অর্থ যোগানদাতা সাইমনের টাকার কাছে অসহায়। টাকা দিয়ে তিনি সকল অপকর্ম ঢাকার চেষ্টা করেন। এমতবস্থায়, সন্ত্রাসীদের উপযুক্ত শাস্তি দাবী করেন বিভিন্নভাবে হয়রানী ও ক্ষতির সম্মুখীন পরিবারটি।

সাইমনের বিরুদ্ধে আরও অভিযোগ আছে, আয়োজন মিষ্টি ও বেকারীর আগে ভবনটির ২য় ও ৩য় তলা ছিলো সিয়াম আবাসিক হোটেল এবং নীচের তলা ছিলো রেস্টুরেন্ট। তখন ২জন পতিতাসহ সাইমন ও তার ম্যানেজারকে আটক করে ডিবি পুলিশ। সেটি তিন লাখ টাকার বিনিময়ে তখন সমাধান করেন তিনি। এছাড়াও ইয়াবা সেবনের সুনির্দিষ্ট অভিযোগও আছে তার বিরুদ্ধে। যেটির সাক্ষী কোম্পানীগঞ্জের এক আওয়ামীলীগ নেতা। সাইমন কোম্পানীগঞ্জের বামনী নদীর পাড় থেকে নিয়মিত ইয়াবা এনে একজন ডাক্তারসহ কয়েকজন মিলে সেবন করে। চৌমুহনী পশ্চিম বাজার হাজী নুর ইসলামের দোকানঘরে বনফুল দোকানে ভাড়া থাকাবস্থায় সাইমন একটি জাল স্ট্যাম্প সৃজন করে। পরে প্রকাশ্যে ক্ষমা চেয়ে রেহাই পায়। এছাড়া তার আরও অপকর্ম আছে, তিনি চৌমুহনী দক্ষিন বাজারে এক ব্যবসায়ীর মেয়ের সাথে এবং বাজার কমিটির স্ত্রীর সাথে পরকিয়া করতে গিয়ে দুই দফা মারধরের শিকার হন।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.