-সীতাকুণ্ড চন্দ্রনাথধাম মহাতীর্থে কাল থেকে শুরু তিনদিন ব্যাপী ঐতিহ্যবাহী শিব চতুর্দ্দশী মেলা

অশোক দাশ(সীতাকুণ্ড)চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড চন্দ্রনাথধাম মহাতীর্থে আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে তিন দিনব্যাপী শুরু হতে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী শিব চতুর্দ্দশী মেলা।ঐতিহ্যবাহী চন্দ্রনাথ তীর্থ সনাতন ধর্মাবলম্বীদের একটি পবিত্র ও গুরুত্বপূর্ণ স্থান। প্রতিবছর ফাল্গুন মাসের চতুর্দ্দশী তিথিতে মহা শিবরাত্রি ব্রত পালনের উদ্দেশ্যে লাখ লাখ সনাতন ধর্মপ্রাণ নারী পুরুষ ব্যাসকুণ্ডে স্নান তর্পণ শেষে সয়ম্ভূনাথ ও চন্দ্রনাথ মন্দির দর্শন করে শিবের মাথায় জল ঢেলে তীর্থ কর্মাদি সম্পাদন করে থাকেন।
উক্ত মহাপুণ্য তিথিতে দেশ বিদেশ থেকে লক্ষ লক্ষ লোকের সমাগম হতো বিধায় কালক্রমে এটি সকল ধর্মের ও শ্রেণী প্রেসার মানুষের বিশাল মিলন মেলায় রূপান্তরিত হয়েছে। সুপ্রাচীনকাল থেকে শিবচতুর্দ্দশী মেলা সুন্দর সুশৃঙ্খল ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার জন্য প্রতিবছরের ন্যায় এবারও প্রথমে স্থানীয়ভাবে, পরবর্তীতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও মেলা কার্যনির্বাহী কমিটির এবং সর্বশেষ জেলা প্রশাসক চট্টগ্রাম ও সভাপতি, মেলা কেন্দ্রীয় কমিটির সভায় সকল ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।

এবছর শিব চতুর্দ্দশী তিথি ১১ই মার্চ (২৬শে ফাল্গুন) বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টা ১২ মিনিট ৪৯ সেকেন্ডে শুরু হয়ে ১২ই মার্চ (২৭শে ফাল্গুন) শুক্রবার বিকাল ৩টা ১১মিনিট ৫৬ সেকেন্ড পর্যন্ত থাকবে।
প্রতিবছর সীতাকুণ্ড স্রাইন কমিটির পক্ষ থেকে ভারতের পুরী লজিং এ্যাক্ট অনুযায়ী শিবরাত্রী পূজা অনুষ্ঠানের যাবতীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়।
এবারের মেলায় করোনাকালীন পরিস্থিতি বিবেচনায় রেখেও প্রায় ২০ লক্ষ তীর্থযাত্রীর সমাগম হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তাই ইতিমধ্যেই সীতাকুণ্ড মেলা কমিটির তরফে যাবতীয় আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হয়েছে।
মেলা এবং তীর্থযাত্রীদের সার্বিক নিরাপত্তা দানের জন্য ইতিমধ্যেই সীতাকুণ্ডের প্রশাসন, মেলা কমিটি এবং স্রাইন কমিটির তরফে ৫ স্থর বিশিষ্ট নিরাপত্তা ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। মেলায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে পুলিশ, র‍্যাব, ফায়ার ডিফেন্স, আনসার বাহিনীর পাশাপাশি বিপুল সংখ্যক মেলা কমিটি ও স্রাইন কমিটির সেচ্ছাসেবক ও সদস্যরা তৎপর থাকবে। এছাড়াও বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ, জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদ, বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট, সনাতন বিদ্যার্থী সংসদ, জাগো হিন্দু পরিষদ, বাংলাদেশ হিন্দু পরিষদ সহ বিভিন্ন সনাতনী সংগঠন সেবামূলক কার্যক্রম গ্রহণ করেছেন। প্রতিবারের মত সীতাকুণ্ডের সাংসদের সহযোগিতায় এবারও মেলা অঙ্গন সম্পূর্ণ সিসিটিভি ক্যামেরার আওতাভুক্ত থাকবে।
যেহেতু মেলার স্থান পাহাড়ি দুর্গম এলাকায়, সেজন্য যাত্রী সাধারণকে সর্বাত্মক সতর্কতা অবলম্বন করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

মেলা উপলক্ষ্যে তীর্থযাত্রীদের আগমনের সুবিধার্থে তুর্ণা নিশিতা, সুবর্ণ এক্সপ্রেস, মহানগর প্রভাতীসহ অন্যান্য আন্তনগর ট্রেন সমুহের যাত্রার ক্ষেত্রে সীতাকুণ্ডে ৩ মিনিট যাত্রা বিরতির ব্যবস্থা করা হয়েছে। তীর্থের মন্দিরসহ মেলায় স্থাপিত দোকান,স্টল, বিনোদন কেন্দ্র সমূহকে অগ্নিকান্ডের হাত থেকে রক্ষা করা ও অসুস্থ তীর্থযাত্রীদের জরুরী ভিত্তিতে সেবা দেয়ার জন্য মেডিকেল বোর্ডসহ ফায়ার সার্ভিস বিভাগ সার্বক্ষণিকভাবে নিয়োজিত থাকবে।
এছাড়াও সীতাকুণ্ড মেলা কমিটির পক্ষ থেকে বিভিন্ন সুবিধাজনক স্থানে পানীয় জলসহ ৩০টি স্থায়ী-অস্থায়ী টয়লেটের ব্যবস্থা করা হয়েছে।
সীতাকুণ্ড বটতলী কালি মন্দির থেকে ইকোপার্ক হয়ে চন্দ্রনাথ মন্দির, বাড়বকুণ্ড ও ছোট দারোগারহাট লবণাক্ষ মন্দিরে যাতায়াতের জন্য বিশেষ যানবাহনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। মেলা কমিটির সাধারন সম্পাদক পলাশ চৌধুরী বলেন, মেলা সুন্দর, সুশৃংখল ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার জন্য সবধরনের প্রস্তুতি গ্রহন করা হয়েছে। খাবার পানি, মেডিকেল টিম, ফায়ার সার্ভিস, অস্থায়ী টয়লেটের ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। বটতলী কালি মন্দির হতে ইকোপার্ক হয়ে চন্দ্রনাথ মন্দির, বাড়বকুণ্ড ও লবনাক্ষ মন্দিরে যাতায়াতের জন্য যানবাহনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। মেলায় আসা মানুষের যাতায়াতের সুবিধার্থে সীতাকুণ্ড রেল স্টেশনে গত মঙ্গলবার থেকে ৬ দিন প্রতিদিন ৬টি আন্তঃ নগর ট্রেন ৩ মিনিট করে যাত্রা বিরতি দিবেন। সীতাকুণ্ড মডেল থানার ওসি (তদন্ত) সুমন বনিক বলেন, মেলায় ২৫০ জন পুলিশ মোতায়েন থাকবে। উপজেলার ছোট দারোগারহাট থেকে শুরু করে বাড়বকুণ্ড পর্যন্ত নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পাশাপাশি দায়িত্ব পালন করবে র‍্যাব, সিআইডি, ডিবি, মােবাইল টিমসহ বিভিন্ন সংস্থা।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.