প্রতিবন্ধী যুবতী ধর্ষণের শিকার, ধামাচাপার চেষ্টা

নইন আবু নাঈম, বাগেরহাটঃ

বাগেরহাটের মোংলায় মিষ্টি খাওয়ানোর কথা বলে ডেকে নিয়ে শারীরিক প্রতিবন্ধী এক যুবতীকে (১৮) ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার মিঠাখালী ইউনিয়নের দত্তেরমেঠের জনৈক ব্যক্তির (সুশান্ত মন্ডলের) প্রতিবন্ধী ওই মেয়েকে ধর্ষণ করে একই এলাকার গৌতম মন্ডলের ছেলে নয়ন মন্ডল। এ ঘটনা ধামাচাপা দিতে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও দুই মেম্বর সমঝোতা করে দেয়ার কথা বলে ধর্ষণের শিকার যুবতীর বাবা সুশান্ত মন্ডলকে নানাভাবে ঘুরিয়ে আসছেন। তাই এ ঘটনায় থানায় কোন অভিযোগও করেননি তিনি। এদিকে ধর্ষক নয়ন মন্ডল পলাতাক রয়েছেন বলে জানা গেছে। তবে ধর্ষণের ঘটনার একটি ভিডিও এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে সমালোচনার ঝড় ওঠে। ওই ভিডিওতে ধর্ষণের শিকার যুবতী (১৮) বলেন, স্থানীয় গৌতম মন্ডলের লম্পট ছেলে নয়ন মন্ডল মিষ্টি খাওয়ানোর কথা বলে তাকে ডেকে নিয়ে মুখ চেপে ধরে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় স্থানীয় ইউপি সদস্য আজমল হোসেন ও সজল এবং চেয়ারম্যান মোঃ ই¯্রাফিল হাওলাদারের মধ্যস্থতায় শালিস বৈঠক করে সমাধান করবেন বলে জানা গেছে। কিন্তু ঘটনার এক মাস পার হলেও এখনও বিচার পায়নি প্রতিবন্ধী সেই যুবতী।

ধর্ষণের শিকার যুবতীর বাবা সুশান্ত মন্ডল বলেন, আজমল ও সজল মেম্বর বলেছিল তাদের চেয়ারম্যান ই¯্রাফিলের মাধ্যমে এর বিচার করবেন। কিন্তু চেয়ারম্যান এখনও বিচার করেননি। এ ব্যাপারে ওই দুই মেম্বর থানায় অভিযোগও করতে দেয়নি।

ইউপি মেম্বর সজল বলেন, আমি এ ঘটনার কিছু জানিনা, সব কিছু আজমল মেম্বর জানে। আর অপর মেম্বর আজমল বলেন, আমাদের চেয়ারম্যান ই¯্রাফিল হাওলাদার নির্বাচন নিয়ে ঝামেলায় আছেন, সে কারণে এই বিচার করা হয়নি।
তবে এ সম্পর্কে মিঠাখালী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ই¯্রাফিল হাওলাদার বলেন, বিষয়টি আমি দেখছি, নিউজ করার দরকার নেই।
মোংলা থানার ওসি ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছু জানিনা। কেউ কিছু জানায়নি, অভিযোগও দেয়নি। অভিযোগ পেলে অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.