লাকসামে সম্পত্তি বিরোধের জের ধরে বসত বাড়ি-ভাংচুর ও লুটপাট

এম,এ মান্নান, কুমিল্লা বিশেষ প্রতিনিধি

কুমিল্লার লাকসামে সম্পত্তি বিরোধের জের ধরে বসত বাড়ি-ভাংচুর,লুটপাট ও বাড়িতে নারীদের মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বসতঘরের সকল মালামাল ভাংচুর ও মারপিট করে ক্ষান্ত হয়নি, ঘরের মধ্যে থেকে আসবাবপত্র এনে বাড়ির আঙ্গিনায় ফেলেছে স্থানীয় প্রতিপক্ষরা। বুধবার (১০ মার্চ) দুপুরে প্রকাশ্যে এ হামলার ঘটনা ঘটেছে উপজেলার কান্দিরপাড় ইউনিয়নে নৈরপাড়া গ্রামের ছিদ্দিকুর রহমান ছেলে দিদারুল আলমের বাড়িতে।
এ ঘটনার ভুক্তভোগী দিদারুল আলম বাদী হয়ে বুধবার জয়নাল আবেদীন,আবদুল রাজ্জাক, আবদুল খালেকের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেন। পুলিশ ঘটনার স্থলে এসেছে জয়নাল আবেদীনকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য থানায় নিয়ে আসেন।

অভিযোগ সুত্রে জানাযায়, উপজেলার নৈরপাড় গ্রামে সিদ্দিকুর রহমান সাথে একই বাড়ির মৃত আবদুল হামিদের ছেলে জয়নাল আবেদীনের মধ্যে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে এলাকায় সামাজিক সালিশ ধরবার ও হয়েছে। বুধবার (১০ মার্চ) দপুরে প্রতিপক্ষ জয়নাল আবেদীন, আবদুল রাজ্জাক আবদুল খালেকের নেতৃত্বে স্থানীয় ২০/২৫ লোকজন দলবদ্ধ ভাবে লাঠিশোটা, দেশিও অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে ছিদ্দিকুর রহমান ও ছেলের বসত বাড়ীতে হামলা ভাংচুর চালায়। ঘরের দরজা ভেঙ্গে প্রবেশ করে আসবাবপত্র ভাংচুর করে নগদ টাকা লুটপাট শুরু করে হামলাকারীরা। দিদারুল আলম স্ত্রী তাছলিমা বেগম, ছিদ্দিকুর রহমান ও পরিবারের স্বজনরা বাঁধা দিলে তাদেরকে মারধর করে মোবাইল ফোন ও স্বর্নকার হাতিয়ে নেয়। এ সময় তাদের আত্নচিৎকারে পাশের বাড়ীর লোকজন এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।

দিদারুল আলমের স্ত্রী মারধরের শিকার তাছলিমা বেগম বলেন, দুপুরে হঠাৎ করে জয়নালের নেতৃত্বে এলাকার ২৫-৩০ জন যুবক আমাদের বাড়িতে প্রবেশ করে। বাড়িতে থাকা সকলকে এলোপাথাড়ি মারপিট শুরু করে। তারা আমাদের ঘরের মধ্যে প্রবেশ করে সবকিছু ভাঙচুর শুরু করে। চিৎকার করলে মেরে ফেলব। প্রায় দুই ঘণ্টা তাণ্ডব চালিয়ে তারা সিন্দুকে রাখা স্বর্ণালঙ্কার, নগদ টাকাসহ সব কিছু নিয়ে চলে যায়।
বাড়িতে থাকা নিকট আত্মীয় স্বজনরা বলেন, এমনভাবে হামলা করা হয়েছে যা বর্ণনাতীত। এই বাড়িতে এখন রান্না করে খাওয়ারও ব্যবস্থা নেই। থাকার খাটও ভাঙ্গা। প্রাণভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বাড়ির লোকরা। আমরা এসে থাকছি।
লাকসাম থানা (ওসি) নিজাম উদ্দিন বলেন, দিদারুল আলম বাদী হয়ে একটি অভিযোগ করেছে। জয়নাল আবেদীন নামে একজনকে
জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য থানায় আনা হয়েছে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.